খুচরায় লাভ হলেও লোকসানে ফুলের পাইকারি বাজার

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

শাহবাগে ফুলের বাজার/ছবি- জি এম মুজিবুর

walton

ঢাকা: পহেলা ফাল্গুন আর ভালোবাসা দিবস ছিলো একই দিনে। তার ওপর ছিলো বিভিন্ন আচার-অনুষ্ঠান। তাই বেশি বিক্রির আশায় চড়া দামেই বেশি পরিমাণে ফুল মজুদ করেছিলেন পাইকারি ব্যবসায়ীরা। কিন্তু সে অনুযায়ী বিক্রি হয়নি। ফলে লোকসানে পড়েছেন ফুলের পাইকারি ব্যবসায়ীরা। তবে খুচরা বাজারে তেমন প্রভাব পড়েনি। তাদের মুখে চওড়া হাসিই দেখা গেছে।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় খুচরা ও পাইকারি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এমনটাই জানা গেছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, শীতে ফুলের ক্ষেত নষ্ট হওয়ায় এবার উৎপাদন কম ছিল। আর একইদিনে দু’টি উৎসব থাকায় খুচরা বাজারে চাহিদা বেশি হওয়ার ধারণা করেছিলেন তারা। ফলে চাষিদের কাছ থেকে বেশি দামে বেশি পরিমাণে ফুল কিনেছিলেন। কিন্তু উৎসব শেষ হলেও চাহিদা কম থাকায় অনেক ফুল মজুদই রয়ে গেছে।

তারা বলছেন, একেক জন ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকা করে লোকসান দিয়ে ফেলেছেন। আর লাভবান হয়েছেন চাষিরা।

আগারগাঁওয়ের ফুলের পাইকারি বাজারের ব্যবসায়ী মো. আকাশ বলেন, গোলাপে লস হয়েছে সবচেয়ে বেশি। প্রতি হাজার গোলাপ ১৩ হাজার টাকায় কিনতে হলেও বিক্রি করতে হয়েছে ৭ থেকে ৮ হাজার টাকায়। তার কাছে এখনো তিন হাজার গোলাপ রয়ে গেছে।

আতিক নামের আরেক ব্যবসায়ী বলেন, দু'টি উৎসব একইদিন হওয়ায় ব্যবসা আরও কম হয়েছে। আলাদা দিনে হলে বিক্রি বেশি হতো। কিন্তু আমাদের ধারণা উল্টো ছিল। যে কারণে লোকসান হয়েছে।

তবে শাহবাগের খুচরা দোকানদারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাদের ব্যবসা ভালো হয়েছে। ১০ টাকার গোলাপ তারা ৩০ টাকা পিসেও বিক্রি করেছেন।

মো. ইলিয়াছ নামের এক খুচরা বিক্রেতা বলেন, এবার গোলাপ একটু কম বিক্রি হয়েছে। দু'টি দিবস একসঙ্গে পালন হওয়ায় ফুল তুলনামূলক কম বিক্রি হয়েছে। তবে লোকসান হয়নি। আলাদা দিনে উৎসব হলে দু’দিনই বিক্রি হতো। এতে লাভ আরও বেশি হতো।

সুজন জানান, গোলাপ পাইকারি বাজার থেকে কেনা হয়েছে ১০ থেকে ১২ টাকায়, বিক্রি হয়েছে ১৫ থেকে ২৫-৩০ টাকা। রজনীগন্ধার স্টিক কেনা হয়েছে ৪ থেকে ৫ টাকায়, বিক্রি হয়েছে ৭ থেকে ৮ টাকায়। গাঁদা ফুলের মালা ৮ থেকে ১০ টাকায় কিনে বিক্রি হয়েছে ১৫ থেকে ২০ টাকায়।

এদিকে কাঁচা ফুলের বাজারকে আর্টিফিসিয়াল ফুলের বাজার হুমকির মুখে ফেলছে বলেও মন্তব্য করেছেন ব্যবসায়ীরা। তাদের মতে, বিয়ে কিংবা যেকোনো সামাজিক উৎসবে আগে কাঁচা ফুলের বিকল্প ছিল না। কিন্তু এখন সেটা দখল করে নিচ্ছে আর্টিফিসিয়াল ফুল। ফলে সভা-সেমিনার-অনুষ্ঠানে তাদের কদর কমে গেছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯১০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০২০
ইইউডি/জেডএস

ছিন্নমূল মানুষকে একবেলা খাবার দেবে ডিএমপি
টিভিতে ‘আমার ঘরে আমার ক্লাস’ ক্লাশ শুরু সকাল ৯টায়
ভূতুড়ে নগরী ঢাকা
সংকট মোকাবিলায় জনগণ জাতীয় ঐক্য স্থাপন করেছে: জেএসডি
নারায়ণগঞ্জে পর্যাপ্ত পিপিই মজুদ আছে: ডিসি


বগুড়ায় দিনমজুরদের খাদ্যসামগ্রী দিলেন আ’লীগ নেতা রনি
বগুড়ায় হোম কোয়ারেন্টিনে ৭৫২, ছাড়পত্র পেয়েছে ১৬১ জন
করোনা ইউনিটে নেয়ার পরেই রোগীর মৃত্যু
করোনা: একদিনের বেতন দান করল আইইউবিএটি
স্বাস্থ্যকর্মী-সাংবাদিকদের পিপিই দিবে ‘স্নোটেক্স’