সদ্য প্রয়াত জাতীয় অধ্যাপক, সাহিত্যিক

কবীর চৌধুরীর সাক্ষাৎকার

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

চলে গেলেন শিক্ষাবিদ, সাহিত্যিক এবং সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কবীর চৌধুরী। আমরা শোকাহত। সদ্য প্রয়াত এ সাহিত্যিকের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বাংলানিউজের পাঠকদের জন্য তার একটি সাক্ষাৎকার পুনর্মুদ্রণ করা হলো। কবীর চৌধুরীর এ সাক্ষাৎকারটি ২০০৭ সালে নিয়েছিলেন : গাজী সাইফুল ইসলাম

চলে গেলেন শিক্ষাবিদ, সাহিত্যিক এবং সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কবীর চৌধুরী। আমরা শোকাহত।

১৯২৩ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি ব্রাক্ষণবাড়িয়ায় জন্মগ্রহণ করেন এ শিক্ষাবিদ। অনুবাদ ও মৌলিক রচনা মিলিয়ে তাঁর প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ১৩০-এর ওপরে। সাহিত্য, শিক্ষা ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য বিভিন্ন সময় তিনি গুরুত্বপূর্ণ পুরস্কার ও সম্মাননা লাভ করেছেন। এগুলোর মধ্যে বাংলা একাডেমী পুরস্কার, একুশে ও স্বাধীনতা পদক সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য।

বিশ্ব সাহিত্যের অনেক শ্রেষ্ঠ কবিতা, গল্প, উপন্যাস ও নাটক অনুবাদের পাশাপাশি কিছু গুরুত্বপূর্ণ নাটকের বাংলা রূপান্তরও করেছেন তিনি। অন্যদিকে, বাংলাদেশের অনেক উঁচুমানের লেখা ইংরেজিতে অনুবাদ করে তিনি বাংলাদেশের সাহিত্যকে বিশ্ব সাহিত্যাঙ্গনে তুলে ধরেছেন।


সদ্য প্রয়াত এ সাহিত্যিকের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বাংলানিউজের পাঠকদের জন্য তার একটি সাক্ষাৎকার পুনর্মুদ্রণ করা হলো। কবীর চৌধুরীর এ সাক্ষাৎকারটি ২০০৭ সালে নিয়েছিলেন : গাজী সাইফুল ইসলাম


গাজী সাইফুল ইসলাম  : বাংলা ভাষায় অনুবাদের কাজটা কিভাবে শুরু হয়েছিল?

kabirকবীর চৌধুরী : বাংলা ভাষায় অনুবাদের কাজ অনেক আগেই শুরু হয়েছিল। পশ্চিম বাংলায় বেশ কিছু ভালো কাজ হয়েছে। বাংলাদেশেও ব্যক্তিগত এবং বাংলা একাডেমীর উদ্যোগে বেশ কিছু কাল ধরেই অনুবাদের কাজ হচ্ছে। বাংলা একাডেমীর বেশিরভাগ কাজ পাঠ্যপুস্তকভিত্তিক। ওখানে যারা অনুবাদ করেছেন তাঁরা প্রতিষ্ঠানের নির্দেশে করেছেন। অবশ্য কিছু ক্লাসিকসেরও অনুবাদ করিয়েছে তারা। কিন্তু বাংলা একাডেমীর বাইরে ব্যক্তিগত উদ্যোগেই অনুবাদের কাজ হয়েছে বেশি। এই যেমন আমি নিজের উদ্যোগে, প্রচেষ্টায়, বলা যায়, ভেতরকার তাগিদে দীর্ঘদিন ধরে অনুবাদ করে আসছি।

গাজী সাইফুল ইসলাম  অনুবাদের ক্ষেত্রে আপনার কাজ তো অনেক। বিশেষ কোনো  দৃষ্টি-ভঙ্গির আলোকে কি এসব কাজ করেছেন?

