বাংলাদেশ ফান্ড সাবসক্রিপশনের মেয়াদ বাড়ছে: আইসিবি চেয়ারম্যান

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

পুঁজিবাজার স্থিতিশীলকরণে সরকার কর্তৃক গৃহীত ৫ হাজার কোটি টাকার বাংলাদেশ ফান্ড সাবসক্রিপশনের মেয়াদ এক বছর বাড়ছে।

ঢাকা: পুঁজিবাজার স্থিতিশীলকরণে সরকার কর্তৃক গৃহীত ৫ হাজার কোটি টাকার বাংলাদেশ ফান্ড সাবসক্রিপশনের মেয়াদ এক বছর বাড়ছে।

বৃহস্পতিবার বাংলানিউজকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এ কথা জানিয়েছেন রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন বাংলাদেশ (আইসিবি)’র চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এসএম মাহফুজুর রহমান।
 
বাংলাদেশ ফান্ডের ইউনিট সাবসক্রিপশনের মেয়াদ আছে চলতি বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত।

তবে ফান্ডের পরিধি অনেক বড় হওয়ায় এর মেয়াদ ২০১২ সালের নভেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হবে বলে তিনি জানান।
 
মাহফুজুর রহমান আরও জানান, ফান্ডের ৫ হাজার কোটি টাকার মধ্যে এরই মধ্যে স্পনসররা দিয়েছে ১ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। স্থানীয়ভাবে আনুমানিক ৩০০ কোটি টাকাসহ মোট ১ হাজার ৮০০ কোটি টাকা যোগাড় হয়েছে।
 
বিদেশি বিনিয়োগকারীদের উৎসাহিত করতে সম্প্রতি যুক্তরাজ্য এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর সম্পর্কে জানতে চাইলে আইসিবির চেয়ারম্যান বলেন, বাংলাদেশ ফান্ডে বিনিয়োগের জন্য প্রবাসীদের উৎসাহিত করতে  যুক্তরাজ্য এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে এর কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়েছে। এই সফরে যুক্তরাজ্য এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে বসবাসরত প্রবাসীরা বাংলাদেশ ফান্ডে বিনিয়োগে ব্যাপক আগ্রহ প্রকাশ করেছে।
 
তিনি আরও বলেন, এ কার্যক্রম উদ্বোধন করার সঙ্গে সঙ্গে প্রবাসীরা ২ কোটি টাকার ইউনিট সাবসক্রাইব করেছেন। প্রবাসীরা বাংলাদেশ ফান্ড ম্যানেজ করার প্রক্রিয়াকে স্বাগত জানিয়েছে।
 
যুক্তরাজ্যে বসবাসরত প্রবাসীদের কাছ থেকে সোনালী ব্যাংক যুক্তরাজ্য শাখা এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে বসবাসরত প্রবাসীদের কাছ থেকে জনতা ব্যাংকের আরব আমিরাত শাখার মাধ্যমে এ ফান্ডের টাকা সংগ্রহ করা হচ্ছে।

প্রবাসীরা ফান্ডের যে ইউনিট ক্রয় করবেন তার সার্টিফিকেট সোনালী ও জনতা ব্যাংকের মাধ্যমে পৌঁছে দেওয়া হবে।
 
ভবিষ্যতে বাংলাদেশ ফান্ডের পরিধি ৫ হাজার কোটি টাকা থেকে বাড়বে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আগামী ২-৩ বছরের মধ্যে এ বিষয়ে কিছু বলা যাবে না।

তবে তিনি বলেন, কোম্পানি পরিচালকদের শেয়ার ক্রয়ের ঘোষণার ফলে বাজারে ইতিবাচক ধারা ফিরছে। তারল্য সংকটও না থাকার আভাস পাওয়া যাচ্ছে। তাই বিনিয়োগকারীরা সরাসরি বাজারে ফিরে যাচ্ছে।

ফলে ভবিষ্যতে ফান্ডের পরিধি বাড়ানোর প্রয়োজন নাও হতে পারে বলে তিনি মনে করেন।
 
অন্য কোনও দেশে ফান্ড সংগ্রহের কার্যক্রম চালু করা হবে কি-না জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে বোর্ড সিদ্ধান্ত নিবে। তবে ইতালী, সিঙ্গাপুর, মারয়েশিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসীদের কাছ থেকে বাংলাদেশ ফান্ডের টাকা সংগ্রহ করা হতে পারে।
 
উল্লেখ্য, বছরব্যাপী পুঁজিবাজারে যে দরপতন চলছে, তার বিপরীতে স্থিতিশীল ফান্ড হিসেবে চলতি বছরের ৬ মার্চ বাংলাদেশ ফান্ড গঠন করা হয়।
 
আইসিবিসহ আরও ৭টি উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান মিলে ৫ হাজার কোটি টাকার ফান্ড গঠনের লক্ষ্যে উদ্যোক্তারা তাৎক্ষণিকভাবে দেড় হাজার কোটি টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করে।
 
বাকি সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা আইপিওর বা ইউনিট বিক্রির মাধ্যমে সংগ্রহ করার সিদ্ধান্ত হয়।

বাংলাদেশ ফান্ডের ইউনিট বিক্রির জন্য প্রবাসীদের আহ্বান জানানো হয় এবং এ ফান্ডে বিনিয়োগ করতে তাদের বিনিয়োগ আয়কর অবমুক্ত করা হয়।
 
গত ১০ অক্টোবর পুঁজিবাজারে আলোচিত বাংলাদেশ ফান্ডের ইউনিট বিক্রয় কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করে।
প্রাথমিকভাবে দেশ-বিদেশের ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ফান্ডটির সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকার ইউনিট বিক্রি করা হবে।

আর এই কার্যক্রম পরিচালনা করবে ফান্ডটির মূল উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি)।
আইসিবি ছাড়া ফান্ডটির অপর সাত উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান হলো- সোনালী ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, জীবন বীমা করপোরেশন, সাধারণ বীমা করপোরেশন এবং বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড (বিডিবিএল)।
 
পুঁজিবাজারে সাম্প্রতিক ধসের পরিপ্রেক্ষিতে বাজারকে স্থিতিশীল করার লক্ষ্যে ফান্ডটি গঠন করা হয়।
ভবিষ্যতে প্রয়োজনে এর আকার আরও বাড়ানো হবে বলে উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২২, ২০১১

Nagad
সিলেটে ৫ উপজেলার ৩৭ ইউনিয়ন বন্যা কবলিত
রাজশাহীতে দেরি হচ্ছে ফ্লাইট চালু
আদালতে নিজেকে নির্দোষ দাবি করলেন ডা. সাবরিনা
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ঝরনায় পড়ে যুবকের মৃত্যু
দেশের ৬৫ শতাংশ তরুণ জনগোষ্ঠীই দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পারে


ভারতের সঙ্গে পার্সেল ট্রেন চলাচল শুরু, এলো ৩৮৪ টন মরিচ
ঈদের সাতদিন আগে বেতন-বোনাস পরিশোধের দাবি
খুলনায় চিকিৎসা নিয়ে ছিনিমিনি চলবে না
অনুশীলনে ফিরতে টাইগাররা ফিট ও প্রস্তুত
পর্নোগ্রাফি আইনে শিক্ষিকার মামলায় সাবেক স্বামী গ্রেফতার