ঢাকা মেডিক্যাল করোনা ইউনিটে ভর্তি বন্ধ ছিল!

আবাদুজ্জামান শিমুল, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল, ছবি: সংগৃহীত

walton

ঢাকা: ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল করোনা ইউনিটে সিট খালি না থাকায় কিছু সময়ের জন্য রোগী ভর্তি বন্ধ ছিল। ফিরে গেছেন অনেকে। নোটিশ ছিল, ‘এখানে সিট খালি নেই। অনুগ্রহ করে মুগদা বা কুর্মিটোলায় চলে যান’

বৃহস্পতিবার (১৪ মে) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বেশ কয়েক ঘণ্টা ভর্তি বন্ধ থাকায় করোনা ভাইরাস উপসর্গের অনেক রোগী এসে ফিরে গেছেন।

ধামরাই থেকে রহমত আলী (৭০) নামে এক বৃদ্ধকে নিয়ে এসেছিলেন তার ছেলে রাশেদুল ইসলাম। নিয়ম অনুযায়ী বাবার নাম দিয়ে একটি টিকিট কাটেন। পরে নির্দেশ মোতাবেক ওই করোনা ইউনিটে যান। সেখানে গিয়ে তিনি জানতে পারেন এখানে সিট খালি নেই। ভর্তি আপাতত বন্ধ। এরপর বাবাকে নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ অবস্থান করেন। এদিক-সেদিক ঘুরে নিরুপায় হয়ে নানা রোগে আক্রান্ত রহমত আলীকে নিয়ে বাসার উদ্দেশে রওনা হন ছেলে।

রাজধানীর হাজারীবাগ থেকে মিজানুর রহমান তার মা সাবিনা বেগমকে (৬০) চিকিৎসার জন্য ঢামেক করোনা ইউনিটে নিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু ভর্তি হতে না পেরে নিরাশ হয়ে মাকে নিয়ে বাসায় চলে যেতে বাধ্য হন।

যাওয়ার আগে মিজানুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, এর আগে মাকে নিয়ে মগবাজার আদ-দ্বীন হাসপাতালে গিয়েছিলাম। সেখানে ভর্তি করাতে পারিনি। ঢামেকেও পারলাম না। আল্লাহর নামে মাকে বাসায় নিয়ে যাচ্ছি। জীবন-মৃত্যু আল্লাহর হাতে। আল্লাহ দেখবেন।
ভর্তি কক্ষের সামনের নোটিশ, ছবি: বাংলানিউজরোগীর স্বজনরা জানান, ঢামেক হাসপাতাল করোনা ইউনিটের ভর্তি কক্ষের সামনে লেখা ছিল, ‘আমরা অতি দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি, আমাদের এখানে সিট খালি নেই। অনুগ্রহ করে মুগদা অথবা কুর্মিটোলায় চলে যান’।

এ বিষয়ে কথা হয় ঢাকা মেডিক্যাল হাসপাতালের উপ-পরিচালক আলাউদ্দিন আল আজাদের সঙ্গে। তিনি বলেন, কোভিড-১৯ রোগীদের কিছু নিয়ম-কানুন মেনে ভর্তি করা হয়। যেমন ধরুন আগে বার্ন ইউনিটে রোগীদের গাদাগাদি থাকতো। এখন তো সেরকম করা যাবে না। চার থেকে পাঁচ ফুট দূরত্ব বজায় রেখে কোভিড-১৯ রোগীদের রাখা হচ্ছে। এছাড়া ঢামেক করোনা ইউনিটে কোনো রোগীকে ফ্লোরেও রাখা হয় না। বেড খালি হলে আবারও রোগী ভর্তি করা হয় সেই বেডে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, হয়তো বা সকালের দিকে রোগী পরিপূর্ণতার কারণে ভর্তি কিছু সময় বন্ধ ছিল। তবে এখন ভর্তি কার্যক্রম চালু আছে ১০ থেকে ১৫টা সিটে।

ঢামেক করোনা ইউনিটে ভর্তি কার্যক্রম বন্ধ, ওটা কারা লিখেছে বিষয়টি দেখা হচ্ছে। সেটি খুলে ফেলা হয়েছে বলে তিনি জানান।

তিনি আরও জানান, আগামী শনিবারের (১৬ মে) মধ্যে চালু করা হচ্ছে ঢামেকের করোনা ইউনিট-টু। এ জন্য নতুন ভবনকে প্রস্তুত করা হয়েছে। সেখানে আনুমানিক ৫০০ রোগী ভর্তি হতে পারবেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৭০৮ ঘণ্টা, মে ১৪, ২০২০
এজেডএস/টিএ

বাড়িতেই করোনা রোগীর দেখাশোনা 
শিল্প মন্ত্রণালয়ের শিল্পপ্রতিষ্ঠানসমূহকে ঢেলে সাজানো হচ্ছে
করোনা রোগীর জন্য ফ্রি অ্যাম্বুল্যান্স মানবাধিকার কমিশনের
সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে ‘নির্বাহী আদেশে সই করবেন ট্রাম্প’
ঝড়ে লালমোহনে শতাধিক ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত


করোনা উপসর্গ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা বিকাশ দত্তের মৃত্যু
উত্তর কোরিয়ার ব্রিটিশ দূতাবাস বন্ধ ঘোষণা
বিরামপুরে অ্যালকোহল পানে আরও ৪ জনের মৃত্যু
কবে আগের মতন কাজ করতে পারমু?
চিড়িয়াখানায় প্রাণীরা মহানন্দে, বাচ্চা দিয়েছে জিরাফ-জলহস্তী