কবীর চৌধুরী : না, বিশেষ কোনো দৃষ্টিভঙ্গির আলোকে আমি অনুবাদ করিনি, শুধু চেষ্টা করেছি সেরা কাজগুলো বাছাই করতে। বিশেষ কোনো দেশে বা ভাষারও সাহিত্য আমি অনুবাদ করিনি, করেছি বহু  দেশের, বহু ভাষার। যেমন মার্কিন, রুশ, ফরাসি, চেক, জার্মান। তবে হ্যাঁ, ইংরেজি ভাষার বাইরের ভাষার বই আমাকে অনুবাদ করতে হয়েছে ইংরেজি থেকেই। অন্য কোনো ভাষা আমি জানি না বলে। এখানে বলা দরকার ইংরেজি থেকে অনুবাদের জন্য আমি সেই অনুবাদকেই প্রাধান্য দিয়েছি-যেগুলোর বড়ো মাপের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি রয়েছে। যেমন কাফকা, চেকভ এঁদের সাহিত্যকর্মের ইংরেজি অনুবাদ সত্যিকার অর্থেই শক্তিশালী। আমি সাহিত্যের সব শাখা থেকেই অনুবাদ করেছি।
মোট কথা, বিশ্বসাহিত্যের যে কাজগুলোকে আমি সেরা মনে করেছি, আমার দেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ মনে করেছি, অনুবাদ করেছি। অনুবাদের পরিমাণও নেহায়েত কম নয়। শুধু গল্প, কবিতা, উপন্যাস, নাটকেই আমার অনুবাদ আমি সীমাবদ্ধ রাখিনি, রূপকথা, লেজেন্ডেস, প্রাচীন ক্লাসিকসের কাহিনী, চিত্রকলার বিশ্লেষণ, এমনকি শিশুসাহিত্য পর্যন্ত অনুবাদ করেছি আমি। অন্যদিকে, অনুবাদ করেছি বাংলা থেকে ইংরেজিতে।

গাজী সাইফুল ইসলাম : অনুবাদকর্মকে বিশেষ করে বেছে নিলেন কেন? আপনারই অনুজ মুনীর চৌধুরী তো মৌলিক রচনায় তখনই তারকাখ্যাতি পেয়েছিলেন।
কবীর চৌধুরী : সৃজনশীল সাহিত্যকর্মের জন্য একটি বিশেষ মন থাকা দরকার, প্রতিভা থাকা দরকার। যা মুনীর চৌধুরীর ছিল। আমার ছিল না। আমার মধ্যে তেমন শক্তি বা প্রতিভা রয়েছে বলে নিশ্চিতভাবে আমি অনুভব করিনি। তবে কিছু রূপান্তরের কাজ আমি করেছি, যেগুলো অনুবাদও নয় আবার মৌলিকও নয়। মূল বক্তব্য ও নাটকের কাঠামোকে অবিকৃত রেখে চরিত্রগুলোর দেশজকরণ এবং কিছু স্বাধীনতা নিয়ে রূপান্তরের কাজগুলো করেছি। সংক্ষেপে বলতে হয়, সৃজনশীল কাজ করার মতো উপযুক্ত নিজেকে আমি মনে করিনি।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : অনুবাদ করতে গিয়ে প্রথম প্রথম কী-রকম সমস্যার মুখোমুখি হয়েছেন এবং কিভাবে তা কাটিয়ে ওঠেছেন?
কবীর চৌধুরী : অনুবাদ করতে গিয়ে প্রথম প্রথম বেশ কিছু সমস্যার মুখোমুখি আমাকে হতে হয়েছে। যেমন : শব্দ নির্বাচনের ক্ষেত্রে আমি সব সময় চেয়েছি মূল শব্দের দ্যোতনা এবং ব্যঞ্জনা প্রকাশ করে এমন শব্দটাকে ব্যবহার করতে। যাতে মূলের ভাবটা অনুবাদেও ঠিক থাকে। এ কাজটা কঠিন। কারণ, প্রতিটি ভাষার একটি নিজস্ব প্রবণতা থাকে। অন্য ভাষায় সেটাকে অনুবাদ করতে গেলে অনেক সময়ই হয় খুব নিরস হয়ে পড়ে না হলে অর্থের একটু বিকৃতি ঘটে। এটাকে এড়াবার জন্য আমাকে চিন্তা-ভাবনা করতে হয়েছে। আরেকটা কারণেও কিছু সমস্যা হয়েছে।  বাগধারার ক্ষেত্রে। এক্ষেত্রে তো আক্ষরিক অনুবাদ চলে না। প্রথম দিকে খুব চিন্তা-ভাবনা করে বাগধারাকে উপযুক্তভাবে বাংলায় নিয়ে আসতে হয়েছে। তবে ধীরে ধীরে কাজ করতে করতে একেবারে সঠিক না হলেও কাছাকাছি ধারণায় পৌঁছানো সম্ভব হয়েছে।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : এর জন্য কি আলাদা কোনো অভিধান সংগ্রহ করতে হয়েছে?
কবীর চৌধুরী : হ্যাঁ, অভিধান তো সংগ্রহ কিছু করতেই হয়েছে। যেমন ধরো, সমার্থবোধক শব্দ। আমাদের এখানে এটা যথা শব্দ, ইংরেজি থেসরাসের অনুরূপ। একটি শব্দের অনেকগুলো সমার্থবোধক শব্দ থাকে। সেখান থেকে বিশেষ পরিস্থিতিতে তার জায়গায় সেই অনুষঙ্গের সাথে সঙ্গতি রেখে উপযুক্ত শব্দটা বাছাই করতে আমাকে মাঝে মাঝে অভিধান দেখতে হয়েছে।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : অভিজ্ঞতা দ্বারা কী এই সমস্যা কাটিয়ে উঠা যায়?kabir
কবীর চৌধুরী : অবশ্যই কাটিয়ে উঠা যায়। তবে যে কাজটা করলে ভালো হয়, তা হলো, যে দেশের সাহিত্য অনুবাদ করা হচ্ছে সেই দেশের সংস্কৃতি সম্পর্কে সম্ভব হলে ওয়াকিবহাল হওয়া।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : ইংরেজি ছাড়া অন্য কোনো ভাষা থেকে অনুবাদ করেছেন কি?
কবীর চৌধুরী : হ্যাঁ, অন্য ভাষার সাহিত্য অনুবাদ করেছি। যেমন- কাফকা, চেকভ, কহ্লিল জিবরান। লেবাননী কবি কহলিল জিবরান আরবি ভাষায় লেখেন। তবে এসব অনুবাদ করেছি ইংরেজি থেকে। আমারটাকে অনুবাদের অনুবাদ বলতে হয়।  

