ঢাকা, বুধবার, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, ১২ আগস্ট ২০২০, ২১ জিলহজ ১৪৪১

স্বাস্থ্য

করোনা: আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে প্রস্তুত ৫০০ চিকিৎসক

আবাদুজ্জামান শিমুল, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৫৫ ঘণ্টা, মার্চ ২৭, ২০২০
করোনা: আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে প্রস্তুত ৫০০ চিকিৎসক

ঢাকা: কভিড-১৯ মহামারির দংশনে বিপর্যস্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশ। রোগটি ছোঁয়াচে হওয়ায় চিকিৎসার ক্ষেত্রে নানা ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে রোগী এবং চিকিৎসকদের। উন্নত দেশগুলোতে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা দিতে গিয়ে প্রাণ গেছে বহু চিকিৎসকের। বাংলাদেশেও করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দেওয়ার সময় সংস্পর্শে এসে চিকিৎসকও আক্রান্ত হয়েছেন। করোনা আক্রান্ত ‘সন্দেহভাজন’ রোগীদের চিকিৎসা দেওয়ার পর ইতোমধ্যে হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন বেশ ক’জন চিকিৎসক। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে প্রস্তুত রাখা হয়েছে ৫০০ চিকিৎসককে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট (বিএমএ) ও সাবেক সংসদ সদস্য ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিনের সঙ্গে কথা হয় বাংলানিউজটোয়েন্টিফোরের। তিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য ৫০০ চিকিৎসক প্রস্তুত রাখার বিষয়টি জানান।

শুক্রবার (২৭ মার্চ) সকালে কথা হলে মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে চিকিৎসকদের প্রস্তুত করে রাখার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তাই আমরা ৫০০ চিকিৎসককে পুরো দেশের জন্য প্রস্তুত করে রেখেছি। এদের মধ্যে সিনিয়র চিকিৎসকদের পাশাপাশি জুনিয়ররাও আছেন।

‘বিশ্বের প্রায় সব দেশেই করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। আমাদের দেশের মানুষও এই ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে। প্রাণও গেছে কয়েকজনের। শুরু থেকেই রোগীদের চিকিৎসা দিতে গিয়েই আমাদের চিকিৎসকরাও আক্রান্ত হয়েছে। বর্তমানে কয়েকজন চিকিৎসক হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন। চিকিৎসকরা যেকোনো  রোগীকে চিকিৎসা দেবে এবং আমাদের চিকিৎসকরা তা দিয়ে যাচ্ছে। চিকিৎসা দিতে গিয়েই তারা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এছাড়া আপনারা দেখেন, গতবছর ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসা দিতে গিয়ে ১২ জন চিকিৎসক ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। ’

আরও পড়ুন>> ২ চিকিৎসকসহ দেশে নতুুন আক্রান্ত ৪

বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের এ প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, করোনা ভাইরাস রোগটি  ছোঁয়াচে। তাই চিকিৎসকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সব ব্যবস্থা করেছে সরকার। পার্সোনাল প্রটেকশন ইকুইপমেন্টসহ (পিপিই) যাবতীয় সবকিছুই সরকার দিচ্ছে। আমাদের চিকিৎসকরাও শুরু থেকে আন্তরিকভাবে রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন। তারা চিকিৎসা শেষে পরিবারের কাছে বাসায় ফিরে যাচ্ছেন। চিকিৎসকরা নিয়মকানুন ও সতর্কতা মেনে বাসায় ফিরছেন ডিউটি শেষ করে। তবুও রোগটি যেহেতু ছোঁয়াচে তাই বিষয়টি নিয়ে আমরা চিন্তিত। তাদের জন্য আলাদা কিছু করা যায় কি-না আমরা সরকারের সঙ্গে আলাপ করবো। ’

শুক্রবার (২৭ মার্চ) বেলা সোয়া ১১টায় রাজধানীর মহাখালীতে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, দেশে এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৪৮ জন। এরমধ্যে মারা গেছেন পাঁচজন। সুস্থ হয়েছেন ১১ জন। এ পর্যন্ত মোট এর নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে এক হাজার ২৬ জনের। এরমধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১০৬ জনের।

২০১৯ সালের শেষ দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে বিশ্বের ১৯৯ দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে গেছে কভিড-১৯। এতে বিশ্বজুড়ে আক্রান্ত হয়েছে ৫ লাখ ৩৭ হাজার। মোট মৃত্যু হয়েছে ২৪ হাজার ১১৭ জনের। চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়েছেন প্রায় ১ লাখ ২৫ হাজার মানুষ।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫৫ ঘণ্টা, মার্চ ২৭, ২০২০
এজেডএস/এইচএডি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa