নির্যাতন রুখে দিতে চট্টগ্রামে ‘নারী যোগাযোগ কেন্দ্র’ গঠন

444 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton
নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী উন্নয়ন সংস্থা এবং নারী সংগঠকদের সমন্বয়ে গঠিত হয়েছে ‘নারী যোগাযোগ কেন্দ্র’।

চট্টগ্রাম: নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী উন্নয়ন সংস্থা এবং নারী সংগঠকদের সমন্বয়ে গঠিত হয়েছে ‘নারী যোগাযোগ কেন্দ্র’।

গত বৃহস্পতিবার নগরীর আকবর শাহ এলাকায় স্বেচ্ছসেবী উন্নয়ন সংস্থা ইউনাইটেড থিয়েটার ফর সোশাল অ্যাক্শনের (উৎস) কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সভায় এ সংগঠনের আত্মপ্রকাম ঘটে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন, এ এস ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী আরজু সাহাবউদ্দিন, অর্জন মহিলা উন্নয়ন সংস্থার সভানেত্রী আবিদা আজাদ, হাজী আব্দুল আলী সিটি কর্পোরেশন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রোমা বড়ুয়া, দীপশিখা খেলাঘর এবং কদম মোবারক এম ওয়াই বিদ্যালয়ের শিক্ষক সালমা জাহান মিলি, ইমেজ‘র কাউন্সিলর সিতারা শামীম, সমাজকর্মী মাজেদা বেগম শিরু, স্বপ্নের নীড়’র রোকসানা আক্তার, এডভোকেট ফরিদা আক্তার, ফিরোজশাহ সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষিকা মিতা চৌধুরী, খুলশী থানা মহিলা সমিতির সহকারী ব্যবস্থাপক হাজেরা খান, নকশী বাংলার পরিচালক সুফিয়া আক্তার, এইউডিসি‘র সভাপতি সাফিয়া বেগম, ইউটিসিতে কর্মরত হাজেরা বেগম সহ উৎস’র নারী কর্মীরা।

নাদিরা সুলতানার সঞ্চাালনায় মতবিনিময় সভায় নারী যোগাযোগ কেন্দ্র গঠনের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে বক্তারা বলেন, নারী যোগাযোগ কেন্দ্র মূলত নারীদের প্লাটফরম। এখানে নারীরা আসবে, কথা বলবে, অধিকার সম্পর্কে জানবে এবং অধিকার রক্ষায় ভূমিকা রাখবে।

তারা বলেন, নারী যোগাযোগ কেন্দ্রের উদ্দেশ্য হচ্ছে নারীদের নিজেদের মধ্যে একান্ত মতবিনিময়ের ক্ষেত্র তৈরী করা, পারিবারিক বন্ধন দৃঢ় করার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করা, পারিবারিক নির্যাতনের কারণ উদঘাটনে ও প্রতিরোধে নারীদের সাহসী করে তোলা, নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গ্রহন করা এবং জনমত সৃষ্টি করা, নির্যাতিতাদের সহায়তা করা, নারী নির্যাতন প্রতিরোধে তৃণমুল পর্যায়ে সামাজিক সচেতনতামূলক ও এ্যাডভোকেসী কর্মসূচির আয়োজন করা, সমাজের পাশাপাশি ব্যক্তিগত ও পারিবারিক জীবনেও জেন্ডার সমতার জন্য সোচ্চার হওয়া, নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক দলিল ও দেশীয় আইন সম্পর্কে সচেতন করে তোলা, নারী নির্যাতন প্রতিরোধে সরকারী প্রশাসনকে আরও দায়িত্বশীল ও সক্রিয় করার পদক্ষেপ গ্রহণ ও এ্যাডভোকেসী করা, সিদ্ধান্ত গ্রহন প্রক্রিয়া ও ক্ষমতায়নে নারীকে উদ্যোগী করে গড়ে তোলা এবং নারীর প্রতি অবজ্ঞামুলক দৃষ্টিভঙ্গি, সামাজিক মুল্যবোধ সৃষ্টি ও কুসংস্কার দুর করা।

তারা জানান, নারী যোগাযোগ কেন্দ্রের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার মধ্যে আছে, নারী নির্যাতন প্রতিরোধে সংঘবদ্ধভাবে এগুনো এবং সমস্যা সমাধানের পথ খোঁজা।
নারীকে নিজের সমস্যা সমাধানের জন্য এগিয়ে আসতে উদ্বুদ্ধ করে তোলা এবং চিরতরে নারী নির্যাতন বন্ধ করা।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৭ ঘণ্টা, জুন ২১, ২০১৪

চট্টগ্রামে প্রথমবারের মতো করোনা রোগীর শরীরে প্লাজমা থেরাপি
অধ্যক্ষ নিলুফার মঞ্জুরের মৃত্যুতে বসুন্ধরা পরিবারের শোক
ইবনে খালদুনের জন্ম, নেহরুর প্রয়াণ
খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন মান্না
রংপুরে মদপানে পাঁচজনের মৃত্যু


করোনায় ঢাকায় আইনজীবীর মৃত্যু
রাজধানীতে বেড়েই চলেছে করোনার সংক্রমণ
ডা. জাফরুল্লাহর জন্য ফল পাঠালেন খালেদা জিয়া
করোনায় আক্রান্ত হয়ে কাউন্সিলর মাজহারের মৃত্যু
শিবগঞ্জে বজ্রপাতে গৃহিণীর মৃত্যু