গাজী সাইফুল ইসলাম  : এভাবে বারবার অনূদিত হলে মূল বক্তব্য, উপস্থাপন শৈলী কি মূল থেকে আংশিক হলেও বিচ্যুত হয়ে যায় না?
কবীর চৌধুরী : এ আশঙ্কা অবশ্যই থাকে তবে প্রথম অনুবাদটা যদি বিশ্বস্ত ও উঁচু মানের হয় তবে মূল থেকে বিচ্যুতির আশঙ্কা কমে যায়। উত্তম হচ্ছে-মূল ভাষা আয়ত্ত করে সেখান থেকে অনুবাদ করা।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : এ পর্যন্ত আপনার অনূদিত গ্রন্থের সংখ্যা কত?
কবীর চৌধুরী : বিশ্ববিখ্যাত গল্প, উপন্যাস, মহাকাব্য ১৬টি, বিভিন্ন ভাষার বিশ্ব নন্দিত নাটকের অনুবাদ ও রূপান্তর ২৩টি, কাব্যগ্রন্থের অনুবাদ ৫টি, গবেষণা গ্রন্থের অনুবাদ ৪টি। তাছাড়া শিশুসাহিত্যের অনুবাদও রয়েছে ১৩-১৪টি। এ বছরও বেশ কিছু অনুবাদের বই বেরিয়েছে।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : বাংলা থেকেও তো বেশ কিছু বই আপনি ইংরেজিতে অনুবাদ করেছেন। এর মধ্য থেকে উল্লেখযোগ্য ক’টি বইয়ের নাম বলবেন কি?
কবীর চৌধুরী : হ্যাঁ, বাংলা থেকেও বেশ কিছু বই আমি ইংরেজিতে অনুবাদ করেছি। এ জন্যই বোধ হয় অনুবাদক হিসেবে দেশের বাইরেও আমার একটি পরিচিতি আছে। কারণ, বাংলা থেকে যে বইগুলো আমি অনুবাদ করেছি সেগুলো বাংলা ভাষার উল্লেখযোগ্য বই।

