রমজানে যানজট

মোকাবেলায় রুট পুর্নবিন্যাস, নামছে অতিরিক্ত পুলিশ

389 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: সংগৃহীত

walton
আসন্ন রমজানে বন্দরনগরী চট্টগ্রামে যানজট পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে বলে আশংকা করছে পুলিশ। ইফতারির আগে সময়মত বাড়ি পৌঁছাতে না পারলে এবং যানজটে আটকে পড়ে দুর্ভোগ পোহাতে হলে জনরোষের সৃষ্টি হতে পারে বলেও আশংকা আছে পুলিশের মধ্যে।

চট্টগ্রাম: আসন্ন রমজানে বন্দরনগরী চট্টগ্রামে যানজট পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে বলে আশংকা করছে পুলিশ। ইফতারির আগে সময়মত বাড়ি পৌঁছাতে না পারলে এবং যানজটে আটকে পড়ে দুর্ভোগ পোহাতে হলে জনরোষের সৃষ্টি হতে পারে বলেও আশংকা আছে পুলিশের মধ্যে।

এসব আশংকা মাথায় রেখে নগরীর ট্রাফিক ব্যবস্থা পুরোপুরি ঢেলে সাজাচ্ছে নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ। ইতোমধ্যে নগরীতে বাস-মিনিবাস এবং হিউম্যান হলার চলাচলের ২৪টি রুট পুর্নবিন্যাস করে ২৮ জুন থেকে নতুন রুটে গণপরিহন চালানোর নির্দেশ দিয়েছে ট্রাফিক বিভাগ। এছাড়া রমজানের সময় বিকেল ৫টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত কনটেইনার মুভার, বড় ট্রাকসহ দীর্ঘাকৃতির যানবাহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে ট্রাফিক বিভাগ।

নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের উত্তর ও বন্দর জোনের কর্মকর্তারা গত এক মাস ধরে পরিবহন মালিক-শ্রমিক, ব্যবসায়ী, মার্কেট ও শপিং মলের দোকান মালিকসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে এসব পরিকল্পনা সাজিয়েছেন।

নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের উপ কমিশনার (উত্তর) ফারুক আহমেদ বাংলানিউজকে বলেন, মানুষ যাতে বাসায় গিয়ে সময়মত পরিবারের লোকজনের সঙ্গে ইফতার সারতে পারেন সেজন্য নানা পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এসব পরিকল্পনা যদি সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়ন করতে পারি তাহলে সমস্যা থাকবেনা।

নগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার বাবুল আক্তার বাংলানিউজকে বলেন, ইফতারির জন্য কিংবা মার্কেটিং শেষে সময়মত বাড়ি পৌঁছাতে না পারলে মানুষের মধ্যে স্বাভাবিকভাবেই উত্তেজনার সৃষ্টি হতে পারে। এক্ষেত্রে ট্রাফিক বিভাগের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ন। এরপরও রমজানে সবাই সমন্বিতভাবে কাজ করব।

নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (বন্দর) আরেফিন জুয়েল বাংলানিউজকে বলেন, ট্রাপিক ডিভিশন, ক্রাইম ডিভিশন, লাইন থেকে আসা পুলিশ সবাই মিলে রমজানের সময় বিকেল ৩টা থেকে সাড়ে ৬টা পর্যন্ত ট্রাফিক পুলিশের দায়িত্ব পালন করবেন বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

যেসব পথে বাস-মিনিবাস চলাচল করবে
নগরীর এক নম্বর রুটের বাস-মিনিবাস কর্ণফুলী সেতু থেকে ছাড়ার পর  বহদ্দারহাট, কাপাসগোলা, চকবাজার, সিরাজদৌল্লা রোড, আন্দরকিল্লা,  লালদীঘি হয়ে কোতয়ালি পৌঁছাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।
 
দু’নম্বর রুটের বাস-মিনিবাস কালুরঘাট ব্রীজ থেকে আরাকান রোড,  বহদ্দারহাট, ষোলশহর, প্রবর্ত্তক, মেডিকেল, গুলজার, চকবাজার, গণি বেকারী,  জামালখান, আন্দরকিল্লা, টিএন্ডটি, লালদীঘি সোনালী  ব্যাংক, জেল রোড হয়ে কোতোয়ালী মোড় পৌঁছাবে। আর ফেরত যাবে কোতোয়ালী মোড় থেকে  আন্দরকিল্লা, আবদুর ছাত্তার রোড, কলেজ রোড, চকবাজার, প্রবর্ত্তক মোড়,  ষোলশহর, বহদ্দারহাট হয়ে কালুরঘাট ব্রীজ পর্যন্ত যাবে।

