বাংলাদেশে এয়ারটেলের প্রথম বর্ষপূর্তি উদযাপন

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

বিশ্বের অন্যতম প্রধান টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠান ভারতী এয়ারটেল মঙ্গলবার বাংলাদেশে কার্যকম পরিচালনার প্রথম বর্ষপূর্তি উদযাপন করেছে। বিশ্বের কোটি কোটি এয়ারটেল‘র গ্রাহকের সঙ্গে বাংলাদেশের গ্রাহকরাও এ ক্ষেত্রে বিশাল ভূমিকা পালন করে চলেছে।

ঢাকা: বিশ্বের অন্যতম প্রধান টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠান ভারতী এয়ারটেল মঙ্গলবার বাংলাদেশে কার্যকম পরিচালনার প্রথম বর্ষপূর্তি উদযাপন করেছে। বিশ্বের কোটি কোটি এয়ারটেল‘র গ্রাহকের সঙ্গে বাংলাদেশের গ্রাহকরাও এ ক্ষেত্রে বিশাল ভূমিকা পালন করে চলেছে।

পাশাপাশি বাংলাদেশে নেটওয়ার্ক বিস্তার এবং অভিনব সেবা প্রচলনের কৌশলগত ব্যবসায়িক উদ্যোগ এদেশের গ্রাহকদের আস্থা অর্জন করতে সমর্থ হয়েছে বলেই বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

ভবিষ্যতে নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা আরো শক্তিশালী করার মাধ্যমে এবং বাংলাদেশের গ্রাহকদের জন্য অভিনব, সাশ্রয়ী এবং প্রাসঙ্গিক সেবা প্রচলনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটিকে বাংলাদেশে তাদের অবস্থান আরো দৃঢ় করার প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ বলেও জানিয়েছেন এয়ারটেল কর্তৃপক্ষ।
প্রথম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে ক্রিস টবিট, ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও, এয়ারটেল বাংলাদেশ লি: বলেন, ‘বাংলাদেশ স্বাধীনতার ৪০ তম বর্ষপূর্তি উদযাপন করছে এবং এদেশের উন্নয়নের অংশীদার হতে পেরে ভারতী এয়ারটেল গর্বিত।’[

তিনি জানান, ‘দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতে গ্রাহকদের জন্য বিশ্বমানের মোবাইল সেবা পৌছে দিতে এয়ারটেল প্রতিনিয়ত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশে লক্ষ লক্ষ গ্রাহকদের সাথে আমাদের এই অগ্রযাত্রা এক চমৎকার অভিজ্ঞতা এবং এই সাফল্য, এয়ারটেল’র ওপর বাংলাদেশের মানুষের আস্থার সমার্থক। আমাদের প্রথম বছরে অকুণ্ঠ সমর্থনের জন্য এয়ারটেল’র গ্রাহক, সহযোগী এবং প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ট সকল ব্যক্তিবর্গের প্রতি আমরা অত্যন্ত কৃতজ্ঞ এবং ভবিষ্যতেও এই সম্পর্ক বজায় রাখতে পারবো বলে আমি আশাবাদী।’
দেশের টেলিকম বাজারে একটি দৃঢ় অবস্থান গ্রহণ এবং বিভিন্ন মাত্রায় গ্রাহকদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের জন্য গত এক বছরে এয়ারটেল বাংলাদেশ যেসব উদ্যোগ গ্রহণ করেছে, সেগুলোর অন্যতম হচ্ছে নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা সম্প্রসারণ, বিক্রয় ব্যবস্থার উন্নয়ন ও প্রসার এবং বাংলাদেশের গ্রাহকদের জন্য অভিনব টেলিকম সেবা প্রদান।

এয়ারটেলের এক বছরের সাফল্য নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমাদের উল্লেখযোগ্য সাফল্যের মধ্যে রয়েছেÑ এক. বাংলাদেশে ৫.৮ মিলিয়ন এর অধিক গ্রাহকের মাঝে তারুণ্যময় শক্তিশালী ব্র্যান্ড প্রতিষ্ঠা।  দুই. বাংলাদেশ জুড়ে সাফল্যের সাথে প্রথম বছরে ৩৯৮টি উপজেলা এবং ২১৫৮টি ইউনিয়নসহ সর্বমোট ৪৩৫০টি টাউনে নেটওয়ার্ক বিস্তার। তিন. বাংলাদেশে নেটওয়ার্ক বিস্তার এবং অভিনব সেবা প্রচলনের কৌশলগত লক্ষ্য অর্জনের দ্বারপ্রান্তে অবস্থান।’
তিনি আরো জানান, এয়ারটেল সবসময়ই চেষ্টা করেছে, বাংলাদেশের মানুষ যা সবচেয়ে ভালোবাসে বা পছন্দ করে, সেটাই তাদের কাছে এনে দিতে। আর এই জন্য এয়ারটেল বেশিরভাগে উদ্যোগই ছিলো সঙ্গীত, খেলাধুলা এবং বিনোদন কেন্দ্রিক।
এছাড়া তিনি জানান, এয়ারটেল সমগ্র বাংলাদেশে সফলভাবে আরো ১৫০০টিরও বেশি নতুন নেটওয়ার্ক সাইট স্থাপনের মাইলফলক অর্জন করেছে। এর ফলে দেশের ৩৯৮টি উপজেলা এবং ২১৫৮টি ইউনিয়নসহ সর্বমোট ৪৩৫০টি টাউনে এয়ারটেল’র নেটওয়ার্কের অন্তর্ভূক্ত হয়েছে।

উন্নত গ্রাহকসেবা নিশ্চিত করতে সারা দেশজুড়ে নতুনভাবে তৈরি করা হয়েছে ৬টি এয়ারটেল এক্সপেরিয়েন্স সেন্টার এবং ১২৪ টি এয়ারটেল রিলেশনশিপ সেন্টার। গত বছর এয়ারটেল ব্র্যান্ড উন্মোচন ছাড়াও গ্রাহকদের জন্য নিয়ে আসা হয়েছে ‘এয়ারটেল লাইভ’ পোর্টাল, ব্ল্যাকবেরি সার্ভিস, সং ক্যাচার, ভেসেল ওয়েদার অ্যালার্ট এবং ভেসেল ট্র্যাকিং সার্ভিস’র মতো অভিনব সব সেবা।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৩০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২০, ২০১১

Nagad
শীর্ষ চারের লড়াইয়ে এগিয়ে গেল চেলসি
এন্ড্রু কিশোরের শেষকৃত্যানুষ্ঠান শুরু, চলছে প্রার্থনা
বার বার অবস্থান পরিবর্তন, দালালের সহায়তায় দেশত্যাগের চেষ্টা
স্বাস্থ্যবিধি মেনেই চলছে ব্যাংকের কার্যক্রম
করোনা: চট্টগ্রামে নতুন শনাক্ত ১৬৭


খুলনায় দিয়াশলয় নিয়ে মারামারিতে যুবক নিহত
চামড়া সংরক্ষণের লবণ মজুদ আছে, বাড়বে না দাম
‘ফাস্ট-ট্র্যাক’ প্রকল্পে মেট্রোরেল রুট ১ ও ৫
সাহেদকে নিয়ে ঢাকায় পৌঁছেছে র‌্যাবের আভিযানিক দল
বোরকা পরে নৌকায় করে পালাচ্ছিলেন সাহেদ