ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

শিক্ষাক্ষেত্রে প্রযুক্তির সুবিধা নিশ্চিত এবং ফরম বাণিজ্য বন্ধ করতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ বছর অনলাইনে ভর্তি কার্যক্রম পরিচালনার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। আসুন, জেনে নেওয়া যাক এ বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির বিস্তারিত।

শিক্ষাক্ষেত্রে প্রযুক্তির সুবিধা নিশ্চিত এবং ফরম বাণিজ্য বন্ধ করতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ বছর অনলাইনে ভর্তি কার্যক্রম পরিচালনার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। আসুন, জেনে নেওয়া যাক এ বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির বিস্তারিত।

অনলাইনে ভর্তি প্রক্রিয়া

প্রতি বছর ফরম সংগ্রহ ও জমা দিতে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা নানা প্রতিকূলতার সম্মুখীন  হন। শিক্ষার্থীদের সমস্যার কথা বিবেচনা করে শিক্ষাক্ষেত্রে তথ্য ও প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত করতে এ বছর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অনলাইনে ফরম পূরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ভর্তিচ্ছু শিক্ষর্থীরা দেশ-বিদেশের যে কোনও জায়গা থেকে www.admission.univdhaka.edu ওয়েবসাইট এ প্রবেশ করে ভর্তি ফরম ডাউনলোড করতে পারবেন । ভর্তি ফরমে শিক্ষার্থীকে শুধু  এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার রোল ও পাসের সাল বসাতে হবে। এর পরে ব্যাংকে ফরমের টাকা জমা দেওয়ার জন্য আবেদনকারীকে ‘পে-স্লিপ’ ডাউনলোড করে প্রিন্ট দিতে হবে। সোনালী, রূপালী, জনতা ও অগ্রণী ব্যাংকের যে কোনও শাখায় ‘পে-স্লিপ’-এর সাথে ৩২০ টাকা জমা দিতে হবে। ব্যাংকে টাকা জমা দেয়ার ৪৮ ঘণ্টা পরে ওয়েবসাইট থেকে পূরণকৃত ফরমের প্রবেশপত্রের অংশটি ডাউনলোড করে প্রিন্ট দিতে হবে।

পছন্দের বিষয় বাছাই

সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে শিক্ষার্থীদের পছন্দের বিষয়েও আসছে ভিন্নতা। এ জন্য ভর্তির আগে শিক্ষার্থীকে অবশ্যই ভেবে নিতে হতে কোন বিষয় নিয়ে অনার্স পড়বেন।

‘ক’ ইউনিটে রয়েছে বেশ কিছু যুগোপযোগী বিষয় : ফার্মাসিউটিক্যাল কেমিস্ট্রি, কিনিক্যাল ফার্মেসি অ্যান্ড ফার্মাকোলজি, ওষুধপ্রযুক্তি,পদার্থ, রসায়ন, গণিত, পরিসংখ্যান, ফলিত পদার্থ, বায়োমেডিকেল ফিজিক্স অ্যান্ড টেকনোলজি, মৃত্তিকা-পানি ও পরিবেশ বিভাগ, উদ্ভিদবিজ্ঞান, প্রাণিবিদ্যা, প্রাণরসায়ন ও অণুপ্রাণ বিজ্ঞান, মনোবিজ্ঞান, অণুজীব বিজ্ঞান, মাৎস্যবিজ্ঞান, কিনিক্যাল সাইকোলজি, জিন প্রকৌশল ও জীবপ্রযুক্তি, ভূগোল ও পরিবেশ, ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং, ফলিত রসায়ন ও রাসায়নিক ইঞ্জিনিয়ারিং, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, পুষ্টি ও খাদ্যবিজ্ঞান।

‘খ’ ইউনিটে যেসব বিষয়ে ভর্তি হওয়া যাবে : আইন, ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ, অর্থনীতি, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা, ইংরেজি, স্বাস্থ্য অর্থনীতি, বাংলা, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, লোকপ্রশাসন, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, সমাজবিজ্ঞান, নৃ-বিজ্ঞান, পপুলেশন সায়েন্স, শান্তি ও সংঘর্ষ, উইমেন অ্যান্ড জেন্ডার, আরবি, ফার্সি ভাষা ও সাহিত্য , উর্দু বিভাগ, সংস্কৃত, পালি ও বুদ্ধিস্ট স্টাডিজ, ইতিহাস, দর্শন, ইসলামিক স্টাডিজ, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি, তথ্যবিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা, নাট্যকলা, সঙ্গীত, ভাষাবিজ্ঞান, বিশ্বতত্ত্ব ও সংস্কৃতি।

‘গ’ ইউনিটের মাধ্যমে বাণিজ্য বিভাগ থেকে আসা শিক্ষার্থীরা ভর্তি হতে পারবেন । এ ইউনিটের বিষয়গুলো হলো : ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ, একাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস, মার্কেটিং, ফিন্যান্স, ব্যাংকিং, ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস, ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস, ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট।

