চলতি বছর নারী অভিবাসন বেড়েছে ১৩.৭০ শতাংশ

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

‘চলতি সালে আগের বছরের তুলনায় অভিবাসন বেড়েছে ৪০.৮১ শতাংশ। যদিও তা ২০০৭ বা ২০০৮ সালের অভিবাসী সংখ্যার চেয়ে কম। ২০০৩ সালে নারী অভিবাসন থেকে নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার পর নারী অভিবাসন ক্রমাগত বেড়ে চলেছে।’

ঢাকাঃ ‘চলতি সালে আগের বছরের তুলনায় অভিবাসন বেড়েছে ৪০.৮১ শতাংশ। যদিও তা ২০০৭ বা ২০০৮ সালের অভিবাসী সংখ্যার চেয়ে কম। ২০০৩ সালে নারী অভিবাসন থেকে নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার পর নারী অভিবাসন ক্রমাগত বেড়ে চলেছে।’

গত বছরেরর তুলনায় চলতি বছর নারী অভিবাসন ১৩.৭০ শতাংশ বেড়েছে। এ বছরে পুরুষ অভিবাসীর সংখ্যা বেড়েছে বলে নারী অভিবাসীর শতাংশ মোট অভিবাসীর মধ্যে একটু কমেছে।

২০১০ সালে নারী অভিবাসীর পরিমান ছিল মোট অভিবাসীর ৭.০৪ শতাংশ। এ বছরে তা হয়েছে ৫.৫ শতাংশ।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে   রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্ট রিসার্চ ইউনিট (রামরু) আয়োজিত ‘আন্তর্জাতিক শ্রম অভিবাসনের গতি ও প্রকৃতি ২০১১: অর্জন এবং চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক গবেষণাভিত্তিক বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ এবং সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা প্রতিষ্ঠান রামরুর চেয়ার ড. তাসনিম সিদ্দিকী সংবাদ সম্মেলনে ২০১১ সালে বাংলাদেশের শ্রম অভিবাসন বিষয়ে গবেষণালব্ধ তথ্য প্রকাশের পাশাপাশি সরকার ও সিভিল সোসাইটি সংগঠনের অভিজ্ঞতা এবং চ্যালেঞ্জগুলো তুলে ধরেন।

অনুষ্ঠানে অভিবাসন রিপোটির্ং-এর জন্য স্থানীয় সাংবাদিকদের সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। সম্মাননা পেয়েছেন চট্টগ্রামের সৌমিত্র চক্রবর্তী ও টাঙ্গাইলের দিলরুবা আখতার। পুরস্কারপ্রাপ্তদের মধ্যে সম্মাননা সনদ ও ক্রেস্ট দেওয়া হয়।
 
প্রতিবেদনে বলা হয়- ২০১০ এর তুলনায় ২০১১-এ দক্ষ শ্রমিকের সংখ্যা বেড়েছে। ২০১০ সালে দক্ষ শ্রমিকের পরিমান ছিল ২৩.১৯ শতাংশ, ২০১১ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৯.৮৯ শতাংশ ।

২০১০ সালের মত এ বছরেও সবচাইতে বেশি অভিবাসী গেছেন সংযুক্ত আরব আমিরাতে। ২০১০ সালে গিয়েছিল ৫২.০৪ শতাংশ। এ বছরে তা একটু কমে হয়েছে ৪৯.৭৩ শতাংশ।  ২৩.৭৫ শতাংশ গেছেন ওমানে এবং ৮.৬১ শতাংশ সিঙ্গাপুরে।

