এল কে সিদ্দিকী’র মরদেহ চট্টগ্রামে

932 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি : বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেক মন্ত্রী ও সাবেক ডেপুটি স্পিকার ইঞ্জিনিয়ার এল কে সিদ্দিকীর মরদেহ চট্টগ্রামে পৌঁছেছে। রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রিজেন্ট এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে চট্টগ্রাম শাহ আমানত আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছে।

চট্টগ্রাম: বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেক মন্ত্রী ও সাবেক ডেপুটি স্পিকার ইঞ্জিনিয়ার এল কে সিদ্দিকীর মরদেহ চট্টগ্রামে পৌঁছেছে। রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রিজেন্ট এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে চট্টগ্রাম শাহ আমানত  আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছে।

বিএনপি’র প্রবীণ এ নেতার লাশ দেখতে চট্টগ্রামের কয়েক শতাধিক নেতাকর্মী বিমান বন্দরে অবস্থান নেয়। মরদেহ চট্টগ্রামে পৌঁছালে নেতাকর্মীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে।

এসময় বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, নগর বিএনপি’র সভাপতি আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আকবর খন্দকার ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপি’র আহবায়ক আসলাম চৌধুরীসহ তার নির্বাচনী এলাকা সীতাকুণ্ডের কয়েক শতাধিক নেতাকর্মী।

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আসলাম চৌধুরী জানান, জোহরের নামাজের পর নগরীর জমিয়াতুল ফালাহ জামে মসজিদ মাঠে তৃতীয়, দুপুর আড়াইটায় আগ্রাবাদ জাম্বুরি মাঠে চতুর্থ নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। আছরের নামাজের পর সীতাকুণ্ড উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এবং সন্ধ্যায় দক্ষিণ রহমতনগর গ্রামে আরো দুটি নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর দক্ষিণ রহমতনগরে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হবে।

এল কে সিদ্দিকী  শুক্রবার বাংলাদেশ সময় বেলা ১১টায় সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। রোববার সকাল সাড়ে ৮টায় এল কে সিদ্দিকীর জানাজা নয়াপল্টনের দলীয় কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। জানাজায় দলের জ্যেষ্ঠ নেতারাসহ বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা অংশ নেন।

দ্বিতীয় জানাজা জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় অনুষ্ঠিত হয়েছে। জানাজা শেষে রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ এবং স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর পক্ষ থেকে মরহুমের কফিনে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

এ সময় জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে মরহুমের কফিনে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

এল কে সিদ্দিকী ১৯৩৯ সালের ১৫ এপ্রিল চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার দক্ষিণ রহমতনগর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর রাজনৈতিক জীবনে তিনি দ্বিতীয়, পঞ্চম, ষষ্ঠ ও অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সীতাকুণ্ড থেকে সাংসদ নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৮১-৮২ সালে বিদ্যুৎ, পানিসম্পদ উন্নয়ন ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ও ২০০১ সালে পানিসম্পদমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনের পর গঠিত সংসদে ডেপুটি স্পিকারের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, তিন ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১১৫৬ঘণ্টা, আগস্ট ০৩, ২০১৪

Nagad
শীর্ষ চারের লড়াইয়ে এগিয়ে গেল চেলসি
এন্ড্রু কিশোরের শেষকৃত্যানুষ্ঠান শুরু, চলছে প্রার্থনা
বার বার অবস্থান পরিবর্তন, দালালের সহায়তায় দেশত্যাগের চেষ্টা
স্বাস্থ্যবিধি মেনেই চলছে ব্যাংকের কার্যক্রম
করোনা: চট্টগ্রামে নতুন শনাক্ত ১৬৭


খুলনায় দিয়াশলয় নিয়ে মারামারিতে যুবক নিহত
চামড়া সংরক্ষণের লবণ মজুদ আছে, বাড়বে না দাম
‘ফাস্ট-ট্র্যাক’ প্রকল্পে মেট্রোরেল রুট ১ ও ৫
সাহেদকে নিয়ে ঢাকায় পৌঁছেছে র‌্যাবের আভিযানিক দল
বোরকা পরে নৌকায় করে পালাচ্ছিলেন সাহেদ