কবি-লোক গবেষক আশরাফ সিদ্দিকীর জীবন ও কর্ম

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

কবি-লোক বিজ্ঞানী ড. আশরাফ সিদ্দিকী

walton

কবি ও লোক বিজ্ঞানী ড. আশরাফ সিদ্দিকী বুধবার (১৯ মার্চ) রাত ৩টায় অ্যাপোলো হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। তার বয়স হয়েছিল ৯৩ বছর। বহুবর্ণিল কর্মযজ্ঞের ভেতর দিয়ে দীর্ঘ এ জীবন অতিবাহিত করেছেন তিনি। বিংশ শতাব্দীর বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন যেসব সাহিত্যিক, আশরাফ সিদ্দিকী তাদের অন্যতম। 

লিখেছেন ‘তালেব মাষ্টার’-এর মতো কালজয়ী কবিতা। বিপুল পরিসরে গবেষণা করেছেন বাংলার লোকঐতিহ্য নিয়ে। একাধারে প্রবন্ধকার, ছোটগল্প লেখক, ঔপন্যাসিক, লোকসাহিত্যিক ও শিশু সাহিত্যিক ড. আশরাফ সিদ্দিকী। 

১৯২৭ সালের ১ মার্চ নানাবাড়ি টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার নাগবাড়ি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন ড. আশরাফ সিদ্দিকী। তার বাবা আব্দুস সাত্তার সিদ্দিকী ছিলেন সৌখিন হোমিও চিকিৎসক এবং ইউনিয়ন পঞ্চায়েত ও ইউনিয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান। মা সমীরণ নেসা ছিলেন স্বভাব কবি।

শিক্ষা জীবন

আশরাফ সিদ্দিকী প্রথমে তার নানাবাড়ির পাঠশালায় শিক্ষাজীবন শুরু করেন। দ্বিতীয় থেকে সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত পড়েন নিজেরই বাবার প্রতিষ্ঠিত রতনগঞ্জ মাইনর স্কুলে। ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়াকালীন প্রথম কবিতা লেখেন। সপ্তম শ্রেণিতে ভর্তি হন ময়মনসিংহ জেলা স্কুলে। মামা আবদুল হামিদ চৌধুরীর বাসায় থেকে পড়াশোনা করতেন। এদিকে তখনও লেখা চলছিল কবিতা। সপ্তম শ্রেণিতে থাকাকালীনই তার কবিতা ‘স্বগত’ ও ‘পূর্বাশা’ সাহিত্য পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। এ সময় তিনি কিছু আঞ্চলিক বাংলা ধাঁধা সংগ্রহ করে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে পাঠান। রবীন্দ্রনাথ তার প্রশংসা করেন। এর কিছুদিন পর তিনি শান্তিনিকেতনে পড়ার জন্য ভারতে চলে যান। ১৯৪৭ সালে শান্তিনিকেতনে বাংলায় অনার্স পড়াকালীন দেশবিভাগ হলে দেশে ফিরে আসেন। 

১৯৪৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধীনস্থ টাঙ্গাইলের করটিয়া সরকারি সা’দত কলেজ থেকে অনার্স সম্পন্ন করেন। অনার্স কোর্সে বাংলা সাহিত্যে তিনি সম্মিলিত মেধা তালিকায় প্রথম হন। এরপর ১৯৫০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন আশরাফ সিদ্দিকী। ১৯৫৮ সালে দ্বিতীয়বার এমএ করেন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এবং একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৬ সালে লোকসাহিত্যে পিএইচডি করেন।

কর্মজীবন

১৯৫০ সালে দানবীর রণদা প্রসাদ সাহা কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত কুমুদিনী কলেজে অধ্যাপনার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন আশরাফ সিদ্দিকী। ১৯৫১ সালে এমএ পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন রাজশাহী সরকারি কলেজে। ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর প্রিয়পাত্র হওয়ায় তার সাথে গবেষণার জন্য ওই বছর নভেম্বর মাসে ডেপুটেশনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেন। ১৯৫২ সালে আবার ফিরে যান রাজশাহী কলেজে। তিনি ১৯৫৭ সালে রাজশাহী কলেজ থেকে বদলি হয়ে ঢাকা কলেজে যোগ দেন এবং সেখান থেকেই উচ্চ শিক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে যান।