১৯৯৯ থেকে ২০০৪ পর্যন্ত ৬০ থেকে ৭০ ভাগ অভিবাসীর গন্তব্য ছিল সৌদি আরব। ২০১০ সালে এটি ১.৮১ শতাংশ নেমে এসেছে আর ২০১১-এ মাত্র ২.৬৬ শতাংশ অভিবাসী সৌদি আরবে গেছেন। অর্থনৈতিক মন্দা পরবর্তীতে ২০১০-এ মালয়েশিয়া আবার অভিবাসী কর্মী নেয়া শুরু করে। বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় চুক্তির ভিত্তিতে কর্মী নেওয়ার বেশ কিছু বৈঠক হলেও এ বছরে মাত্র ৭২৬ জন মালয়েশিয়া গেছেন।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়- সরকার গত বছরে সৌদি আরব, মালয়েশিয়া, ইরাকসহ বেশ কিছু দেশে প্রতিনিধিদল পাঠালেও পুরানো কোনো শ্রম বাজারে পুনঃপ্রবেশ সেভাবে ঘটেনি। বিশ্বকাপ ফুটবল ২০২২ কে কেন্দ্র করে কাতারে ৬৫ বিলিয়ন ডলারের ভৌত অবকাঠামো নির্মাণ হচ্ছে।  বাংলাদেশ সরকার শ্রমিক প্রেরণের ক্ষেত্রে ঐ দেশের সাথে এখন পর্যন্ত কোন সমঝোতায় আসতে পারেনি।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বৈরী পরিবেশের মধ্য দিয়ে চলার পরও সামাজিক ও অর্থনেতিক অগ্রগতির কারনে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক সমীক্ষায় বাংলাদেশ স্থান করে নিয়েছে বিশ্বের উদীয়মান অর্থনীতির দেশগুলোর তালিকায়।

এর ন্যূনতম মাথাপিছু আয়বৃদ্ধি সচল থাকলেই আগামী দেড় দশকের মধ্যে বাংলাদেশ পরিণত হতে যাচ্ছে একটি মধ্য আয়ের দেশে। বাংলাদেশের এই প্রবৃদ্ধি অর্জনে যে কয়েকটি সেক্টর বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে- অভিবাসী ও অভিবাসীদের প্রেরিত রেমিটেন্স তাদের মধ্যে অন্যতম। এ বছর রেমিটেন্স জাতীয় আয়ের ১৩.৬৫ শতাংশের সমপরিমান, গার্মেন্টস-এর নেট আয়ের ৩.২২ গুণ।

বৈদেশিক সাহায্য থেকে প্রায় ৬.৪ গুণ এবং ফরেন ডাইরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট-এর তুলনায় ১২.৫ গুণ বেশি। বাংলাদেশের উন্নয়নকে বেগবান রাখতে এই অভিবাসন খাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠা অত্যন্ত জরুরী বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

অভিবাসনে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ এ বছরে শেষ হয়েছে। অভিবাসন ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান আইনের খসড়া তৈরী, প্রবাসী ব্যাংকের অভিবাসন ঋণ কার্যক্রম শুরু, লিবিয়া থেকে বাংলাদেশি কর্মীদের প্রত্যাবাসন, অভিবাসন বিষয়ক জাতিসংঘের কনভেনশন ১৯৯০ অনুসমর্থন এর মাঝে অন্যতম বলে প্রতিবেদনে জানানো হয়।

বাংলাদেশ সময়: ২২০১ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৭, ২০১১

Nagad
বেগমগঞ্জে ৩০ মেট্রিক টন গম জব্দ
করোনা উপসর্গ নিয়ে বিসিএসআইআর কর্মকর্তার মৃত্যু
সভাপতি পদে রাহুলকে চান কংগ্রেসের সাংসদরা
নালিতাবাড়ী-ঝিনাইগাতীতে ২৫ গ্রাম প্লাবিত
বিপিও উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগের আহ্বান পলকের


বিনিয়োগ আকর্ষণে নীতিমালা সংস্কারের পরামর্শ
ভুয়া চিকিৎসকসহ ৩ জনকে কারাদণ্ড, হাসপাতাল সিলগালা
পশ্চিমবঙ্গে একদিনে করোনা আক্রান্ত ১,৫৬০ জন
নভোএয়ারে ভ্রমণ করলে ফ্রি কাপল টিকিট
‘টাউট’ শহীদুলের আইন পেশা, আছে মানবাধিকার সংগঠন!