বিশ্বসাহিত্য আর সৃজনশীল বইয়ের সংহতি প্রকাশন

ফিচার রিপোর্টার | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

সংহতি প্রকাশন/ছবি: বাদল

walton

গ্রন্থমেলা প্রাঙ্গণ থেকে: মানুষের আলোকিত জীবনের একটি অন্যতম প্রধান উপকরণ হচ্ছে বই। জগতে শিক্ষার আলো, নীতি-আদর্শ, ইতিহাস-ঐতিহ্য, কৃষ্টি-সভ্যতা, সাহিত্য-সংস্কৃতি, সবই জ্ঞানের প্রতীক বইয়ের মধ্যে নিহীত। এমনকি নিতান্তই একঘেঁয়ে দুঃখ-কষ্টে ভরা মানুষ বই পড়তে বসলে তা ভুলে যায়।

php glass

অজানাকে জানা ও অচেনাকে চেনার যে চিরন্তন আগ্রহ, তা মেটানো যায় বই পড়ে। আর সেই জানার আগ্রহ বা আনন্দের অংশ হিসেবে শুধু নিজ দেশ নয়, পাঠ ছড়িয়ে পড়ে পুরো বিশ্বের বিভিন্ন খ্যাতনামা লেখকদের মধ্যে। আর বিশ্বসাহিত্যের সেসব বাছাই বইয়ের মধ্য থেকে পাঠকদের সৃজনশীল ও ভিন্নধর্মী স্বাদ দিচ্ছে সংহতি প্রকাশন। বইমেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে প্রবেশ করতেই বাম হাতে তথ্যকেন্দ্রের সঙ্গে চোখে পড়বে প্রকাশনীর স্টলটি।

বিশ্বসাহিত্যের এসব বইয়ের মধ্যে রয়েছে জাভেদ হুসেন অনূদিত কার্ল মার্কসের ‘ইহুদি প্রশ্নে’, আলিফ হোসেন অনূদিত সিগমুন্ড ফ্রয়েডের ‘সভ্যতার অসন্তোষ’, আনু মুহাম্মদ অনূদিত ওরিয়ানা ফাল্লাচির ‘হাত বাড়িয়ে দাও’, জি এইচ হাবীব অনূদিত ইয়ন্তাইন গোর্ডারের ‘চিরায়ত বিশ্ব সাহিত্য গ্রন্থমালা-১, সোফির জগৎ’, ‘চিরায়ত বিশ্ব সাহিত্য গ্রন্থমালা-২, ফাউন্ডেশন’, রূপার্ট ক্রিস্টিয়ানসেনের ‘জীবনী গ্রন্থমালা-১, উইলিয়াম শেক্সপিয়র কে ছিলেন?’, দিলওয়ার হাসান অনূদিত রোবের্তো বোলানিওর ‘পৃথিবীতে শেষ সন্ধ্যা ও অন্যান্য গল্প’।

এছাড়াও নিয়ামুল হক অনূদিত অরুন্ধতী রায়ের ‘অরণ্যে যুদ্ধ’, আলম খোরশেদের অনুবাদ ভার্জিনিয়া উলফের ‘নিজের একটি কামরা’, শওকত হোসেন অনূদিত হ্যারল্ড ল্যাম্বের ‘ক্রুসেডস দ্য ফ্লেইম অব ইসলাম’, আলিফ হোসেন অনূদিত সিগমুন্ড ফ্রয়েডের ‘একটি দৃষ্টিভ্রমের ভবিষ্যৎ’, জাভেদ হুসেনের অনুবাদ হাওয়ার্ড জিনের ‘সোহোতে মার্কস’, টেরি ইগলটনের ‘মার্কস ও মুক্তি’, বিনয় বর্মনের অনুবাদে মারিয়ানা আসুয়েলার ‘নিচের মহল’, আফসানা বেগমের অনুবাদে ফিদেল কাস্ট্রোর ‘ইতিহাস আমাকে মুক্তি দেবে’, জাভেদ হুসেনের ভাষান্তরে আনস্ট ফিশার-এর ‘মার্কস আসলে যা বলেছেন’ ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

শুধু বিশ্বসাহিত্য নয়, দেশের সিরিয়াস ঘরানার বই প্রকাশেও প্রকাশনীটি এগিয়ে আছে বেশ। এগুলোর মধ্যে আনু মুহাম্মদের ‘কোথায় যাচ্ছে বাংলাদেশ’, ‘মানুষের সমাজ’, সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর ‘নজরুলকে চিনতে চাওয়া’, ‘বাংলা সাহিত্য ও বাঙালী মধ্যবিত্ত’, কাজী নূর-উজ্জামানের ‘নির্বাচিত রচনা’, নূর মোহাম্মদের ‘জলবায়ু পরিবর্তন ও অন্যান্য প্রসঙ্গ’, বিরঞ্জন রায়ের ‘সামাজিক চেতনার মনস্তত্ব’, রাশেদ আল মাহমুদ তিতুমীরের ‘রাজনৈতিক বন্দ্যোবস্ত ও অর্থনৈতিক ফলাফল, রণজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের ‘কবিগান ও কবিয়াল’ ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

নিজেদের বইগুলো সম্পর্কে এ প্রকাশনীর বিক্রয় ব্যবস্থাপক রেজাউল করিম বলেন, আমাদের পাঠকরা সব সময়ই একটু সৃজনশীল বইগুলো বেশি পছন্দ করেন। আর শুধু বিশ্বসাহিত্য নয়, ইতিহাস, গবেষণা, দর্শন এবং বিখ্যাত অনুবাদগুলো আমরা সব সময় চেষ্টা আমাদের পাঠকের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য।

বাংলাদেশ সময়: ১৮১০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৯
এইচএমএস/এএ

আবারও মোবাইল ব্যাংকিংয়ে লেনদেন সীমা বাড়লো
ইসলামী ব্যাংক-ট্রান্সফাস্টের ‘রেমিট্যান্স ক্যাম্পেইন’ 
আধুনিক পরিসংখ্যান ইনস্টিটিউট করবে সরকার
চার মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পুনর্বিন্যাস
বিআরটিসি’র ঈদ স্পেশাল সার্ভিসে ১১শ’ বাস: কাদের


কৃষক বাঁচাতে চাল রফতানি করা হবে: অর্থমন্ত্রী
সক্ষমতা বাড়ায় মানুষের মধ্যে বিদেশ যাওয়ার প্রবণতা বাড়ছে
ঢামেকে গেট বন্ধ করে স্বজনদের সঙ্গে আনসারদের হট্টগোল
বজ্রপাতে রামু ও উখিয়ায় শিশুসহ তিনজনের মৃত্যু
দৈনিক ২৫০০ মানুষ ইফতার করেন কেরালা মুসলিম সেন্টারে