‘ঘ’ ইউনিটের মাধ্যমে যেসব শিক্ষার্থী বিভাগ পরিবর্তন করতে চায় তারা উপরোক্ত বিভাগগুলোতে ভর্তি হতে পারবে।

‘চ’ ইউনিটের মাধ্যমে চারুকলা অনুষদে ভর্তি হওয়া যাবে। বিষয়গুলো হলো : অংকন ও চিত্রায়ন, গ্রাফিক্স ডিজাইন, প্রিন্ট মেকিং, প্রাচ্যকলা, ভাস্কর্য, কারুশিল্প, মৃৎশিল্প ও শিল্পকলার ইতিহাস।

পরীক্ষায় অংশগ্রহণের যোগ্যতা

চলতি শিক্ষাবর্ষে ‘বিজ্ঞান’ শাখায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের ‘ক’ ইউনিটের মাধ্যমে আবেদন করতে হলে
এসএসসি ও এইচএসসি বা সমমান উভয় পরীক্ষায় চতুর্থ বিষয় ছাড়া মোট জিপিএ-৮ পেতে হবে। ‘মানবিক’
ও ‘বাণিজ্য’ শাখায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মোট জিপিএ-৭ পেতে হবে। চারুকলা অনুষদে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের মোট জিপিএ-৬.৫ পেতে হবে। যে কোনও বিষয়ে জিপিএ ৩-এর কম পেলে কোনও শিক্ষার্থী আবেদন করতে পারবে না ।

পরীক্ষা পদ্ধতি

বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ক’ ইউনিটে বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীদের পদার্থ, রসায়ন, জীববিজ্ঞান ও গণিত বিষয়ে প্রশ্ন করা হবে। কলা অনুষদ ভুক্ত ‘খ’ ইউনিট এবং সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটের পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য সব বিভাগের শিক্ষার্থীদের বাংলা, ইংরেজি, সাধারণ জ্ঞান বিষয়ে প্রশ্ন করা হবে। তবে জিসিই উত্তীর্ণ ও বিদেশি ছাত্রছাত্রীদের এডভান্স ইংলিশ বিষয়ে প্রশ্ন করা হবে। ‘খ’ ইউনিটের পরীক্ষায় একই প্রশ্নপত্রে মানবিক ও জিসিই উত্তীর্ণদের প্রশ্ন  করা হয় বলে উত্তর দেওয়ার সময় এডভান্স ইংলিশকে যাতে ইংরেজি বলে ভুলে উত্তর দেওয়া না হয় সে বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে। ব্যবসায় অনুষদভুক্ত ‘গ’ ইউনিটের পরীক্ষায় বাংলা, ইংরেজি, হিসাববিজ্ঞান, ব্যবসায় নীতি বিষয়ে প্রশ্ন করা হবে। সব ইউনিটের পরীক্ষা এমসিকিউ পদ্ধতিতে হবে।

ভর্তির আবেদন ও পরীক্ষার সময়সূচি

সেপ্টেম্বরের ২৭ তারিখ থেকে ১০ অক্টোবর ২০১০ পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন করা যাবে।

চলতি বছরের ২৯ অক্টোবর কলা অনুষদভুক্ত ‘খ’ ইউনিটের মাধ্যমে ভর্তি পরীক্ষা শুরু হবে। ৫ নভেম্বর বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিট, ২৬ নভেম্বর  বাণিজ্য অনুষদভুক্ত ‘গ’ ইউনিট এবং ৩ ডিসেম্বর সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সব পরীক্ষা শুরু হবে সকাল ১০টায়।

যোগাযোগ

ভর্তির অন্যান্য যোগ্যতা, বিশেষ যোগ্যতা ও মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ভর্তির বিস্তারিত ও অন্যান্য যাবতীয় তথ্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট www.univdhaka.edu -এ পাওয়া যাবে অথবা ফোন : (৮৮০)-২-৮৬১৪১৫০, ৯৬৬১৯২০ এক্সটেনশন-৪০২০, Email: duregs[email protected] এই ঠিকানায় পাওয়া যাবে।

বাংলাদেশ স্থানীয় সময় ২০৪০, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১০

তামাদির বিষয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনা চেয়ে নোটিশ
বিএনপি নেতার মৃত্যুতে মির্জা ফখরুলের শোক
আইপিএল আয়োজন করতে চায় আরব আমিরাত
চার কার্যদিবস পর সূচক বাড়লো পুঁজিবাজারে
পেশা পরিচালনা করতে পারবেন গাইবান্ধার সেই ১৭ আইনজীবী


করোনায় মারা গেলেন সাংবাদিক মোনায়েম খান
পঞ্চগড়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে যুবকের মৃত্যু
ওষুধের বাজার হাজারী গলিতে ৪ ম্যাজিস্ট্রেটের সাঁড়াশি অভিযান
না’গঞ্জে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ৩ হাজার, মৃত্যু ৮৫
করোনা আক্রান্ত সাবেক মেয়র কামরান ভেন্টিলেশনে