যেমন, শওকত ওসমানের ‘ক্রীতদাসের হাসি’ আমি অনুবাদ করেছি ‘লাফটার অব দ্য স্ল্যাভস’ নামে। আব্দুল গণি হাজারীর বিখ্যাত কবিতা ‘কতিপয় আমলার স্ত্রী’ আমি অনুবাদ করেছি ‘ওয়াইভস অব ফিউ ব্যুরোক্রেটস’ নামে। আনোয়ার পাশা যিনি মুক্তিযুদ্ধের সময় নিহত হয়েছিলেন, তাঁর বিখ্যাত উপন্যাস ‘রাইফেল রুটি আওরাত’, সেলিনা হোসেনের ‘নীল ময়ূরের যৌবন’  আমি অনুবাদ করেছি।

এমনিভাবে অনুবাদ করেছি কাজী নজরুল ইসলাম, শামসুর রাহমান, আল মাহমুদ, আবদুল গণি হাজারী এবং আবুল হোসেনের কবিতা। আব্দুল্লাহ্ আল মামুনের নাটক ‘কোকিলারা’ এবং ‘মেরাজ ফকিরের মা’। সবই পৃথক পৃথক বই হয়ে  বেরিয়েছে। উল্লেখ্য যে, আবদুল গণি হাজারীর কবিতার বইয়ের নামকরণ করেছি তাঁর বিখ্যাত কবিতা ‘কতিপয় আমলার স্ত্রী’ ‘ওয়াইভস অব ফিউ ব্যুরোক্রেটস’ নামে। শামসুর রাহমানের কবিতা দু’বাংলা থেকেই বেরিয়েছে। বইয়ের নাম এক হলেও ভিন্ন ভিন্ন কবিতা নিয়ে।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : অনুবাদে মূল লেখকের মৌলিকত্ব কতটুকু বজায় থাকে?
কবীর চৌধুরী : এটা অনুবাদকের সামনে একটা বড় চ্যালেঞ্জ। মূল লেখকের দৃষ্টিভঙ্গি, অনুষঙ্গ কতটুকু অপরিবর্তিত থাকে অনুবাদে তা নির্ভর করে অনুবাদকের শক্তির ওপর। আমি আমার ক্ষেত্রে বলতে পারি, আমি মূল লেখকের শুধু বক্তব্য নয়, আঙ্গিকগত প্যাটার্নও অপরিবর্তিত রাখার চেষ্টা করেছি। যেমন ধরো, নজরুলের ঝিঙেফুল, ভোর হলো দোর খোল, আবুল হোসেনের দার্জিলিং মেল, প্রভৃতি কবিতা অনুবাদ করতে গিয়ে আমি কবিতাগুলোর মূল ছন্দ ঠিক রাখার চেষ্টা করেছি। তবে এটা ঠিক যে, সব কবিতার ক্ষেত্রে এটা করিনি, করার চেষ্টা করিনি বরং সুরেলা গদ্যে মূলের কথা তুলে ধরেছি।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : অনুবাদে অনুবাদকের কোনো সৃজনশীলতা থাকে কি?
কবীর চৌধুরী : অনুবাদেও এক ধরনের সৃজনশীলতা প্রয়োজন হয়। যদিও রবীন্দ্রনাথ একবার বলেছিলেন, কবিতার অনুবাদ হয় না। বুদ্ধদেব বসু বলেছিলেন, সোনার পাথর বাটি। অর্থাৎ কবিতা অনুবাদযোগ্য নয়। কিন্তু আমি বলব, অনুবাদকের মধ্যে যদি কিছুটা সৃজনশীলতা থাকে তাহলে চমৎকারভাবে তা সম্ভব। বিশ্বসাহিত্যে এর নজির অনেক। বুদ্ধদেব বসু নিজেই কালিদাস ও বোদলেয়ারের কবিতার চমৎকার অনুবাদ করেছেন।


