কাজী ইমদাদুল হকের লেখনিতে কালের পরিচয় পাওয়া যায়: ড. আনিসুজ্জামান

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

কাজী ইমদাদুল হকের লেখনির মধ্যদিয়ে কালের পরিচয় পাওয়া যায়। তাঁর লেখনিকে তরুণ প্রজন্মের মাঝে বাঁচিয়ে রাখা আমাদের কর্তব্য বলে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এমিরিটাস অধ্যাপক ও কলামিস্ট ড.আনিসুজ্জামান।

ঢাকা: কাজী ইমদাদুল হকের লেখনির মধ্যদিয়ে কালের পরিচয় পাওয়া যায়। তাঁর লেখনিকে তরুণ প্রজন্মের মাঝে বাঁচিয়ে রাখা আমাদের কর্তব্য বলে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এমিরিটাস অধ্যাপক ও কলামিস্ট ড.আনিসুজ্জামান।

শনিবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রমেশচন্দ্র মজুমদার মিলনায়তনে কাজী ইমদাদুল হকের ১২৯তম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায়  তিনি এসব কথা বলেন।

ড.আনিসুজ্জামান বলেন, ইমদাদুল হকের শিক্ষা দর্শন ও সমাজ চেতনা বর্তমান সময়েও প্রাসঙ্গিক। তাই তাঁর লেখনির সাথে তরুণ প্রজন্মকে পরিচয় করিয়ে দিতে না পারলে ইতিহাস আমাদের ক্ষমা করবে না।

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ কাজী ইমদাদুল হকের আবদুল্লাহ উপন্যাস পড়ে বলেছিলেন, “এর মধ্যদিয়ে আমি মুসলিম সমাজ সম্পর্কে জেনেছি।”

ইমদাদুল হকের রচনাকে মুসলিম সমাজের কথা উঠে আসলেও তিনি অসাম্প্রদায়িক চেনতার মানুষ ছিলেন বলে আনিসুজ্জামান মন্তব্য করেন।

অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক আহমেদ কবির, দর্শনের অধ্যাপক হোসনে আরা আলম, বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক কাজী নুরুল ইসলাম, কাজী ইমদাদুল হকের পৌত্রি প্রফেসর কাজী নুসরাত সুলতানা প্রমুখ।

অধ্যাপক আহমেদ কবির বলেন, কাজী ইমদাদুল হক বেঁচে থাকবেন তাঁর বহুল পঠিত আবদুল্লাহ উপন্যাসের জন্য। আমাদের দেশের শিক্ষার যে প্রসার চোখে পরে সেগুলি কিন্তু দেশিয় উপাদানের নয়, এগুলো পাশ্চাত্যের।


ইমদাদুল হকের শিক্ষা দর্শন বর্তমান সময়ের জন্য খুবই প্রাসঙ্গিক বলে তিনি উল্লেখ করেন।


অধ্যাপক কাজী নুরুল ইসলাম বলেন, অসাম্প্রদায়িক চেতনার মানুষ কাজী ইমদাদুল হকের ছিল অসাধারণ কাব্য প্রতিভা। তিনি অন্য কিছু না করলে শুধু কবিতার মধ্য দিয়েই বেঁচে থাকতে পরতেন।

তিনি বলেন, সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম নেয়া ইমদাদুল হকের সাধারণ মানুষেরসাথে মিশবার তেমন সুযোগ হয়নি। কিন্তু তিনি সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করেছেন। অল্প টাকায় নৌকা তৈরি করার পদ্ধতি তিনি বের করেছিলেন সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করেই।

তিনি আরও বলেন, নতুন প্রজন্মের কাছে ইমদাদুল হকের আদর্শকে ছড়িয়ে দিতে হব। আমরা ধর্ম পালন করব কিন্তু ধর্মান্ধ হব না।

কাজী নুসরাত সুলতানা বলেন, বর্তমান সমাজ, দেশ ইমদাদুল হকের চিন্তা-চেতনা থেকে বেশি দূর অগ্রসর হতে পারি নি। ইমদাদুল হকের মৃত্যুর পর সময় হয়তো ১০০ বছর চলে গেছে কিন্তু আমাদের সমাজ এখনো তাঁর মতো প্রগতিশীল হতে পারেনি।

কাজী ইমদাদুল হকের স্মৃতিকে ধরে রাখতে এবং তার সমসাময়িক লেখক চিন্তাবিদদের স্মৃতিকে ধরে রাখতে ইমদাদুল হক ফাউন্ডেশন গড়ে তোলার ঘোষণা দেন তিনি।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সাংবাদিক সৌমিত্র দেব।


বাংলাদেশ সময়: ০৫১৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১০, ২০১১

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত যুবক নিহত
বেলজিয়ামে সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি কিশোর নিহত
মাদক মামলায় এক ব্যক্তির ১০ বছর কারাদণ্ড
সমালোচনা না করে দেশের সমস্যা সমাধানের আহ্বান তাজুলের
জনগণের জন্য কাজ করতে পারলে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করি


চীনে ভ্রমণ স্থগিতের কথা ভাবছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়
ধানের শীষে ভোট চাইলেন তাবিথের মা
ইশরাকের গণসংযোগে হামলায় ফখরুলের প্রতিবাদ
ভাঙা হৃদয় জোড়া লাগালেন ব্র্যাড পিট ও জেনিফার অ্যানিস্টন
অটোমেশনে দুর্নীতি কমবে: অর্থমন্ত্রী