৭৯৫ কোটি টাকার চর জীবিকায়ন প্রকল্প একনেকে অনুমোদন

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) ৭৯৫ কোটি টাকা ব্যয় সংবলিত ‘চর জীবিকায়ন কর্মসূচি (২য় পর্যায়) প্রকল্প’ অনুমোদন করেছে।

ঢাকা: জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) ৭৯৫ কোটি টাকা ব্যয় সংবলিত ‘চর জীবিকায়ন কর্মসূচি (২য় পর্যায়) প্রকল্প’ অনুমোদন করেছে।
 
সভায় সর্বমোট ১ হাজার ৬৪৩ কোটি টাকা ব্যয় সংবলিত ৯টি প্রকল্প অনুমোদন করা হয়।

এর মধ্যে ৭২৪ কোটি টাকা সরকারের নিজস্ব তহবিল এবং ৯১৯ কোটি টাকা প্রকল্প-সাহায্য থেকে মেটানো হবে।

মঙ্গলবার রাজধানীর শেরে বাংলানগরের এনইসি সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপার্সন শেখ হাসিনা সভায় সভাপতিত্ব করেন।

অনুমোদিত প্রকল্পটি দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের দুর্গম চর এলাকার ১০ লাখ মানুষের চরম দারিদ্র্য নিরসন ও দুস্থদের সংখ্যা কমানোর লক্ষ্যে প্রণীত হয়েছে।

এ লক্ষ্যমাত্রা ২০১৬ সালের মধ্যে অর্জিত হবে বলে প্রকল্পে উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রকল্প বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, রংপুর, নীলফামারী, লালমনিরহাট, পাবনা, টাঙ্গাইল-এ ৭টি জেলার চরাঞ্চলে অতি দরিদ্র, সংবেদনশীল নারী, শিশু ও পুরুষদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়ন হবে।
 
এছাড়া তাদের আয় বৃদ্ধি ও খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে।

প্রকল্পের আওতায় সংশ্লিষ্ট চর এলাকার জনগণের বাস্তুভিটা বন্যার পানির সর্বোচ্চ সীমা থেকে ৬০ সেন্টিমিটার উঁচু করা হবে। পরিবারভিত্তিক নিরাপদ পানির উৎস ও পয়ঃনিষ্কাশনের সুযোগ সৃষ্টি করা হবে। কাজের অভাবের মৌসুমে কর্মসংস্থানের মাধ্যমে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে।

কর্মসূচি বাস্তবায়নে ডিএফআইডি’র কাছ থেকে ৭৮২ কোটি টাকা পাওয়া যাবে।

একনেক  সভায় সিলেটের সুরমা নদীর উপর পুরাতন ক্বিন ব্রিজের কাছে কাজির বাজারে একটি পিসি গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ ও আম্বরখানা বাইপাস সড়ক নির্মাণ (২য় সংশোধিত) প্রকল্প নামে অপর একটি প্রকল্প অনুমোদন করা হয়।

ঐতিহাসিক ক্বিন ব্রিজটি বহাল রেখেই প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে।

প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে সিলেট শহরের সঙ্গে দক্ষিণ সুরমা, বালাগঞ্জ ও বিশ্বনাথ উপজেলাসহ রাজধানী ঢাকার উন্নত ও দ্রুত সড়ক যোগাযোগ স্থাপন নিশ্চিত হবে।

১৮৯ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর ২০১২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে।

সভা শেষে পরিকল্পনা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব ভূঁইয়া সফিকুল ইসলাম অনুমোদিত প্রকল্পসমূহের খুঁটিনাটি বিষয়ে সাংবাদিকদের অবহিত করেন।
 
অনুমোদিত অন্যান্য প্রকল্প হলো-বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্প (৭৫ কোটি টাকা); ঝুঁকিপূর্ণ শিশুদের জন্য সেবা প্রদান (সংশোধিত) প্রকল্প (৯০ কোটি টাকা); মানসম্মত মৎস্য বীজ ও পোনা উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে মৎস্য স্থাপনা পুনর্বাসন ও উন্নয়ন প্রকল্প (১২২ কোটি টাকা); নেত্রকোণা-ধর্মপাশা-জামালপুর-সিলেট সড়ক উন্নয়ন (নেত্রকোণা অংশ) প্রকল্প (২৬ কোটি টাকা); রাজশাহী মহানগরীর রাজশাহী-নওগাঁ প্রধান সড়ক হতে মোহনপুর রাজশাহী-নাটোর সড়ক পর্যন্তপূর্ব-পশ্চিম সংযোগ সড়ক নির্মাণ প্রকল্প (১২৩ কোটি টাকা); বর্ণি বাওড় উন্নয়ন প্রকল্প (৫৪ কোটি টাকা) এবং প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন প্রকল্প (১৬৯ কোটি টাকা)।

এর মধ্যে সরকার অর্থায়ন করবে ৩২ কোটি টাকা এবং প্রকল্প সাহায্য ১৩৭ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৩৭ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২০, ২০১১

Nagad
শূন্য পদে নিয়োগ চান এসআই সুপারিশ বঞ্চিতরা
দোকানে মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য, হোটেলে বাসি খাবার
আশুলিয়ায় চাঁদাবাজির অভিযোগে যুবক আটক
করোনার ভয়ে আতঙ্কিত না হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
কিন্ডারগার্ডেন স্কুল অ্যান্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের ৬ দফা দাবি


ঠিকাদার পরিচয়ে রেলওয়ের মালামাল চুরি, যুবক আটক
বসুন্ধরা সিমেন্টের পরিবেশক তারেকুল ইসলামের বাবা আর নেই
শিশুতোষ অনুষ্ঠান ‘রঙ-বেরঙের গল্প’
সিলেটে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরও একজনের মৃত্যু
বাটা সু'র নো ডিভিডেন্ড ঘোষণা