গাজী সাইফুল ইসলাম  : আপনি তো গল্প, কবিতা, উপন্যাস, নাটক, চিত্রকলার বিষয় অনুবাদ করেছেন। কোন বিষয়ের অনুবাদটা আপনার কাছে অধিকতর সহজ বলে মনে হয়েছে?
কবীর চৌধুরী : এক্ষেত্রে গল্পের অনুবাদ আমার কাছে অধিকতর সহজ মনে হয়েছে। আর্নেস্ট হেমিংওয়ের ‘স্নোজ অব কিলি ম্যানজারো’,আন্তন চেকভের ‘দি কিস’ এসব গল্প বেশ বড়, প্রায় উপন্যাসের মতো। অনুবাদ করতে গিয়ে আমি বেশ স্বাচ্ছন্দ্য ও আনন্দবোধ করেছি। একটা কারণ সম্ভবত এই যে, গল্পগুলো সাহিত্যের বিচারে অনবদ্য।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : গুরুত্বপূর্ণ পদে চাকরি করেও আপনার কাজের পরিমাণ বিশাল। এটা কি করে সম্ভব হলো?
কবীর চৌধুরী : আমার জীবনের ব্যাপ্তি বলা যায় বেশ বড়। নিজে খেলাধুলা করেছি। খেলাধুলার পৃষ্ঠপোষকতা করেছি। এখনো করি। সামাজিকতা রক্ষা করেছি, চাকরি করেছি, বিভিন্ন সময়ে গণআন্দোলনে অংশ নিয়েছি। মানুষ ইচ্ছে করলে সময় বের করে নিতে পারে। আমার চেষ্টার জন্য, প্রবণতার জন্য আমি পেরেছি। উৎসাহ পেয়েছি আমার পরিবার থেকে, সহযোগিতা পেয়েছি বন্ধুদের কাছ থেকে। আমার সৌভাগ্য বলতে হবে, আমি প্রকাশকও পেয়েছি। আমাকে একরকম পরিশ্রমী লোক বলতে পার। এ বয়সেও সকাল সাড়ে ছ’টায় লেখার টেবিলে যাই।

সম্প্রতি, আমি একটা অনুবাদের কাজ শেষ করেছি। রুডিয়ার্ড কিপলিং-এর ‘জঙ্গল বুক’-এর বেশ বড় বড় সাতটি গল্প মাসদেড়েক ধরে আমি অনুবাদ করেছি। এক প্রকাশকও উৎসাহী হয়ে এগিয়ে এসেছেন। কাজেই অন্য নানা কাজ করলেও অনুবাদটাকে আমি ভালোবাসি। এ কাজটাকে কিছুটা চ্যালেঞ্জ হিসেবেও গ্রহণ করেছি আমি। আবার প্রয়োজনও বোধ করেছি। ইংরেজি পড়ে ভালো বোঝার মতো লোকের সংখ্যা আমাদের কম। আর ফ্রান্স, জার্মান, রুশ এসব ভাষার তো প্রশ্নই আসে না। মূল ইংরেজি পড়ার আগ্রহ এবং তা থেকে আনন্দ উপভোগ করার ক্ষমতা ক’জনের আছে?  অথচ একজন আধুনিক মানুষের বিশ্ব সাহিত্য সম্পর্কে, ক্ল্যাসিক রাইটারদের সম্পর্কে (অতীত-বর্তমানের) ব্যাপকভাবে জানা খুব বাঞ্ছনীয়। ভাব ও বুদ্ধির বিকাশের জন্য এর গুরুত্ব অত্যধিক। এ জন্যই আমি পরিশ্রম করার উৎসাহ পেয়েছি।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : অনুবাদ না মৌলিক রচনার গুরুত্ব আপনার কাছে বেশি?
কবীর চৌধুরী : আমি বলব দুর্বল মৌলিক রচনার চেয়ে শক্তিশালী অনুবাদ বেশি কাম্য। আমার ব্যাপারে তো আমি আগেই বলেছি, মৌলিক রচনায় আমি কিছু প্রবন্ধ ও চিত্রকলা বিষয়ক কয়েকটি গ্রন্থ ছাড়া কিছুই করতে পারিনি। তবে এগুলো হয়তো তুচ্ছ কাজ বলে বিবেচিত হবে না। অনেকে মনে করেন, বিষয়বস্তু ও মানের জন্য এগুলো বিশিষ্টতার দাবিদার। নাটক ও পাশ্চাত্যের চিত্রকলার ওপর বেশ ক’টা বই রয়েছে আমার। তবে এ প্রশ্নের উত্তর খুবই নিশ্চিত মনে দেওয়া কিছুটা মুশকিল বৈকি। এজন্য  যে, আমার কিছু কিছু অনুবাদ আছে যেগুলো আমার কাছে খুবই প্রিয়। মৌলিক রচনার চাইতে এগুলোর গুরুত্ব আমার কাছে কম নয়।

