ঢাকা, রবিবার, ১২ আশ্বিন ১৪২৭, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮ সফর ১৪৪২

বইমেলা

শেষ সপ্তাহে মেলা জমজমাট হওয়ার আশায় প্রকাশকরা

ফিচার রিপোর্টার | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১০৪ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৮
শেষ সপ্তাহে মেলা জমজমাট হওয়ার আশায় প্রকাশকরা গ্রন্থমেলার আঙিনা। ছবি: ডিএইচ বাদল

অমর একুশে গ্রন্থমেলা থেকে: বিকেলের সেশন শুরু হতেই ভিড় জমতে থাকে গ্রন্থমেলার আঙিনা। আস্তে আস্তে জনাকীর্ণ হয়ে ওঠে প্রাণের সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ। বিকেল পেরিয়ে সন্ধ্যা নামতেই নানা বয়সী মানুষের উচ্ছল উপস্থিতিতে মেলা রূপ নেয় প্রাণের আয়োজনে।

সাতক্ষীরা থেকে ছোট বোন কথাকে সঙ্গে নিয়ে বইমেলা এসেছেন আবিদ রহমান। কথা হলে তিনি বাংলানিউজকে বলেন, ঘুরে ঘুরে অনেকগুলো বই কিনব বলে ভেবে রেখেছি।

মেলায় এসে বইপ্রেমী এতো মানুষ দেখে দারুণ লাগছে।

মেলার এ শেষ সময়ে যারা আসছেন, সকলেই কিনছেন বই। সে সুবাদে সন্তুষ্ট প্রকাশকরাও। তবে শেষ সপ্তাহে মেলা আরো বেশি জমে উঠবে বলই মনে করছেন তারা। আনছেন পাঠকের আগ্রহ থাকা নতুন নতুন বিভিন্ন বই।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) অমর একুশে গ্রন্থমেলার ১৯তম দিন মেলায় নতুন বই এসেছে ১৪১টি। এর মধ্যে গল্প ২২টি, উপন্যাস ২৪টি, প্রবন্ধ ১১টি, কবিতা ৫৩টি, ছড়া ৩টি, শিশুসাহিত্য ৩টি, জীবনী ২টি, মুক্তিযুদ্ধ ৩টি, বিজ্ঞান ১টি, ভ্রমণ ২টি, রম্য/ধাঁধা ১টি, অনুবাদ ৩টি, সায়েন্স ফিকশন ১টি ও অন্যান্য ১২টি।

এদিন বিকেলে গ্রন্থমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় বাংলাদেশের অর্থনীতি শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। এতে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন কাজী খলীকুজ্জামান আহমদ, হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন, সেলিম জাহান এবং ফাহমিদা খাতুন। সভাপতিত্ব করেন হাসনাত আবদুল হাই।

প্রাবন্ধিক বলেন, বাংলাদেশ আজ আর্থসামাজিক উন্নয়নের দোরগোড়ায়। পদ্মাসেতু দৃশ্যমান, রেলের ব্রডগেজিকরণ ও ডাবল লাইনিং অচিরেই হবে, ২০১৮ সালেই ২০০০০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের হাতছানি। বাংলাদেশ পাঁচ উন্নয়ন সহযোগী চীন, জাপান, ভারত, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক ও বিশ্বব্যাংক চার হাজার কোটি মার্কিন ডলারের সমতুল্য আর্থিক ঋণ সুবিধার প্রতিশ্রুতি দিয়ে বাংলাদেশের নেতৃত্ব ও আর্থিক ব্যবস্থাপনায় তাদের আস্থা প্রকাশ করেছে। দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়ে কল্যাণ রাষ্ট্র সোনার বাংলা গড়ার সম্ভাবনা বাংলার দিগন্তে উঁকি দিচ্ছে।

আলোচকরা বলেন, জনমানুষের উন্নয়নই অর্থনৈতিক উন্নয়নের মূল বিষয়। টেকসই উন্নয়নের জন্য আমাদের শ্রমজীবী মানুষদের গুরুত্ব হবে, মানুষের আর্থিক সক্ষমতা বাড়াতে হবে। এজন্য শিক্ষার মান উন্নয়নেরও কোন বিকল্প নেই। এছাড়া কর্মসংস্থানভিত্তিক উন্নয়নই পারে বেকারত্ব সমস্যার অবসান ঘটিয়ে উন্নয়নকে টেকসই ও সুষম করতে।

তারা বলেন, বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়ন যে গতিতে এগিয়ে চলেছে তাতে আমাদের লক্ষ্য হওয়া উচিত দ্রুততম সময়ের মধ্যে স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে বেরিয়ে আসা।

সভাপতির বক্তব্যে হাসনাত আবদুল হাই বলেন, অপ্রতিহত গতিতে বাংলাদেশ উন্নতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। অর্থনীতি ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অগ্রগতি আজ আর কোন স্বপ্ন নয়, এখন এটি এক বাস্তবতা। প্রান্তিক মানুষের জীবনমান উন্নতকরণকে বাংলাদেশ তার অর্থনীতির অন্যতম প্রধান অভিমুখ নির্ধারণ করায় অর্থনৈতিক অগ্রগতির সুফল সর্বস্তরে পৌঁছে যাচ্ছে।

সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে পরিবেশিত হয় সামিউন জাহান দোলার একক অভিনয়ে ধ্রুপদী অ্যাক্টিং স্পেস-এর নাটক নভেরা।

আগামীকাল ২০ ফেব্রুয়ারি (মঙ্গলবার) অমর একুশে গ্রন্থমেলার ২০তম দিন। এদিন মেলা চলবে বিকেল ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত।

বিকেল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে 'বাংলাদেশের হাজার বছরের ইতিহাস: বহুত্ববাদ এবং স্বাধীন বাংলাদেশের চার রাষ্ট্রনীতি' শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন আকসাদুল আলম। আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন সৈয়দ আনোয়ার হোসেন ও মাহবুবুল হক। সভাপতিত্ব করবেন শামসুজ্জামান খান। সন্ধ্যায় রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

বাংলাদেশ সময়: ০৩০৩ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৮
এইচএমএস/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa