৮১ বছরে পা রাখলেন কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

হাসান আজিজুল হক। ছবি-সংগৃহীত

walton

রাজশাহী: প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হকের জন্মদিন শনিবার (২ ফেব্রুয়ারি)। ৮০ বছর পেরিয়ে ৮১ বছরে পা রাখলেন বাংলা ছোটগল্পের এই বরপুত্র। 

php glass

১৯৩৯ সালের ২ ফেব্রুয়ারি অবিভক্ত বাংলার বর্ধমানের যবগ্রামে জন্ম নেন তিনি। হাসান আজিজুল হক উপন্যাস, ছোটগল্প, নাটক ছাড়াও বিভিন্ন বিষয়ে বিশ্লেষণধর্মী রচনা লিখে দেশের সাহিত্যাঙ্গনে নিজের অবস্থান মজবুত করেছেন। 

জন্মবার্ষিকীতে তিনি বাংলানিউজকে বলেন, আমার লেখায় পাঠক আনন্দ পেলেই আমি সার্থক। পাঠক আনন্দ পেয়েছে ভেবেই আমার ভালো লাগে। আমার যা জানা ছিল তা পাঠককে জানানোর চেষ্টা করেছি। পাঠক তা কতটুকু গ্রহণ করলো সেটাই ভাবার বিষয়।

তিনি আরও বলেন, মানুষ কেউ আছে অনেকদিন বাঁচে আবার কেউ খুব কম বাঁচে। আমি যে দীর্ঘ জীবন পার করলাম, এ দীর্ঘ সময় আমি কাজের ব্যস্ততার মাঝে কাটিয়েছি। আর এ কাজের মধ্য দিয়েই আমি এ পর্যন্ত এসেছি। প্রতিটি দিনই আমার কাছে একই রকম।

প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের পড়াশোনা নিজের গ্রামেই করেছেন হাসান আজিজুল হক। 
১৯৫৪ সালে যবগ্রাম মহারানী কাশীশ্বরী উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক ও ১৯৫৬ সালে খুলনার দৌলতপুরের ব্রজলাল কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন তিনি।

যৌবনের শুরুতেই প্রগতিশীল রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েছিলেন হাসান আজিজুল হক। রাজনীতি করার কারণে পাকিস্তান সরকারের রোষানলে পড়তে হয় তাকে। পরে তিনি ভর্তি হন রাজশাহী কলেজে।

১৯৫৮ সালে এই কলেজ থেকে দর্শনশাস্ত্রে সম্মানসহ স্নাতক ডিগ্রি লাভ করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। ১৯৬০ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৭৩ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে দর্শন বিভাগে অধ্যাপনা করেন।

গল্পগ্রন্থ সমুদ্রের স্বপ্ন, শীতের অরণ্য কিংবা উপন্যাস আগুনপাখি তাকে নিয়ে গেছে অনন্য এক উচ্চতায়। হাসান আজিজুল হকের উল্লেখযোগ্য রচনাগুলোর মধ্যে রয়েছে আত্মজা ও একটি করবী গাছ, জীবন ঘষে আগুন, পাতালে হাসপাতালে, নামহীন গোত্রহীন, চলচিত্রের খুঁটিনাটি, মা মেয়ের সংসার, বিধবাদের কথা ও অন্যান্য গল্প, সক্রেটিস, বৃত্তায়ন, শিউলি, আগুনপাখি, ফিরে যাই ফিরে আসি, উঁকি দিয়ে দিগন্ত প্রভৃতি।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক বইয়ের মধ্যে রয়েছে একাত্তর: করতলে ছিন্নমাথা, লাল ঘোড়া আমি, ফুটবল থেকে সাবধান ইত্যাদি। সম্পাদিত বইয়ের মধ্যে রয়েছে গোবিন্দচন্দ্র দেব রচনাবলী, একুশে ফেব্রুয়ারি গল্প সংকলন, জন্ম যদি তব বঙ্গে ইত্যাদি।

কথাসাহিত্যে অনবদ্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি পেয়েছেন অসংখ্য পুরস্কার, পদক ও সম্মাননা। এর মধ্যে রয়েছে আদমজী সাহিত্য পুরস্কার (১৯৬৭), বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার (১৯৭০), অলক্ত সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮১), আলাওল সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮৩), অগ্রণী ব্যাংক সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮৪), ফিলিপস সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮৮), কাজী মাহবুব উল্লাহ ও বেগম জেবুন্নিসা পুরস্কার। 

এছাড়া ১৯৯৯ সালে 'একুশে পদকে' ভূষিত হন হাসান আজিজুল হক। 'আগুনপাখি' উপন্যাসের জন্য পেয়েছেন আনন্দ পুরস্কার। 

২০১২ সালে তিনি ভারতের আসাম বিশ্ববিদ্যালয় ও ২০১৮ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডিলিট ডিগ্রি পান।

হাসান আজিজুল হকের জীবনের এ মাহেন্দ্রক্ষণকে স্মরণীয় করে রাখতে রাজশাহীর সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। 

বাংলাদেশ সময়: ০০০১ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০২, ২০১৯
এসএস/এএ

শুধু দমনই যথেষ্ট নয়, জঙ্গি নির্মূল করতে হবে 
শরীয়তপুরে ১০ বস্তা খেজুর জব্দ, জরিমানা ৩০ হাজার 
মেট্রোপলিটন চেম্বারের সভাপতি পদে খলিলুর পুনর্নির্বাচিত
আদালত স্থানান্তরের বৈধতা নিয়ে খালেদার রিট
ইঞ্জিনিয়ারিং ইউনিভার্সিটি স্কুল অ্যান্ড কলেজে নিয়োগ


রাজশাহীর দুর্গাপুরে দুই রোহিঙ্গা নারী আটক
রাজধানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১
লাইসেন্স চেক করতে গিয়ে মিললো ফেনসিডিল   
মেগামার্টের শাড়িতে হয়ে উঠুন সম্পূর্ণা
বরিশালে এসডিজি বাস্তবায়ন বিষয়ক কর্মশালা