যেমন-কাফকার নির্বাচিত গল্প, রবার্ট পেইন ওয়ারেনের অল দি কিংস ম্যান, জ্যাক লন্ডনের সী  উলফ, স্ট্যাইন বেকের দি রেথ অব দি গ্র্যাফস-এগুলোর অনুবাদ বেশ উঁচুমানের হয়েছে বলে আমি মনে করি। আর কিছু মৌলিক প্রবন্ধ যেমন মানব কল্যাণ, নির্বাচিত প্রবন্ধ, বিবিধ রচনা, নাটক ও চিত্রকলার ওপর কয়েকটি গ্রন্থ সেগুলোও আমার কাছে কম প্রিয় নয়।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : আপনার এখন যে বয়স কখনো কি মনে হয় না যে, আপনি খুব ক্লান্ত?
কবীর চৌধুরী : না, এমন বোধে এখন পর্যন্ত আমি আক্রান্ত হইনি। মাস দু’য়েক আগে আমার বুকে একটু অসুবিধা হয়েছিল। একটা পেসমেকার লাগানো হয় তখন আমার বুকে। তবে একটা নিয়ম আমি মেনে চলি। আধ ঘণ্টা-চল্লিশ মিনিটের বেশি আমি এক সাথে কাজ করি না। একটু হাঁটাচলা করি আবার লিখতে বসি। আর এখন তো প্রচুর খেলা হচ্ছে। টিভিতে ক্রিকেট খেলা দেখি। কখনো গান শুনি। পরিবারের সদস্যদের সাথে গল্প করি, সাহিত্য নিয়ে আলোচনা করি। এতে করে নিজেকে আমার খুব বেশি ক্লান্ত মনে হয় না।

গাজী সাইফুল ইসলাম : আমাদের মতো দেশের মানুষদের মানসিকতার বিকাশে অনুবাদ সাহিত্যের গুরুত্ব কতখানি?
কবীর চৌধুরী : আমাদের দেশের মানুষের মানসিকতা বিকাশে অনুবাদ সাহিত্য একটা বিরাট ভূমিকা রাখতে পারে। আমরা যখন তলস্তয়ের লেখা পড়ি, কাহ্লিল জিবরানের কবিতা পড়ি, ডস্টয়ভস্কির উপন্যাস পড়ি তখন আমাদের  ভেতরে একটি উন্নত আলোড়ন সৃষ্টি হয়। এগুলো শুধু চমৎকার সাহিত্যই নয় উন্নত চিন্তার যোগানদাতাও। কিন্তু অনুবাদ ছাড়া এগুলো কি আমরা পড়তে পারব?