৩ নম্বর রুটের গাড়ি ফতেয়াবাদ থেকে নন্দিরহাট, অক্সিজেন, মুরাদপুর, ষোলশহর, ওয়াসা, আলমাস সিনেমা, কাজির দেউরী, এনায়েত বাজার, বৌদ্ধমন্দির, বোস ব্রাদার্স হয়ে সিনেমা প্যালেস পর্যন্ত পৌঁছাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।
 
৪ নম্বর রুটের গাড়ি ভাটিয়ারী থেকে সিটিগেট হয়ে একেখান, জাকির হোসেন রোড, জিইসি, ওয়াসা, টাইগারপাস, ষ্টেশন রোড হয়ে কবরস্থান পর্যন্ত যাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।
 
৫ নম্বর রুটের বাস-মিনিবাস বিমান বন্দর থেকে ফ্লোটিলা গেট, সিমেন্ট ক্রসিং, বারিক বিল্ডিং, শেখ মুজিব রোড, টাইগারপাস, ষ্টেশন রোড হয়ে  নিউমার্কেট যাবে। এরপর নিউ মার্কেট থেকে মাঝিরঘাট ষ্ট্যান্ড রোড,  বারিকবিল্ডিং, সিমেন্ট ক্রসিং, ফ্লোটিলা গেট হয়ে বিমান বন্দর যাবে।

৬ নম্বর রুটের গাড়ি পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত থেকে কাটগড়, সিমেন্ট ক্রসিং, বারিকবিল্ডিং, দেওয়ানহাট, টাইগারপাস হয়ে নিউমার্কেট পৌঁছাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।
 
৭ নম্বর রুটের গাড়ি ভাটিয়ারী থেকে সিটিগেট, অলংকার, বড়পুল,  বাদামতলী মোড়,  দেওয়ানহাট, কদমতলী, স্টেশন রোড হয়ে নিউমার্কেট যাবে। আবার নিউমার্কেট, আইস ফ্যাক্টরী রোড, শুভপুর বাস স্ট্যান্ড,  কদমতলী, বায়ুতুশ শরফ, দেওয়ানহাট, চৌমুহনি, বাদামতলি মোড়, আগ্রাবাদ এক্সেস রোড, বড়পুল, অলংকার মোড় হয়ে ভাটিয়ারি পৌঁছাবে।

৮ নম্বর রুটের বাস-মিনিবাস অক্সিজেন মোড় থেকে ছেড়ে বায়েজিদ বোস্তামী, ষোলশহর, জিইসি, টাইগারপাস, ষ্টেশন রোড হয়ে নিউমার্কেট পৌঁছাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।

১০ নম্বর রুটের বাস-মিনিবাস কালুরঘাট থেকে বহদ্দারহাট, জিইসি, টাইগারপাস, বারিকবিল্ডিং, সিমেন্ট ক্রসিং, কাটগড় হয়ে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত পর্যন্ত যাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।

১১ নম্বর রুটের বাস-মিনিবাস ভাটিয়ারি থেকে ছেড়ে অলংকার, বড়পোল হয়ে পোর্ট কানেকটিং রোড, ইপিজেড ঘুরে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতে যাবে এবং একই পথে ফেরত আসবে।

যেসব পথে হিউম্যান হলার চলাচল করবে
এক নম্বর রুটের হিউম্যান হলার কালুরঘাট ব্রীজ থেকে ছেড়ে বহদ্দারহাট, বাদুরতলা হয়ে চকবাজার তেলিপট্টি রোড থেকে সিরাজদৌল্লা রোড, আন্দরকিল্লা, লালদীঘি হয়ে জিপিও পর্যন্ত পৌঁছাবে এবং ফেরত যাবে একই পথে।
 
দু’নম্বর রুটের হিউম্যান হলার কালুরঘাট ব্রীজ থেকে বহদ্দারহাট, মুরাদপুর,  ওয়াসা, টাইগারপাস হয়ে নিউমার্কেট পর্যন্ত পৌঁছাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।
 