১৯৬৭ সালে পিএইচডি শেষ করে কিছুদিন ময়মনসিংহ আনন্দ মোহন কলেজে অধ্যাপনা করেন। একই বছর ডিসট্রিক্ট গেজেটিয়ারে প্রধান সহকারী সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন। ১৯৬৮ সালে দায়িত্ব পান তদানীন্তন কেন্দ্রীয় বাংলা উন্নয়ন বোর্ডের পরিচালকের। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ ডিসট্রিক্ট গেজেটিয়ারের প্রধান সম্পাদক হিসেবে নিযুক্ত হন। এরপর ১৯৭৬ সালে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ছয় বছর বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করার পর ১৯৮৩ সালে জগন্নাথ কলেজে অধ্যক্ষ হিসেবে যোগ দেন। জগন্নাথ কলেজের অধ্যক্ষ থাকাকালীনই দীর্ঘ কর্মজীবন থেকে অবসর নেন আশরাফ সিদ্দিকী।

এসবের বাইরেও বিভিন্ন সময় গুণী এ ব্যক্তি বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার চেয়ারম্যান, প্রেস ইনস্টিটিউটের প্রেসিডেন্ট, নজরুল একাডেমির আজীবন সভাপতি ও নজরুল ইনস্টিটিউটের সভাপতির দায়িত্বপালন করেন। ত্রিশালে কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা ও জগন্নাথ কলেজকে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরে অনুঘটকের ভূমিকা পালন করেছেন আশরাফ সিদ্দিকী। 

সাহিত্য জীবন

৪০ এর দশকের শুরুতে প্রতিশ্রুতিময় কবি হিসেবে তার আত্মপ্রকাশ। দেশবিভাগের পর অভাবের তাড়নায় এক স্কুলশিক্ষক পরিবারের সবাইকে নিয়ে আত্মহত্যা করেন। এই ঘটনা আশারফ সিদ্দিকীকে তুমুল নাড়া দেয় ও তার সাহিত্য রচনার প্রেরণা হয়ে দাঁড়ায়। সে সময় তিনি লেখেন কালজয়ী কবিতা ‘তালেব মাষ্টার’ । এ কবিতার মধ্য দিয়ে অল্প সময়ের মধ্যে গণমানুষের কবি হিসেবে তিনি জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। ১৯৫০ সালে এটিকেই নামকবিতা করে প্রকাশ পায় তার কবিতার বই ‘তালেব মাষ্টার ও অন্যান্য কবিতা’। এরপর একে একে প্রকাশিত হয় তার কবিতার বই- সাত ভাই চম্পা, বিষকন্যা, ও উত্তরের তারা।

১৯৬৫ সালে ‘রাবেয়া আপা’  নামক গল্প দিয়ে গল্পকার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন আশরাফ সিদ্দিকী। ‘গলির ধারের ছেলেটি’  গল্পটি তাকে গল্পকার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে।] এ গল্প অবলম্বনে নির্মিত প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক সুভাষ দত্ত পরিচালিত ডুমুরের ফুল চলচ্চিত্রটি একাধিক জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও লাভ করে।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানা বিশ্ববিদ্যালয়ে লোক সাহিত্য বিষয়ে পড়াকালীন তিনি রচনা করেন শিশুতোষ সাহিত্য ‘সিংহের মামা ভোম্বল দাস’,  যা বিশ্বের ১১টি ভাষায় অনূদিত হয়।  ‘ভোম্বল দাশ: দ্যা আঙ্কল অব লায়ন’ এবং ‘টুনটুনি এন্ড আদার স্টোরিজ’ গ্রন্থগুলোর মধ্যে দিয়ে তিনি বাংলার লোকগল্পকে বিশ্ব সাহিত্যের ভাণ্ডারে পৌঁছে দেন। ১৯৫৮ সালে প্রখ্যাত ম্যাকমিলান পাবলিশিং থেকে প্রকাশিত তার ‘ভোম্বল দাশ’ বইটি ছিল সে বছরের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সর্বাধিক বিক্রিত শিশুদের বইয়ের তালিকায়। 

এছাড়া ৭০-এর দশকে লেখা আশরাফ সিদ্দিকীর বই ‘রবীন্দ্রনাথের শান্তিনিকেতন’ ও ‘প্যারিস সুন্দরী’ আজও তরুণ পাঠকদের কাছে বিপুল জনপ্রিয়। 

