শিল্পী অশোক কর্মকারের একক স্থাপনাকর্ম প্রদর্শনী

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

স্বাধীনতার চল্লিশ বছর পূর্তি উপলক্ষে ধানমন্ডি বেঙ্গল গ্যালারি অব্ ফাইন আর্টস্ এর আয়োজনে ১২ ডিসেম্বর শুরু হচ্ছে শিল্পী অশোক কর্মকারের ‘উৎসারিত আলোয়’ শীর্ষক একক স্থাপনাকর্ম প্রদর্শনী।

স্বাধীনতার চল্লিশ বছর পূর্তি উপলক্ষে ধানমন্ডি বেঙ্গল গ্যালারি অব্ ফাইন আর্টস্ এর আয়োজনে ১২ ডিসেম্বর শুরু হচ্ছে শিল্পী অশোক কর্মকারের ‘উৎসারিত আলোয়’ শীর্ষক একক স্থাপনাকর্ম প্রদর্শনী।

আগামীকাল বিকেল সাড়ে ৫ টায় বেঙ্গল শিল্পালয়ে ছয় দিনব্যাপী এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন করবেন মুক্তিযোদ্ধা শিল্পী শাহাবুদ্দিন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মফিদুল হক।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী ও মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন উপপ্রধান সেনাপতি এভিএম (অব.) এ. কে. খন্দকার, বীর উত্তম।

আজ ১১ ডিসেম্বর দুপুরে বেঙ্গল শিল্পালয়ে শিল্পী অশোক কর্মকারের প্রদর্শনীর সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সাংবাদিক সম্মেলনে শিল্পী অশোক কর্মকার এবং বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের তাজমী নূর বক্তব্য রাখেন। লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপক সারোয়ার জাহান।

শিল্পী অশোক কর্মকার ১৯৬৩ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ থেকে ১৯৮৮ সালে এম এফ এ ডিগ্রী লাভ করেন। এ পর্যন্ত তিনি বহু একক ও দলবদ্ধ প্রদর্শনী এবং কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেছেন। তিনি সেরা বই এর ডিজাইনের জন্য বাংলাদেশ শিশু একাডেমী প্রদত্ত ‘অগ্রনী ব্যাংক লিটারেচার অ্যাওয়ার্ড’ এবং ২০০১ সালে ‘সাজু আর্ট গ্যালারি অ্যাওয়ার্ডসহ আরো অনেক পুরস্কার লাভ করেছেন। তিনি বর্তামানে একটি জাতীয় দৈনিকের চিফ আর্টিস্ট।

অশোক কর্মকার শিল্পানুরাগী ও শিল্প-সমালোচকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন ১৯৯৬ সালে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক তাঁর বড় পরিধির স্থাপনা-শিল্প ‘কালরাত্রি’ নিবেদনের মাধ্যমে। শিল্পকলা একাডেমীর পুরনো চক্রাকার গ্যালারির দ্বিতল কাঠামোর সঙ্গে মিলিয়ে একাত্তরের বর্বরতার যে স্মৃতিরূপ তিনি মেলে ধরেছিলেন তা সমকালের দর্শকদের পৌঁছে দিয়েছিল অতীতকালে। এরপর দেশে ও দেশের বাইরে আরো কতক উল্লেখযোগ্য স্থাপনাকর্ম নিবেদন করেছেন অশোক কর্মকার এবং প্রকাশ করেছিলেন এই শিল্পধারার প্রতি তাঁর বিশেষ পক্ষপাতিত্ব।

ছাত্রজীবন থেকে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড ও আন্দোলনের সঙ্গে তাঁর নিবিড় যোগ, মঞ্চসজ্জা ও নাটকের সেট নির্মাণে তিনি সবসময়ে দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন। অশোক কর্মকারের স্থাপনাশিল্পে তাই আলো, শব্দ ও সঙ্গীতের বিশেষ যোগ লক্ষ্য করা যায়, যা তাঁর শিল্পকে এক ধরনের নাট্যরসেরও যোগান দেয়।

অশোক কর্মকারের প্রদর্শনী চলবে প্রতিদিন দুপুর ১২ টা থেকে রাত  ৮ টা পর্যন্ত। শেষ হবে ১৭ ডিসেম্বর।

বাংলাদেশ সময় ১৭৩০, ডিসেম্বর ১১, ২০১১

‘ই-পাসপোর্ট ডিজিটাল জগতে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করবে’
সিএএ স্থগিত করতে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের অস্বীকৃতি
ঝালকাঠিতে ২ ‘মাদক ব্যবসায়ী’ আটক
কাউন্সিলর প্রার্থী সারোয়ারের প্রার্থিতা বাতিল চান তাবিথ
৬ মাসের মধ্যে শেষ হবে বিজিএমইএ ভবন ভাঙার কাজ


ধানের দামের অজুহাতে ফের বাড়ালো চালের দাম
সিআরবি জোড়াখুন মামলার প্রধান আসামি গ্রেফতার
দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে যা করবেন 
ভিকি কৌশল ও ক্যাটরিনা কাইফের লুকোচুরি
কর বাড়ানো নয়, সমন্বয় করা হবে: তাপস