php glass

আজ কামালপুর মুক্ত দিবস

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

আজ (৪ ডিসেম্বর) জামালপুরের কামালপুর মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালে হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীর শক্তিশালী ঘাঁটি কামালপুরের পতন ঘটানোর মধ্য দিয়ে ১১নং সেক্টরের বীর মুক্তিযোদ্ধারা সূচনা করেছিলেন ঢাকা বিজয়ের পথ।

জামালপুর: আজ (৪ ডিসেম্বর) জামালপুরের কামালপুর মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালে হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীর শক্তিশালী ঘাঁটি কামালপুরের পতন ঘটানোর মধ্য দিয়ে ১১নং সেক্টরের বীর মুক্তিযোদ্ধারা সূচনা করেছিলেন ঢাকা বিজয়ের পথ।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে উল্লেখযোগ্য অধ্যায় হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে কামালপুর রণাঙ্গন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে হানাদার পাকি বাহিনী বকশীগঞ্জ, কামালপুর ও আশপাশের এলাকায় ব্যাপক ধ্বংশযজ্ঞ চালায়, হত্যা করে অসংখ্য মুক্তিকামী বাঙালিকে। হানাদার পাকিদের নির্মম হত্যাযজ্ঞের স্মৃতিচি‎হ্ন নিয়ে  অনেক গণকবর ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে কামালপুরসহ বকশীগঞ্জ উপজেলা জুড়ে।

ভারতের মেঘালয় রাজ্যের বিপরীতে কামালপুরে হানাদার বাহিনী যুদ্ধের শুরু থেকেই শক্তিশালী ঘাঁটি গড়ে তোলে। মুক্তিযুদ্ধের সময়টা জুড়ে উত্তর রণাঙ্গনের ১১নং সেক্টরের মুক্তিযোদ্ধাদের প্রধান লক্ষ্যই ছিল এই ঘাঁটি দখলের।

লক্ষ্য অনুযায়ী সেক্টর কমান্ডার কর্নেল তাহেরের (বীরউত্তম) পরিকল্পনা অনুসরণ করে ১৯৭১ সালের ২৪ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা হানাদার বাহিনীর কামালপুর ঘাঁটি অবরোধ করে। এসময় সেখানে পাকিস্তানী ক্যাপ্টেন আহসান মালিক খানের  নেতৃত্বে ছিল এ ঘাঁটি। একদিকে মুক্তিযোদ্ধাদের অবরোধ অপরদিকে হানাদারদের ঘাঁটি রক্ষায় মরণপণ চেষ্টায় দু’পক্ষের মধ্যে শুরু হয় প্রচণ্ড যুদ্ধ।

অবরোধের প্রথম দিনই সম্মুখ যুদ্ধে শত্রুর মর্টার শেলের আঘাতে সেক্টর কমান্ডার কর্নেল তাহের একটি পা হারান। এসময় ভারপ্রাপ্ত সেক্টর কমান্ডারের দায়িত্ব নেন উইং কমান্ডার হামিদুল্লাহ খান বীর প্রতীক।
 
মুক্তিবাহিনীর ব্যাপক তৎপরতার মুখে ২৯ নভেম্বর পাকি হানাদারদের ৩১ বালুচ রেজিমেন্ট কমান্ডার লে. কর্নেল সুলতান মাহমুদের নির্দেশে মেজর আইয়ুব কামালপুরের গ্যারিসন কমান্ডার ক্যাপ্টেন আহসান মালিক খানের দুর্গে সৈন্য, অস্ত্র, গোলাবারুদ ও খাদ্য সরবরাহের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন।

১০ দিনব্যাপী প্রচ- যুদ্ধের পর ৪ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৭টায় অবরুদ্ধ ৩১ বালুচের রেজিমেন্টের অধীনস্থ গ্যারিসন কমান্ডার ক্যাপ্টেন আহসান মালিক খানসহ ১৬২ জন হানাদার মিত্র বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পন করে। মুক্ত হয় কামালপুর। আর কামালপুর মুক্ত হওয়ার মধ্য দিয়েই সূচিত হয় শেরপুর, ময়মনসিংহ, জামালপুরসহ ঢাকা বিজয়ের পথ।

কামালপুর যুদ্ধে ক্যাপ্টেন সালাহ উদ্দিন মমতাজ, মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান তসলিমসহ শহীদ হন ১৯৭ জন অসম সাহসী বীর সন্তান। অপরদিকে, মুক্তিবাহিনীর বীর বিক্রমে হানাদার পাকি বাহিনীর একজন ক্যাপ্টেনসহ ২২০জন সৈন্য নিহত হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৫০৪ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৪, ২০১১

ঝালকাঠি থেকে ৯ রুটে বাস চলাচল বন্ধ
রূপালীর মনোরঞ্জন দাসের জামিন হয়নি
৫ সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ৬৪ জেলার ‘মেন্টর’
বেরোবি ভর্তি পরীক্ষা: সব ইউনিটের ফল প্রকাশ
চিলিতে বিক্ষোভে নিহত ২৪, আটক ৬ হাজার


কাতার বিশ্বকাপের দর্শকরা পাবে প্রমোদতরীর স্বাদ
আইসিটি সেক্টরে আরও ১০ লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে: পলক
প্রেমের কথা স্বীকার করলেন জয়া আহসান
দণ্ডিত সেই শিশুদের মুক্তির বিষয়ে জানতে চান হাইকোর্ট
সেঞ্চুরিতে বিশ্ব রেকর্ড হৃদয়ের