বাংলার মৌখিক লোক সাহিত্য ও সংস্কৃতিকে লিপিবদ্ধ করার জন্য ড. আশরাফ সিদ্দিকী বিশেষভাবে সমাদৃত। তার লেখা- ‘লোকসাহিত্য’, ‘বেঙ্গলী ফোকলোর’, ‘আওয়ার ফোকলোর আওয়ার হেরিটেজ’, ‘ফোকলোরিক বাংলাদেশ’, ‘কিংবদন্তীর বাংলা’ দক্ষিণ এশিয়ার লোক সাহিত্যে গবেষণায় মৌলিক বই হিসেব বিবেচিত হয়। এছাড়া বাংলাদেশের লোক সাহিত্য নিয়ে লেখেন ‘লোক সাহিত্য প্রথম খণ্ড’। এরই ধারাবিহিকতায় ‘কিংবদন্তির বাংলা’, "শুভ নববর্ষ', "লোকায়ত বাংলা', "আবহমান বাংলা', "বাংলার মুখ' বইগুলো প্রকাশিত হয়। ছোটবেলায় মায়ের কাছ থেকে শোনা রূপকথার গল্প থেকে অণুপ্রাণিত হয়ে ১৯৯১ সালে লেখেন ‘বাংলাদেশের রূপকথা’ নামক বইটি। 

দীর্ঘ সাহিত্য জীবনে আশরাফ সিদ্দিকী রচনা করেছেন পাঁচশ’র অধিক কবিতা। কবিতা, বাংলার লোকঐতিহ্য, প্রবন্ধ, উপন্যাস, শিশুসাহিত্য ও অন্যান্য বিষয়ে তিনি রচনা করেছেন ৭৫টিরও অধিক গ্রন্থ। এছাড়া অগ্রন্থিত অনেক মূল্যবান লেখাপত্র রয়েছে। 

বাংলা সাহিত্যে অবদানের জন্য তিনি ১৯৬৪ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার ও ১৯৮৮ সালে বাংলাদেশ সরকারের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদকে ভূষিত হন আশরাফ সিদ্দিকী।

পারিবারিক জীবন

১৯৫১ সালের ২৩ ডিসেম্বর সাঈদা সিদ্দিকীকে বিয়ে করেন আশরাফ সিদ্দিকী। স্ত্রী সাঈদা ছিলেন আজিমপুর গালর্স হাই স্কুলের শিক্ষিকা। তাদের পাঁচ সন্তান সবাই উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত এবং নিজ নিজ পেশায় সুপ্রতিষ্ঠিত। তার ছেলে সাঈদ সিদ্দিকী বাংলাদেশে বিপুল জনপ্রিয় ব্র্যান্ড ‘ক্যাটস্ আই’-এর চেয়ারম্যান, আরেক ছেলে নাহিদ আলম সিদ্দিকী'স ইন্টারন্যাশনাল-এর অধ্যক্ষ, মেয়ে তাসনিম সিদ্দিকী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, অন্য আরেক ছেলে রিফাত আহম্মেদ সিদ্দিকী'স ইন্টারন্যাশনালের চেয়ারপারসন ও রিয়াদ সিদ্দিকী নামে আরেক ছেলে ক্যাটস আই-এর পরিচালক।

আরও পড়ুন::
কবি-লোক গবেষক ড. আশরাফ সিদ্দিকী আর নেই
কবি-লোক বিজ্ঞানী আশরাফ সিদ্দিকীর জানাজা সম্পন্ন

বাংলাদেশ সময়: ১৫৫১ ঘণ্টা, মার্চ ১৯, ২০২০ 
এইচজে

Nagad
ডোমারে নিখোঁজ ২ শিশুর মধ্যে একজনের মরদেহ উদ্ধার
সিনিয়র সচিব হলেন আকরাম-আল-হোসেন
তিন মন্ত্রণালয়, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগে নতুন সচিব
লুটের মামলায় লক্ষ্মীপুর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্পাদক গ্রেফতার
সোনাইমুড়ীতে চাঁদাবাজির প্রতিবাদ করায় আ'লীগ নেতাকে গুলি


ঘরের মাঠে ফিরেই জয় পেল চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল
গুলশানে ট্রাক চাপায় বাইসাইকেল চালকের মৃত্যু
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়
করোনায় মারা গেলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক ডিজি
করোনায় মারা গেলেন ফেনীর সাংবাদিকতার বাতিঘর করিম মজুমদার