মুরাদপুর-লালখান বাজার ফ্লাইওভার

দরপত্র উন্মুক্ত, সর্বনিম্ন দরদাতা ম্যাক্স-র‌্যাঙ্কিন

200 | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: প্রতীকী

walton
মুরাদপুর-লালখান বাজার ফ্লাইওভারের দরপত্র উন্মুক্ত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের(সিডিএ) সম্মেলন কক্ষে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের সামনে দরপত্র উন্মুক্ত করা হয়। চারটি প্রতিষ্ঠানকে প্রাক-যোগ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। সর্বনিম্ন দর দিয়েছে চীনা প্রতিষ্ঠান ম্যাক্স-র‌্যাঙ্কিন জেভি।

চট্টগ্রাম: মুরাদপুর-লালখান বাজার ফ্লাইওভারের দরপত্র উন্মুক্ত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের(সিডিএ) সম্মেলন কক্ষে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের সামনে দরপত্র উন্মুক্ত করা হয়। চারটি প্রতিষ্ঠানকে প্রাক-যোগ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। সর্বনিম্ন দর দিয়েছে চীনা প্রতিষ্ঠান ম্যাক্স-র‌্যাঙ্কিন জেভি।

দরপত্র উন্মুক্ত করার সময় উপস্থিত ছিলেন সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম, বোর্ড সদস্য মাহবুবুল আলম ও ইউনুস গণি চৌধুরী এবং ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা।

সিডিএ সূত্র জানায়, ২০১৩ সালের ১ অক্টোবর একনেকের সভায় মুরাদপুর-লালখান বাজার ফ্লাইওভার প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়। চার লেনবিশিষ্ট  ফ্লাইওভারের মোট দৈর্ঘ্য ৫ দশমিক ২ কিলোমিটার। এর নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৬২ কোটি ২১ লাখ ৫৯ হাজার টাকা। প্রকল্পের মেয়াদ ধরা হয়েছে ২০১৬ এর জুন পর্যন্ত। গত ডিসেম্বরে আন্তর্জাতিক দরপত্র আহবান করা হয়।

দেশীয় ও আন্তর্জাতিক ১৩টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দরপত্র কিনলেও জমা দিয়েছে ১০টি প্রতিষ্ঠান। সিডিএ’র যাচাই বাছাই কমিটি পাঁচটি প্রতিষ্ঠানকে প্রাক-যোগ্য হিসেবে নির্ধারণ করে দরপত্র দলিল পাঠায়। এরমধ্যে তাহের ব্রাদার্স দরপত্র জমা দেয়নি। চারটি প্রতিষ্ঠান থেকে দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি বিচার বিশ্লেষণ করে একটি প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ দিবে।

চারটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ম্যাক্স-র‌্যাঙ্কিন জেভি প্রাক্কলিত দর দিয়েছে ৪৫৩ কোটি ১৫ লাখ ৮৭ হাজার ৫৬৯ টাকা। যা মূল দরের চেয়ে প্রায় নয় কোটি টাকা কম।
 
ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মীর আকতার হোসেন লিমিটেড দর দিয়েছে ৪৬২ কোটি ৫ লাখ ৪৫ হাজার ৮৩৯ টাকা। চট্টগ্রামের বহুল আলোচিত বহদ্দারহাট ফ্লাইওভার নির্মাণ করেছিল এই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। ২০১২ সালের ২৪ নভেম্বর নির্মাণাধীন অবস্থায় ফ্লাইওভারের গার্ডার ধসে ১৪ জন নিহত হয়েছিলেন।

সবচেয়ে বেশি ৬১২ কোটি ২২ লাখ ৩২ হাজার ৪৫ টাকা দর দিয়েছে সিমপ্যাক্স-নাভানা জেভি। আর আবদুল মোনেম লিমিটেড দর দিয়েছে  ৫৯৭ কোটি ৩৪ লাখ ৬৮ হাজার ১১ টাকা।

সিডিএ’র নির্বাহী প্রকৌশলী ও প্রকল্প পরিচালক মাহফুজুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন,‘দরপত্র মূল্যায়ণ কমিটি যাচাই বাছাই করে মন্ত্রণালয়ে পাঠাবে। তারপর কার্য্যাদেশ দেওয়া হবে। ফ্লাইওভারটি নির্মাণ হলে দুই নম্বর গেইট এলাকায় যানজটের চাপ কমবে।’

বাংলাদেশ সময়: ১৯৫৪ ঘণ্টা, মে ১৫, ২০১৪

ওসির গাড়িতে গর্ভবতী নারীকে নেওয়া হলো হাসপাতালে
রামগতিতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় সাংবাদিক নিহত
করোনায় সিরিয়ায় প্রথম মৃত্যু
স্বল্প পরিসরে চেক ক্লিয়ারিং করার নির্দেশ
করোনায় ইতালিতে আরও ৭৫৬ জনের মৃত্যু


করোনাভাইরাস মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর বার্তা
প্রধানমন্ত্রীর তহবিলে ১ দিনের বেতন দিলেন সেনা সদস্যরা
মাঠে নেমে সহায়তা করছেন বলিউড তারকারা
ল্যাব না থাকলেও সিংড়ায় গেল দুই'শ করোনা টেস্টিং কিট
মানুষকে টেলিফোনে চিকিৎসাসেবা দিতে ফারাজের উদ্যোগ