তিন নম্বর রুটের হিউম্যান হলার ফতেয়াবাদ থেকে ছেড়ে বড়দিঘীর পাড়, অক্সিজেন, মুরাদপুর, প্রবর্ত্তক, মেডিকেল, গুলজার, মেডিকেল ছাত্রাবাস,  চট্টেশ্বরী, আলমাস, কাজির দেউরি, জুবিলী রোড, তিনপুলের মাথা, রাইফেল ক্লাব হয়ে সিনেমা প্যালেস পর্যন্ত পৌঁছাবে। একই পরিবহন সিনেমা প্যালেস থেকে বোস ব্রাদার্স, বৌদ্ধ মন্দির হয়ে আলমাস, চট্টেশ্বরী, মেহেদীবাগ, গোল পাহাড় হয়ে আগের রুটে ফতেয়াবাদ পৌঁছাবে।

৪ নম্বর রুটের গণপরিবহন শাহ আমানত ব্রীজ থেকে বহদ্দারহাট, মুরাদপুর,  ওয়াসা, দেওয়ানহাট, বারেক বিল্ডং, ঈদগাঁ কাঁচা রাস্তার মাথা, সবুজবাগ মোড়, ফইল্যাতলী বাজার হয়ে আনন্দ বাজার পর্যন্ত পৌঁছাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।
 
৫ নম্বর রুটের হিউম্যান হলার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ছেড়ে অক্সিজেন, বায়েজিদ বোস্তামী, ষোলশহর ২ নম্বর গেট, ওয়াসা, আলমাস সিনেমা হল, কাজীর দেউরি, জুবলি রোড হয়ে নিউমার্কেট পৌঁছাবে। এসব গণপরিবহন ফেরত যাবে নিউমার্কেট থেকে স্টেশন রোড হয়ে টাইগারপাস, ওয়াসা দিয়ে মুরাদপুর হয়ে অক্সিজেন দিয়ে বের হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত।

৬ নম্বর রুটের গাড়ি নগরীর পুরাতন রেল ষ্টেশন, নিউমার্কেট, কোতোয়ালি, লালদীঘি, কেসিদে রোড, বৌদ্ধ মন্দির, চেরাগি পাহাড়, জামাল খান, গণি বেকারি, চকবাজার, মুরাদপুর, বহদ্দারহাট, কাপ্তাই রাস্তার মাথা হয়ে মুদনাঘাট পর্যন্ত পৌঁছাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।
 
৭ নম্বর রুটের গণপরিবহন নতুন রেল ষ্টেশন, টাইগার পাস, জিইসি মোড়, জাকির হোসেন রোড, ভাটিয়ারী হয়ে কুমিরা পর্যন্ত পৌঁছাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।
 
৮ নম্বর রুটের হিউম্যান হলার মাদারবাড়ী বাস টার্মিনাল, বারেক বিল্ডিং,  পোর্ট কানেকটিং রোড, অলংকার দিয়ে বের হয়ে, ফৌজদারহাট, সীতাকুন্ড পর্যন্ত পৌঁছাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।
 
৯ নম্বর রুটের হিউম্যান হলার হালিশহর বি-ব্লক, আগ্রাবাদ এক্সেস রোড,  বাদামতলী, দেওয়ানহাট হয়ে বিমানবন্দরের সামনে দিয়ে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতে পৌঁছাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।

১০ নম্বর রুটের হিউম্যান হলার কালুরঘাট ব্রীজ থেকে বহদ্দারহাট, জিইসি, টাইগারপাস, বারেক বিল্ডিং হয়ে কাটগড় পর্যন্ত পৌঁছাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।
 
১১ নম্বর রুটের হিউম্যান হলার কর্ণেল হাট থেকে জাকিরহোসেন রোড হয়ে জিইসি দিয়ে বের হয়ে বহদ্দারহাট থেকে শাহ আমানত ব্রীজ পর্যন্ত পৌঁছাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।
 
১২ নম্বর রুটের হিউম্যান হলার অলংকার মোড় থেকে পোর্ট কানেকটিং রোড, সিমেন্ট ক্রসিং হয়ে বিমান বন্দর পর্যন্ত যাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।
 
১৩ নম্বর রুটের হিউম্যান হলার ভাটিয়ারি থেকে, অলংকার মোড় থেকে  পোর্ট কানেকটিং রোড, কাটগড় হয়ে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত পর্যন্ত যাবে এবং একই পথে ফেরত যাবে।

