php glass

ট্রেডিং আওয়ার নিয়ে দুই স্টক এক্সচেঞ্জের মতবিরোধ

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

ট্রেডিং আওয়ার বা লেনদেনের সময়সূচি নিয়ে ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দিয়েছে।

ঢাকা: ট্রেডিং আওয়ার বা লেনদেনের সময়সূচি নিয়ে ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে বিষয়টি নিয়ে দুই কর্তৃপক্ষ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি) বরাবর আবেদন করেছে।

এদের মধ্যে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) কর্তৃপক্ষ তাদের লেনদেনের সময়সূচি ৪ ঘন্টা বহাল রেখে ৩০ মিনিট এগিয়ে সকাল সাড়ে ১০ টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত করার জন্য এবং চট্রগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) কর্তৃপক্ষ তাদের লেনদেনের সময় ৩০ মিনিট বাড়িয়ে ৪ ঘন্টার পরিবর্তে সাড়ে ৪ ঘন্টা করার জন্য এসইসিতে আবেদন করেছে।

তবে সিএসই’র এই আবেদনের সঙ্গে একমত হয় নি ডিএসই।

এ ব্যাপারে ডিএসই’র বক্তব্য হলো চার ঘন্টা কিংবা সাড়ে ৪ ঘন্টা - ট্রেডিং আওয়ার যাই হোক না কেন উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন একই সময় শুরু হয়ে শেষ হতে হবে। অন্যথায় কারসাজি হতে পারে।

এটি বাজারের জন্য বিপর্যয়ের কারন হতে পারে বলেও মনে করছে ডিএসই কর্তৃপক্ষ।

অন্যদিকে সিএসই এ বক্তব্য মানতে নারাজ। বন্দর নগরীর পূঁজিবাজার কর্তৃপক্ষ বলছে, ছোট এক্সচেঞ্জ হিসেবে প্রণোদনা নয়, স্বাতন্ত্র্য বজায় রাখতেই ৩০ মিনিট বেশি লেনদেন করতে চাচ্ছি। এতে আমাদের সক্ষমতা প্রকাশ পাবে।   

তবে এসইসি চট্রগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের ট্রেডিং আওয়ার ৩০ মিনিট বাড়ানোর বিষয়ে ডিএসই’র সঙ্গে পরামর্শ করে সিদ্ধান্ত নিতে বলেছে। ফলে উভয় স্টক এক্সচেঞ্জের ট্রেডিং আওয়ার পরিবর্তনের বিষয়টি এখন ঝুলে রয়েছে।

এ ব্যাপারে এসইসির সিনিয়র সদস্য মনসুর আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন, ‘আমি এ বিষয়ে কোনো কথা বলব না। আপনি কমিশনের মুখপাত্র আনোয়ারুল কবির ভূঁইয়ার সঙ্গে কথা বলুন।’  
আনোয়ারুল কবির ভূঁইয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন, ‘এ বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এসইসির কমিশন সভায় এ বিষয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’  

ডিএসইর সভাপতি মো. শাকিল বিজভী বলেন, ‘বিশ্বের অন্য সব দেশের লেনদেন আরো আগে শুরু হওয়ায় আমাদের জন্য কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। এজন্য আমরা ট্রেডিং আওয়ার আরো ৩০ মিনিট এগিয়ে আনার জন্য এসইসির কাছে আবেদন করেছি।’

তিনি সিএসইর ট্রেডিং আওয়ার ৩০ মিনিটি বাড়ানোর আবেদন প্রসঙ্গে বলেন, ‘এটা করা কোনোভাবেই উচিত হবে না। উভয় স্টক এক্সচেঞ্জের লেনদেন একসঙ্গে শুরু হয়ে শেষ হতে হবে। অন্যথায় বাজারে কারসাজি হবে।’   

অন্যদিকে সিএসইর সভাপতি মো. ফকর উদ্দিন আলী আহমেদ বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন, ‘বিশ্বের অনেক দেশেই ট্রেডিং আওয়ার আমাদের চেয়ে বেশি। ওইসব দেশের স্টক মার্কেটের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার জন্য আমরা ট্রেডিং আওয়ার ৩০ মিনিট বাড়ানোর জন্য এসইসিতে আবেদন করেছি। এ প্রস্তাবে ডিএসই বিরোধীতা করলে তা দুঃখজনক হবে।’

তিনি বলেন, সিএসই একটি আলাদা স্টক এক্সচেঞ্জ। সিএসই প্রতিষ্ঠার পর থেকে গত বছর পর্যন্ত আমাদের লেনদেন ডিএসই থেকে ৩০ মিনিট বেশি হতো। কিন্তু গত বছর এসইসি হঠাৎ করে ট্রেডিং আওয়ার ৩০ মিনিট কমিয়ে ৪ ঘন্টা নির্ধারণ করে দেয়। বর্তমানে আমরা তা ৩০ মিনিট বাড়িয়ে সাড়ে চার ঘন্টা করার জন্য আবেদন করেছি।  এতে ডিএসইর আপত্তি থাকা উচিত নয়।

সিএসই’র স্বাতন্ত্র্য বজায় রাখার জন্যই ৩০ মিনিট বেশি লেনদেন করার আবেদন করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘একটি স্বতন্ত্র প্রতিষ্ঠান কেন আরেকটি স্বতন্ত্র প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে? এর জন্য এসইসিকেই সিদ্ধান্ত দিতে হবে।’

উল্লেখ্য বর্তমানে ডিএসই ও সিএসই উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন সকাল ১১ টা শুরু হয়ে কোন বিরতি ছাড়া বিকেল ৩টা পর্যন্ত চলছে।

বাংলাদেশ সময় ১৩২০ ঘণ্টা, জুলাই ১০, ২০১০

আগুনে ক্ষতিগ্রস্তদের বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা
কোহলিদের প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে সন্ত্রাসীরা 
বিয়ের আসরে বোমা হামলায় সব হারিয়ে নিঃস্ব বর
বিএনপি আদালতে ব্যর্থ, আন্দোলনেও ব্যর্থ: কাদের
ঈশ্বরদীতে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ     


প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে রাজধানীতে শোভাযাত্রা করবে বিএনপি
মঙ্গলবার থেকে মশানিধনে চিরুনি অভিযান
ঝিনাইদহে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীসহ ২ জনের যাবজ্জীবন
আসছে ধারাবাহিক নাটক ‘বেমানান’
ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারে শরিয়তের বিধান