গাজী সাইফুল ইসলাম : ভারত-শ্রীলংকায় দেখা যায় ইংরেজিতে লেখালেখি করে নিজেদের তারা  আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে গেছে। যেমন ভি.এস.নাইপল ২০০২ সালের  নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন। সালমান রুশদির নাম প্রতি বছরই নোবেল পুরস্কারের শর্ট লিস্টে থাকছে। অরুন্ধতি রায়, ঝুম্পা লাহিড়ী, বিক্রম শেঠ, আর. শিভানন্দন, রমেশ গুনেসেগার, সিয়াম সালভাদুরী এদের নাম এখন বিশ্বের সাহিত্যামোদীদের মুখে মুখে। বাংলাদেশের কবি লেখকদের ক্ষেত্রে এমন হচ্ছে না কেন?  
কবীর চৌধুরী : ভারতীয়দের ক্ষেত্রে ইংরেজিতে লেখালেখির অগ্রসরতার একটা কারণ হতে পারে-তাদের এক অঞ্চলের সাহিত্য অন্য অঞ্চলে বোঝানোর জন্য অনুবাদের প্রয়োজন হয়। বিশেষ করে, ইংরেজি অনুবাদ। এজন্য তাদের ওখানে ইংরেজি অনুবাদের কাজটা বেশি হয়। যেমন তামিল, পাঞ্জাবি, হিন্দি ভাষার সাহিত্য বোঝার জন্য পশ্চিম বঙ্গবাসীদের অনুবাদ ছাড়া উপায় নেই। আবার ইংরেজিতে লেখালেখির চর্চা ভারতে শুরু হয়েছে বহু আগে থেকেই। তাদের লোকেরা বিদেশে, বিশেষ করে ইংরেজিতে পড়াশুনাও করছে বেশি। নিজেরাও যথেষ্ট উদ্যোগী, পরিশ্রমী। আরেকটা কারণ, ভারতে প্রকাশকও পাওয়া যায়। আমাদের এখানে ইংরেজি লেখার প্রকাশক পাওয়া খুব কঠিন। বিশ্ববাজারের যে সুবিধা সেটা গ্রহণ করার মতো প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ওখানে অনেক আছে। আমাদের এখানে গড়ে ওঠেনি। তবে কেউ  কেউ নিজ উদ্যোগে কিছু কিছু ইংরেজিতে লিখছেন। বিশেষ করে কবিতা যেমন, রাজিয়া খান, কায়সার হক। সোজা কথা এখন পর্যন্ত বাংলাতেই আমাদের লেখালেখি সীমাবদ্ধ। আমার মনে হয় ভবিষ্যতে পরিস্থিতি অনুকূল হলে ইংরেজি ভাষার লেখকও সৃষ্টি হবে।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : নিকট ভবিষ্যতে উঁচুমানের এমন লেখক বেরিয়ে আসার সম্ভাবনা কতটুকু?
কবীর চৌধুরী : নিকট ভবিষ্যতে ইংরেজিতে উঁচুমানের লেখালেখি করার মতো লেখক বেরিয়ে আসার আশু-সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না। তবে চেষ্টা করলে ভালো অনুবাদক তৈরি হতে পারে। বাংলা থেকে ইংরেজি এবং ইংরেজি থেকে বাংলা।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : দেখা যাচ্ছে, আমাদের এখানে যারা অনুবাদ করেন তারা একান্তই নিজ উদ্যোগে এবং খণ্ডকালীন যতটুকু পারছেন করছেন। সরকারি উদ্যোগে পূর্ণ সময়ের জন্য বাংলা একাডেমীর মাধ্যমে অনুবাদক নিয়োগ করে কি আমরা পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সাহিত্য, দর্শন, বিজ্ঞান বিষয়ক রচনা অনুবাদ করিয়ে নিতে পারতাম না? যেমন করছে জাপানিরা?
কবীর চৌধুরী : এটা উচিত, সরকারি উদ্যোগেই বাংলা একাডেমী করতে পারে। অতীতে বাংলা একাডেমী একটা পরিকল্পিত উদ্যোগ গ্রহণ করেছিল। আমার অগ্রজ বন্ধু আবু জাফর শামসুদ্দিন বাংলা একাডেমীর অনুবাদ বিভাগে কাজ করতেন। তখন বেশ কিছু ক্ল্যাসিকসের অনুবাদ হয়েছিল। আমার মনে হয় বাংলা একাডেমী সে উদ্যোগটা আবার নিতে পারে। কিংবা সরকারও পারে ‘ব্যুরো অব ট্রান্সলেশন’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে। হ্যাঁ, জাপানের কথা খুবই প্রাসঙ্গিক। তারা অনুবাদকে মৌলিক রচনার সমান গুরুত্ব দেয় । কখনো কখনো অধিক গুরুত্ব দিয়ে থাকে। অনেক সময় একজন অনুবাদক মৌলিক লেখকের চেয়েও বেশি সম্মানী পেয়ে থাকে।