১৪ নম্বর রুটের গণপরিবহন কুয়াইশ কলেজ থেকে অন্যন্যা আবাসিক এলাকা,  অক্সিজেন মোড়, বায়েজিদ বোস্তামী, ষোলশহর ২ নম্বর গেট, জিইসি, টাইগারপাস, থেকে আগ্রাবাদ হয়ে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত পর্যন্ত যাবে এবং একই পথে ফেরত আসবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২৪টি রুট পুর্নবিন্যাসের পাশাপাশি পণ্যবোঝাই পরিবহন বিকেল ৩টা থেকে ইফতার শেষ না হওয়া পর্যন্ত নগরীর টেরিবাজার হয়ে খাতুনগঞ্জ পর্যন্ত চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বিকেল ৫টা থেকে ৭টা পর্যন্ত কনটেইনার মুভারসহ দীর্ঘ যানবাহনও চলাচল করতে পারবেনা। মার্কেটের সামনে এবং জিইসি মোড়, গোলপাহাড় মোড়, প্রবর্তক মোড়সহ আশাপাশের এলাকায় রাস্তার দুপাশে যানবাহন পার্কিং নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ব্যক্তিগত যানবাহন যাদের আছে তাদের রাত ১০টার পর মার্কেটে যেতে বলা হয়েছে।

যানবাহন নিয়ন্ত্রণে সাড়ে ৫’শ অতিরিক্ত পুলিশ
নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের সদস্যদের সহায়তায় প্রথম রমজান থেকে নগরীতে নামছে অতিরিক্ত চার’শ পুলিশ। যানবাহন নিয়ন্ত্রণে পুলিশের দায়িত্ব তিন শিফটে বণ্টন করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, নগরীর উভয় জোনে সকাল সাড়ে ৭টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত প্রথম শিফটে ২৯ জন করে অতিরিক্ত পুলিশ, দুপুর আড়াইটা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত দ্বিতীয় শিফটে ৩৩ জন ‍করে এবং সাড়ে ৮টা থেকে রাত সাড়ে ১২টা পর্যন্ত তৃতীয় শিফটে ২৫ জন করে অতিরিক্ত পুলিশ যানজট নিয়ন্ত্রণে মাঠে থাকবে।

এছাড়া টাইগারপাস, ওয়াসা, জিইসি, মুরাদপুর, বহদ্দারহাট, ষোলশহর, প্রবর্তক মোড়সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে একজন করে ট্রাফিক পরিদর্শক ইফতারির সময় দায়িত্বরত থাকবেন। ইফতারির পর বিভিন্ন মার্কেট, শপিং মলের সামনে তারা দায়িত্বরত থাকবেন।

নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের উপ কমিশনার (উত্তর) ফারুক আহমেদ বাংলানিউজকে বলেন, উত্তর জোনে নিয়মিত ট্রাফিক পুলিশের পাশাপাশি অতিরিক্ত প্রায় সাড়ে তিনশ পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। এর মধ্যে আছে ২৪৮ জন কনস্টেবল এবং বিভিন্ন পদমর্যাদার আরও ৮৫ জন।

ট্রাফিক বিভাগের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (বন্দর) আরেফিন জুয়েল বাংলানিউজকে বলেন, নিয়মিত ট্রাফিক পুলিশের পাশাপাশি দামপাড়া পুলিশ লাইন থেকে আরও দু’শ সদস্য যোগ দিচ্ছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৪০ ঘণ্টা, জুন ২৫,২০১৪

চট্টগ্রামে প্রথমবারের মতো করোনা রোগীর শরীরে প্লাজমা থেরাপি
অধ্যক্ষ নিলুফার মঞ্জুরের মৃত্যুতে বসুন্ধরা পরিবারের শোক
ইবনে খালদুনের জন্ম, নেহরুর প্রয়াণ
খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন মান্না
রংপুরে মদপানে পাঁচজনের মৃত্যু


করোনায় ঢাকায় আইনজীবীর মৃত্যু
রাজধানীতে বেড়েই চলেছে করোনার সংক্রমণ
ডা. জাফরুল্লাহর জন্য ফল পাঠালেন খালেদা জিয়া
করোনায় আক্রান্ত হয়ে কাউন্সিলর মাজহারের মৃত্যু
শিবগঞ্জে বজ্রপাতে গৃহিণীর মৃত্যু