php glass

বাজেটে স্মার্টফোনে অধিক হারে শুল্ক, রাজস্ব হারাবে সরকার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

গ্রাফিক্স ছবি ও রাজস্ব বোর্ড।

walton

ঢাকা: ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে স্মার্টফোনের ওপর অর্পিত শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে ২৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। পৃথিবীর কোনো দেশে এতো বেশি শুল্কের নজির নেই। প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা ও তার প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টার অবদানে এতো অল্প সময়ে এ সেক্টরে যে উন্নয়ন হয়েছে, সেটাও নজিরবিহীন। 

আজকের দিনে স্মার্টফোন ব্যবহার করা হচ্ছে, একটি মিনি কম্পিউটার হিসেবে। এমনকি অনেক ক্ষেত্রে এর ব্যবহার কম্পিউটারকে বহুগুণে ছাড়িয়ে গেছে। সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম যেমন হোয়াটসঅ্যাপ, ভাইভার, ইমো ও ফেসবুকসহ নানাবিধ সুযোগ-সুবিধা রয়েছে।

আজকাল স্মার্টফোনে ব্যবহৃত হচ্ছে ডিজিটাল আর্থিক লেনদেন, শিক্ষা ব্যবস্থা, কৃষি উন্নয়ন, স্বাস্থ্যসেবাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাহা সরকারের অন্যতম মূল লক্ষ্য।

এক জরিপে দেখা গেছে, অপারেটরের কাছ থেকে তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে আইফোন ব্যবহার করছে ২৫ লাখেরও বেশি। কিন্তু বিটিআরসির তথ্য নিয়ে আইফোন পরিবেশকদের সঙ্গে যোগযোগ করা হলে তারা জানান, বিগত ৫ বছরে বৈধভাবে আমদানি করা হয়েছে মাত্র ৩৫ হাজার। একই চিত্র শাওমি, হুয়াওয়ে, নকিয়া, অপ্পোসহ অন্যান্য ব্র্যান্ডের ক্ষেত্রেও দেখা যায়। 

সংশ্লিষ্টদের মতে, উচ্চমাত্রার শুল্কের কারণে স্মার্টফোন বাজারে গেজেট ব্যবসায়ীরা উৎসাহিত হচ্ছে। অতিস্বল্প ব্যয়ে একজন গেজেট ব্যবসায়ী যেখানে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে একটি স্মার্টফোন বাজারজাত করছে, সেখানে অন্যসব বৈধ স্মার্টফোন আমদানিকারকরা ব্যবসা পরিচালনা করতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছে। এতে সরকার বড় অঙ্কের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। পাশাপাশি হুন্ডি ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে ব্যাংকের হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়ে যাচ্ছে। 

এছাড়া উচ্চমাত্রার শুল্কের ফলে স্মার্টফোন সাধারণ জনগণের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। কপি স্মার্টফোন ও নকল ফোনে বাজার সয়লাব করে ফেলছে, যা পৃথিবীর কোথাও নেই।

এক জরিপে দেখা গেছে, সিঙ্গাপুরের অর্থনীতি ভ্যাট ও শুল্ক আদায়ের ওপর নির্ভরশীল। যেখানে কোনো কলকারখানা নেই, সেখানে বিনা শুল্কে স্মার্টফোন আমদানি হয়। কারণ সরকার ব্যবহারকারীর কাছ থেকে কলচার্জ বাবদ প্রতিদিন প্রতিঘণ্টায় রাজস্ব অর্জন করছে। মোট কথা সিঙ্গাপুর সরকার স্মার্টফোনকে ব্যবহার করছে রাজস্ব আয়ের মাধ্যম হিসেবে। অর্থাৎ স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে সহনীয় মাত্রায় শুল্ক নির্ধারণের মাধ্যমে আমদানি সহজকরণ হলে বাংলাদেশ সরকারও সিঙ্গাপুরের মতো রাজস্ব আদায় করতে সক্ষম হবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলাদেশে মোবাইল ফোন তথা স্মার্টফোন শিল্পের সম্ভাবনা প্রচুর। এদেশে স্মার্টফোনের কারখানা স্থাপিত হলে একদিকে যেমন দেশের অর্থনীতি অধিক সমৃদ্ধ হবে, সেইসঙ্গে ব্যাপক কর্মসংস্থানও সৃষ্টি করবে। যদিও মুষ্ঠিমেয় উৎপাদনকারীরা প্রত্যক্ষভাবে লাভবান হবেন। কিন্তু এতে সরকার রাজস্ব আদায়ে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। 

কারখানা স্থাপনে বিদেশি বিনিয়োগের জন্য আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড যেমন হুয়াওয়ে, শাওমি, অপ্পো, ভিভো, নকিয়া, মোটোরোলা ইত্যাদি ব্র্যান্ডের অন্তত আরো দুই বছর সময়ের প্রয়োজন। এ অন্তর্বর্তীকালীন সহজ শুল্ককরণের মাধ্যমে বর্তমান ব্যবসাকে সচল রাখতে হবে যাতে এসব ব্র্যান্ড আমদানির মাধ্যমে সরকারও বিপুল পরিমাণ রাজস্ব অর্জন করতে পারবে। 

সরকার প্রথম তিন মাসের জন্য পরীক্ষামূলকভাবে যদি ৫-১০ শতাংশ শুল্ককরণের মাধ্যমে রাজস্ব আদায় করে এবং পরবর্তী তিন মাস প্রস্তাবিত উচ্চ শুল্ককরণের মাধ্যমে রাজস্ব আদায় করে তাহলে বড় ধরনের পার্থক্য নির্ণয় করতে সক্ষম হবে। যেমন, একসময়ে ফ্লাট রেট শুল্ককরণের মাধ্যমে সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আদায় করতে সক্ষম হয়েছিল।

বাংলাদেশ সময়: ১৯১৫ ঘণ্টা, জুন ১৮, ২০১৯
আরবি/এসএইচ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: বাজেট ২০১৯-২০
ksrm
সিনেমাটির বিষয়ে পূর্ণিমা জানেন না!
শ্রীলঙ্কার জালে বাংলাদেশের ৭ গোল!
শিশু সায়মা ধর্ষণ-হত্যা: প্রতিবেদন পিছিয়ে ১৬ সেপ্টেম্বর
দুদকের জিজ্ঞাসাবাদে ব্যর্থতার দায় নিলেন সৈয়দ ইফতেখার
বঙ্গবন্ধুর খুনির সন্তানেরা নিজেদের পরিচয়ও দিতে পারে না


হামদর্দের এমডির দুর্নীতির বিষয়ে এক সাক্ষীকে জিজ্ঞাসাবাদ
অধ্যক্ষ মাহফুজা হত্যা মামলার প্রতিবেদন গ্রহণ
সেলস অফিসার নেবে আকিজ ফুড অ্যান্ড বেভারেজ
জামালপুরের নতুন ডিসি এনামুল হক
শরণার্থী শিবিরে ৫ দফা দাবিতে রোহিঙ্গাদের সমাবেশ