গাজী সাইফুল ইসলাম : বাংলাদেশের যেসব উঁচুমানের গল্প-উপন্যাস আছে সেগুলোর অনুবাদ হওয়া জরুরি। কবিতা প্রসঙ্গে বলা যায়, বাংলাদেশের কবিতা   আন্তর্জাতিক মানের। অনুবাদ ছাড়া বাইরের লোকেরা এটা কিভাবে মূল্যায়ন করবে?
কবীর চৌধুরী : আমরা দেখেছি পৃথিবীর অনেক দেশের সাহিত্য যেমন আফ্রিকা, ল্যাটিন আমেরিকা শুধুমাত্র সু-অনূদিত হওয়ার কারণে বিশ্বখ্যাতি লাভ করেছে। বাংলাদেশেও রয়েছে অনেক ছোটগল্প, কবিতা, উপন্যাস এমনকি নাটকও যেগুলো আন্তর্জাতিক মানের। কিন্তু অনুবাদ না হওয়ায় সেগুলো বিশ্বের দরবারে পৌঁছাতে পারছে না। আমাদের বিশ্বমানের লেখাগুলো অবশ্যই ইংরেজি, ফরাসি, জাপানি ইত্যাদি ভাষায় অনূদিত হওয়া আবশ্যক। আমরা জানি, ফরাসি ও জাপানি ভাষায় কিছু কবিতা অনূদিত হয়েছে। তবে প্রয়োজনের তুলনায় তা সামান্য। এর জন্য সরকারি উদ্যোগ দরকার।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : দেখা যায়, আমাদের এখানে কিছু শক্তিমান লেখক, কবি, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক বিভিন্ন সময় সরকারের লেজুড়বৃত্তি করছেন এতে কি আমাদের জাতিসত্তার বিকাশে ক্ষতিকর প্রভাব পড়ছে না?
কবীর চৌধুরী : হ্যাঁ, এটা খুবই দুঃখজনক। আমাদের কিছু কিছু শক্তিশালী সাহিত্যিক বিভিন্ন সময় ক্ষমতাসীন সরকারের লেজুড়বৃত্তি করেছেন। এটা সামগ্রিকভাবে সাহিত্যানুরাগীদের বেদনার্ত ও ক্ষুব্ধ করে। তবে তাদের সংখ্যা বেশি নয়। কিছু কিছু লোক যারা লেজুড় বৃত্তি করছে, প্রতিভা এবং সৃজনশীলতার দিক থেকে তাদের অবস্থান অত্যন্ত নিচুতে। তাদের জন্য কোনো ক্ষতি হয় না। তবে ক্ষতি হয় শক্তিশালী কেউ যদি এ কাজটা করেন। তবে এটাও আমাদের এখানে কেউ কেউ করছেন, নিতান্তই কিছু সুবিধা পাবার আশায়। সাহিত্যের কাছে, জাতির কাছে তাদের দায়বদ্ধতার কথা তারা মনে রাখছেন না। এটা তাদের ব্যর্থতা।

গাজী সাইফুল ইসলাম  : আনন্দ পাবলিশার্স বাংলাদেশের প্রকাশনা জগতে প্রবেশ করতে চেয়েছিল। এ ব্যাপারে তখন আপনার কোনো বক্তব্য কোথাও দেখা যায়নি। মন্তব্য করুন।

কবীর চৌধুরী : হ্যাঁ, অহেতুক বিতর্ক এড়াতে আমি তখন কোনো বক্তব্য দিইনি। আসলে এ ব্যাপারে এত জেহাদি মনোভাব না দেখালেও চলত। সর্বত্র আমরা মুক্তবাজারের কথা বলছি, বাইরের বিনিয়োগের জন্য হাপিত্যেশ করছি তাহলে প্রকাশনা জগতে এটা হচ্ছে না কেন? শেষকথা, আনন্দ পাবলিশার্সকে না ঠেকিয়ে বরং উচিত ছিল আমাদের প্রকাশনার মান উন্নত করা।

বাংলাদেশ সময় ১২৫৩, ডিসেম্বর ১৩, ২০১১

রূপগঞ্জে চার প্রতিষ্ঠানে অবৈধ গাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন
অবৈধ বালু উত্তোলন: ড্রেজার মেশিন ধ্বংস-জরিমানা
পুলিশের ভুলে একদিন জেল খাটলেন নিরাপরাধ মিজান
মধুপুরে থাই রাষ্ট্রদূতের কৃষি খামার পরিদর্শন
কুষ্টিয়ায় যুবককে কুপিয়ে-পায়ের রগ কেটে হত্যা


ভৈরবে মাদকদ্রব্য অফিসে আগুনের ঘটনায় মামলা 
৯৯৯ ফোন করে বখাটের হাত থেকে রক্ষা পেলো স্কুলছাত্রী
নায়করাজের ৭৯তম জন্মদিন বৃহস্পতিবার
চার কারণে ভোটের নিরাপত্তায় চিন্তার ভাঁজ
রাজাপুরে উপজেলা বিএনপির সভাপতিসহ আটক ২