লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ৫ টাকার টিকিট ৫০!

সাজ্জাদুর রহমান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

জেলা সদর হাসপাতাল, লক্ষ্মীপুর

লক্ষ্মীপুর: লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালের বর্হিবিভাগে ৫ টাকার চিকিৎসা টিকিট ৫০ টাকায় বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে কাউন্টারের দায়িত্বে থাকা সেলিমের বিরুদ্ধে। তিনি রোগীর অসহায়ত্বের সুযোগ খোঁজেন। হাতিয়ে নেন অতিরিক্ত টাকা, করেন হয়রানি ও অসদাচরণ।

দীর্ঘদিন থেকে তার বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও হয়রানির অভিযোগ থাকলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি কর্তৃপক্ষ। এ পরিস্থিতি অব্যাহত থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন রোগী ও তাদের স্বজনরা।

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৯টা থেকে দুপুরে ১টা পর্যন্ত সরেজমিন সদর হাসপাতাল ঘুরে দেখা যায়, সেবাপেতে বর্হিবিভাগে দীর্ঘ লাইন। ঘণ্টার পর ঘণ্টা রোগীরা লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন। 

অপরদিকে, কাউন্টারের পেছনের জানালা দিয়ে বাড়তি টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে চিকিৎসা টিকিট। যেসব শিশুরা বাবার সঙ্গে চিকিৎসা সেবা নিতে এসেছে তাদের দেওয়া হচ্ছে না কোনো টিকিট। বলা হচ্ছে, সেবা পেতে মায়ের সঙ্গে আসতে হবে। মূলত নানান অজুহাতে অতিরিক্ত টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ধান্দা। টিকিটের জন্য ১০ বা ২০ টাকার নোট দিলেও বাকি টাকা ফেরত না দেওয়ার অভিযোগও রয়েছে সেলিমের বিরুদ্ধে।

দুপুর ১টা বাজতে না বাজতেই টিকিট বিক্রি বন্ধ করে দিলেন কাউন্টারের সেলিম। উপায় না পেয়ে লাইনে থাকা অনেক রোগী ও তাদের স্বজনরা হাসপাতাল ছেড়েছেন। 

গৃহবধূ মুক্তা বেগম, তানিয়া সুলতানা, আমেনা বেগমসহ কয়েকজন কাউন্টারের সামনে জটলা বেঁধে আছেন টিকিটের আশায়। তাদের সবার কোলে অসুস্থ শিশু। বারবার অনুরোধের পর সেলিম ৫০ টাকা করে টিকিটের দাম দাবি করেন। উপায় না পেয়ে তিন নারী ৫০ টাকা করে টিকিট কিনেন। ভবানীগঞ্জ এলাকার বাসিন্দা মুক্তা বেগমের কাছে বাস ভাড়া ছাড়া বাড়তি টাকা নেই। যে কারণে চড়া দামে টিকিট কিনতে পারেননি। প্রতিদিন এভাবেই চলে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালের বর্হিবিভাগ।

কথা হয় মুক্তা বেগমের সঙ্গে। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, ‘তার শিশু কন্যা দুইদিন ধরে জ্বরে আক্রান্ত। বর্হিবিভাগ থেকে ৫ টাকায় টিকিট নিয়ে মেয়েকে চিকিৎসক দেখাবেন। লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও টিকেট নিতে পারেননি। জানালা দিয়ে টিকিট বিক্রি করা না হলে হয়তো দুপুর ১টার আগে টিকিট নিতে পারতেন। চড়া দামে টিকিট কিনতে না পারায় তাকে ফিরে যেতে হচ্ছে’।

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার হামছাদি ইউনিয়নের বাসিন্দা গৃহবধূ তানিয়া বেগম বাংলানিউজকে বলেন, তার তিন বছরের মেয়ে জোহা ঠান্ডাজনিত রোগে ভোগছে। চিকিৎসার জন্য এসে প্রায় দেড়ঘণ্টা দাঁড়িয়েও টিকিট নিতে পারেননি। পরে ৫ টাকার টিকিট ৫০ টাকা দিয়ে কিনতে বাধ্য করা হয়েছে তাকে। এসময় ওই গৃহবধূকে সাংবাদিকের সঙ্গে কথা বলার খবর পেয়ে সেলিম বাড়তি ৪৫ টাকা ফেরতও দিয়েছেন।  

এসব অনিয়ম ও অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে কাউন্টারের দায়িত্বে থাকা সেলিম বাংলানিউজকে বলেন, ‘আমার ভুল হয়েছে। এসব ভবিষ্যতে আর হবে না।

লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আনোয়ার হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, এর আগও সেলিমের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ উঠেছে। দ্রুত তাকে কাউন্টার থেকে সরিয়ে দেওয়া হবে।

লক্ষ্মীপুরের সিভিল সার্জন ডা. মোস্তফা খালেদ আহমেদ বাংলানিউজকে বলেন, অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। অনিয়ম ও হয়রানি বিষয় তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১২২৫ ঘন্টা, মার্চ ০১, ২০১৮
এসআর/জিপি

কুচকাওয়াজে হামলার প্রতিশোধ নেবে ইরান
নালাপাড়ায় শর্টসার্কিটে পুড়লো বসতঘর
মেয়েকে ডাক্তার বানানোর স্বপ্ন প্রতিবন্ধী শাকুলের
মিরপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদকবিক্রেতা নিহত
শরীফে ‘শঙ্কা’ বেলালের, সারোয়ারে ‘ব্যাকফুটে’ মোতাহার
বইলদা গ্রামের শাপলা বিল
মেহেরপুরে পুলিশি অভিযানে গ্রেফতার ১৫
আয়ু বৃদ্ধিতে হাদিসের নির্দেশনা
খালেদাকে ছাড়াই শুরু হচ্ছে যুক্তিতর্ক শুনানি
শরতের শুভ্রতায় ব্যস্ততা বেড়েছে পালপাড়ায়