‘চট্টগ্রাম বসবাসের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে’

5148 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি : বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, চট্টগ্রাম বসবাসের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে। এ শহরের যেদিকেই থাকায় ময়লা-আবর্জনার ঢিবি। দুর্গন্ধে নাকে রুমাল দিয়ে চলতে হয়।

চট্টগ্রাম: যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, চট্টগ্রাম বসবাসের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে। এ শহরের যেদিকেই থাকায় ময়লা-আবর্জনার ঢিবি। দুর্গন্ধে নাকে রুমাল দিয়ে চলতে হয়। এ শহরের বিলবোর্ডের জন্য সবুজ দেখা যায় না, পাহাড় দেখা যায় না, নদী দেখা যায় না, কোথাও কোথাও আকাশও দেখা যায় না।

তিনি বলেন, এই শহরে যানবাহন চলাচলে কোন শৃঙ্খলা নেই। চট্টগ্রামের মতো এত বেহাল রাস্তাঘাট বাংলাদেশের কোথাও নেই। গোটা শহরেই রাস্তাঘাট আজ বেহাল। আমি প্রধানমন্ত্রীকে রাঙামাটি থেকে এসএমএস করে বিষয়টি জানিয়েছি।

রোববার সকালে নগরীর আগ্রাবাদ বাদামতলী মোড়ে ‘সড়ক দুর্ঘটনা হ্রাস কল্পে গণসচেতনতা বৃদ্ধিমূলক রোড শো ২০১৪’ ক্যাম্পেইন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

চট্টগ্রামের উন্নয়নে আন্তরিকতা ও কমিটমেন্ট প্রয়োজন উল্লেখ করে যোগাযোগমন্ত্রী বলেন, আমাকে দায়িত্ব দিলে আমি তিনদিনের মধ্যে এসব সংস্কার করে দিতে পারবো আর কার্পেটিংয়ের কাজ ৭ থেকে ১০ দিন লাগবে। এই শহর আবার ঝকঝকে তকতকে হবে। এ বিষয়গুলো কমিটমেন্ট নিয়ে কাজ করতে হবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আমি অনুরোধ করবো। তারা হয়তো ভালো মানুষ। কিন্তু ভালো মানুষ হলে চলবে না। আমাদের ভালো কাজ দরকার। চট্টগ্রামবাসী আজকে অসহ্য হয়ে পড়েছে। তাদের আজকে দুর্গন্ধময় একটা শহর। অথচ চট্টগ্রাম আমাদের মায়াবী শহর।

সাবেক এ ছাত্রনেতা বলেন, এ শহরের একদিকে সবুজ পাহাড়, একদিকে কর্ণফুলী নদী, আরেকদিকে বঙ্গোপসাগর। প্রকৃতির এমন অপারকৃপা আর কোথাও খুঁজে পাওয়া যাবে না। আজকে এ শহরের সব সৌন্দর্যহানির উৎসব চলছে। পাহাড় কাটা, রাস্তাঘাটে বিশৃঙ্খলা, ব্যাটারিচালিত রিকশা, হেলমেট ছাড়া আরোহী, অসংখ্য লাইসেন্সবিহীন মোটর সাইকেল এখানে চলাচল করছে। কয়েকদিনের মধ্যে আবার আসবো।

যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, এটা বাংলাদেশের দ্বিতীয় শহর। এটা আমাদের কমার্শিয়াল হাব। আমাদের বাণিজ্যিক রাজধানীর যদি এ অবস্থা হয় তাহলে বিদেশীরা এখানে বিনিয়োগ করতে কি করে আসবে। র্কণফুলী টানেল হচ্ছে। গভীর সমুদ্র বন্দর হচ্ছে। চট্টগ্রামের অনেক ‌উন্নয়নের কাজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার করছে। কিন্তু যদি কানেক্টিভিটি না থাকে, পরিবহণে বিশৃঙ্খলা থাকে, ময়লা আবর্জনায় শহরটা ভরে যায়, কর্ণফুলী দূষিত হয়ে যায় তাহলে এ শহর বসবাসের উপযোগী থাকে না। এ অবস্থা থেকে চট্টগ্রামকে বাঁচাতে হবে।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনকে অপ্রতুল বরাদ্দ প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন,‘১০দিনে যেটা ওভার লে করা যায় সেটার জন্য বরাদ্দের প্রয়োজন হয় না। মেয়র আমাকে বলুক আমি বরাদ্দের ব্যবস্থা করে দিচ্ছি।’

মন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রামে ৯৫ শতাংশ মোটরসাইকেল আরোহীর মাথায় কোন হেলমেট নেই এবং দৃশ্যপট ঢাকার চেয়ে সম্পূর্ণ ভিন্ন। সম্মিলিত উদ্যোগে এ ক্যাম্পেইন চালিয়ে যেতে পারলে যানজট নিরসণ এবং দুর্ঘটনারোধে সফল হতে পারবো। এবিষয়টিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো।

তিনি বলেন, গণ পরিবহণে বিশৃঙ্খলা বিরাজ করছে। এটা উপলব্দি করে গণপরিবহণের শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার জন্য এ জনসচেতনতা অভিযান পরিচালনা করে আসছি।

মন্ত্রী লাইসেন্সবিহীন মোটরসাইকেল, সিএনজি অটোরিকশা ও ব্যাটারিচালিত রিকশার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বিআরটিএ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন।

অভিযানে মন্ত্রী একটি রিকশার ব্যাটারি খুলে ফেলেন এবং হেলমেট ছাড়া এক মোটরসাইকেল আরোহীকে মামলা দেওয়ার নির্দেশ দেন। এসময় গণসচেতনতামূলক লিফলেট-স্টিকারও বিতরণ করেন মন্ত্রী।

বাংলাদেশ সময়: ১১৫৬ঘণ্টা, আগস্ট ০৩, ২০১৪

Nagad
চীনের সঙ্গে ৯০০ কোটি রুপির ব্যবসা বাতিল হিরোর
সিলেটে বিনামূল্যে বাসায় পৌঁছাবে অক্সিজেন সেবা
সাংবাদিক নাজমুল হকের জন্ম
ইতিহাসের এই দিনে

সাংবাদিক নাজমুল হকের জন্ম

স্বর্ণের মাস্ক পরছেন ভারতীয়!
জাপানে বন্যা-ভূমিধস, ১৫ জনের মৃত্যুর আশঙ্কা


ভুতুড়ে বিল: ডিপিডিসির ৫ প্রকৌশলী বরখাস্ত, ৩৬ জনকে শোকজ
ইন্ডাস্ট্রি একাডেমিয়া লিংকেজ তৈরি করা খুবই জরুরি: উপমন্ত্রী
সীমান্তে ২৮টি ভারতীয় গরু জব্দ
লাল-সবুজ পতাকা অস্তিত্বে, তাই শিবনারায়নের পাশে দাঁড়িয়েছি
রাজশাহীতে হারিয়ে যাওয়া সেই শিশুটি বাবাকে ফিরে পেয়েছে