ইমাম গ্রুপের ১৬ মামলার অভিযোগ গঠন ৬ জুলাই

343 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: প্রতীকী

walton
চেক প্রতারণার অভিযোগে খ্যাতনামা শিল্প প্রতিষ্ঠান ইমাম গ্রুপের কর্ণধার মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া ১৬টি মামলার অভিযোগ গঠনের জন্য আগামী ৬ জুলাই সময় নির্ধারণ করেছেন আদালত।

চট্টগ্রাম: চেক প্রতারণার অভিযোগে খ্যাতনামা শিল্প প্রতিষ্ঠান ইমাম গ্রুপের কর্ণধার মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া ১৬টি মামলার অভিযোগ গঠনের জন্য আগামী ৬ জুলাই সময় নির্ধারণ করেছেন আদালত।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার আদালত অভিযোগ গঠনের শুনানি শুরু করতে চাইলে মোহাম্মদ আলীর আইনজীবীরা মামলাগুলো খারিজের আবেদন সুপ্রিম কোর্টে বিচারাধীন আছে বলে জানান। এ অবস্থায় অভিযোগ গঠনের শুনানি হতে পারবেনা বলেও দাবি করেন আইনজীবীরা।

আদালত এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের মূল সনদ ৬ জুলাইয়ের মধ্যে জমা দিতে আসামীপক্ষকে আদেশ দেন। অন্যথায় ৬ জুলাই রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে অভিযোগ গঠন করা হবে বলে আদালত আদেশে উল্লেখ করেছেন।

চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ এস এম মুজিবুর রহমানের আদালতে এ মামলার কার্যক্রম চলছে।

চট্টগ্রাম মহানগর পিপি অ্যাডভোকেট মো.ফখরুদ্দিন চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, আসামীপক্ষ বারবার সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের আদেশের কথা বললেও ওই আদেশের মূল কপি আদালতে জমা দিতে পারছেনা। আমি আপত্তি তোলার পর আদালত ৬ জুলাই তাদের সময় বেঁধে দিয়েছেন। অন্যথায় ওইদিন অভিযোগ গঠন হবে।

এর আগে গত ১৬ জুন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের মূল সনদ জমা দেয়া নিয়ে রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামীপক্ষের মধ্যে তুমুল বাকবিতন্ডার ঘটনা ঘটে। বিচারকের সামনে দু’পক্ষের আইনজীবীরা তর্কের পাশাপাশি একে অপরের দিকে তেড়ে যান বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন। 

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ইমাম গ্রুপের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের বিভিন্ন আদালতে ১৩০ কোটি টাকার চেক প্রতারণার অভিযোগে নিগোশিয়েবল ইনস্টুমেন্ট অ্যাক্টের ১৩৮ ধারায় মোট ৩২টি মামলা বিচারাধীন আছে। ২০১২ ও ২০১৩ সালের বিভিন্ন সময়ে এসব মামলা দায়ের হয়েছে।

মঙ্গলবার আদালতে ইসলামী ও কৃষি ব্যাংকের দায়ের করা ৬৫ কোটি টাকার চেক প্রতারণার ১৬টি মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানির সময় নির্ধারিত ছিল।

সূত্র জানায়, ২০১২ সালের ৩০ এপ্রিল আসামীপক্ষ এসব মামলা খারিজের আবেদন জানিয়ে ৪০১৬৩/২০১২ রিটমূলে একটি কোয়াশমেন্ট পিটিশন হাইকোর্টে দাখিল করেন। শুনানি শেষে হাইকোর্ট ওই আবেদন খারিজ করে দেন।

এরপর আসামীপক্ষ সুপ্রিমকোর্টে লিভ টু আপিল দায়ের করে যা বিচারাধীন অবস্থায় আছে। গত ২৯ মে মামলাগুলো শুনানির জন্য চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ আদালতে তোলা হলে আসামীপক্ষের আইনজীবীরা আদালতকে জানান, উচ্চ আদালতে কোন মামলা বিচারাধীন থাকলে ওই মামলা স্থগিতের বিষয়ে কোন আদেশ না দিলেও নিম্ন আদালত মামলার কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে পারবেনা। ওইদিন চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ আপিল বিভাগে মামলা বিচারাধীন থাকার বিষয়ে ইনফরমেশন স্লিপ দাখিলের নির্দেশ দেন।

এরপর আসামীপক্ষ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সুপারিট্যানডেন্ট (বিচার) ইশতিয়াক উদ্দিন আহমেদের স্বাক্ষরিত একটি সনদ চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ আদালতে জমা দেন। কিন্তু রাষ্ট্রপক্ষ এ সনদ আসল কিনা তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮২০ ঘণ্টা, জুন ২৪,২০১৪

চট্টগ্রামে ঈদের দিন করোনায় আক্রান্ত ১৭৯ জন
গান-আড্ডায় করোনা রোগীদের ঈদ উদযাপন ফিল্ড হাসপাতালে
প্লেন চালুর শুরুতেই ধাক্কা ভারতে, একের পর এক ফ্লাইট বাতিল
দেশবাসীকে ঘরে থাকার আহবান খালেদা জিয়ার
নারায়ণগঞ্জে মৃদু ভূমিকম্প অনুভূত


আড়াইহাজারে মাজার খাদেমের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
গণস্বাস্থ্যের কিটের ট্রায়াল স্থগিত
৫ হাজার মানুষকে ঈদ উপহার দিলেন সালমান খান
মাগুরায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ইটভাটার মালিক-কর্মচারীর মৃত্যু
আড়াইহাজারে দগ্ধ চা দোকানির মৃত্যু