php glass

ইতিহাসের এই দিনে

অক্ষয়কুমার দত্তের প্রয়াণ

ফিচার ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

অক্ষয়কুমার দত্ত

walton

ঢাকা: ইতিহাস আজীবন কথা বলে। ইতিহাস মানুষকে ভাবায়, তাড়িত করে। প্রতিদিনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা কালক্রমে রূপ নেয় ইতিহাসে। সেসব ঘটনাই ইতিহাসে স্থান পায়, যা কিছু ভালো, যা কিছু প্রথম, যা কিছু মানবসভ্যতার আশীর্বাদ-অভিশাপ।

তাই ইতিহাসের দিনপঞ্জি মানুষের কাছে সবসময় গুরুত্ব বহন করে। এই গুরুত্বের কথা মাথায় রেখে বাংলানিউজের পাঠকদের জন্য নিয়মিত আয়োজন ‘ইতিহাসের এই দিনে’।

১৮ মে ২০১৯, শনিবার। ০৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ। এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এই দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।

ঘটনা
•    ১৮০৪- নেপোলিয়ন বোনাপার্টকে ফ্রান্সের সম্রাট ঘোষণা করা হয়।
•    ১৮৯৬- খোদ্যানকা ট্র্যাজেডি: মস্কোর খোদ্যানকা ময়দানে রাশিয়ার জার নিকোলাস দ্বিতীয়র রাজ্যাভিষেক অনুষ্ঠানে ভয়াবহ আতঙ্ক ছড়ায়। এতে হুড়োহুড়িতে পদদলিত হয়ে ১ হাজার ৩৮৯ মানুষের প্রাণহানি ঘটে।
•    ১৯৭৪- ষষ্ঠ দেশ হিসেবে পারমাণবিক বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে এক্ষেত্রে নিজেদের অবস্থান জানান দেয় ভারত।
•    ২০০৯- শ্রীলঙ্কার গৃহযুদ্ধের অবসান। তামিল গেরিলারা শ্রীলঙ্কান সেনাবাহিনীর হাতে পরাজিত হয়। এতে ২৬ বছরব্যাপী গৃহযুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে।

জন্ম
•    ১৮৭২- ইংরেজ বিজ্ঞানী, শিক্ষাবিদ, দার্শনিক, লেখক এবং সাহিত্যে নোবেলজয়ী বার্ট্রান্ড রাসেল।

রাসেল ১৯০০ সালের শুরুতে ব্রিটিশদের আদর্শবাদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহে নেতৃত্ব দেন। তাকে বিশ্লেষণী দর্শনের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা বিবেচনা করা হয়। একইসঙ্গে ২০ শতকের শ্রেষ্ঠতম যুক্তিবিদদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়। রাসেল এবং হোয়াইটহেড একত্রে প্রিন্কিপিয়া ম্যাথমেটিকা নামে একটি বই রচনা করেন, যেখানে তারা গণিতকে যুক্তির ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করেন। তার দার্শনিক নিবন্ধ ‘অন ডিনোটিং’ দর্শনশাস্ত্রে মডেল হিসেবে বিবেচিত হয়। রাসেল ছিলেন যুদ্ধবিরোধী ব্যক্তিত্ব। তিনি জাতিগুলোর মধ্যে মুক্ত বাণিজ্যে বিশ্বাস করতেন। সাম্রাজ্যবাদবিরোধী রাসেল তার অহিংস মতবাদ প্রচারের জন্যে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় জেলবন্দি হন। তিনি হিটলারের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালান, সোভিয়েত টোটালিটারিয়ানিজম এবং ভিয়েতনাম যুদ্ধে আমেরিকার অংশগ্রহণেরও সমালোচনা করেন। ১৯৫০ সালে সাহিত্যে নোবেলজয়ী রাসেল ১৯৭০ সালের ২ ফেব্রুয়ারি ৯৭ বছর বয়সে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

মৃত্যু
•    ১৮৮৬- বাংলা সাহিত্যের প্রবন্ধকার অক্ষয়কুমার দত্ত।

তিনি সংবাদপত্রে লেখালেখির মাধ্যমে লেখক জীবন শুরু করেন। ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত সম্পাদিত সংবাদ প্রভাকর পত্রিকায় তিনি নিয়মিত লিখতেন। তিনি মূলত ইংরেজি সংবাদপত্রের প্রবন্ধগুলো বাংলায় অনুবাদ করতেন। ১৮৩৯ সালে তিনি তত্ত্ববোধিনী সভার অন্যতম সভ্য মনোনীত হন এবং কিছুদিন সভার সহ-সম্পাদকও ছিলেন। ১৮৪০ সালে তত্ত্ববোধিনী পাঠশালার ভূগোল ও পদার্থবিদ্যার শিক্ষক নিযুক্ত হন।

প্রবন্ধগুলোতে সমসাময়িক জীবন ও সমাজ সম্পর্কে অক্ষয়কুমারের নির্ভীক মতামত (জমিদারি প্রথা, নীলচাষ, ইত্যাদি সম্পর্কিত মতামত) প্রকাশ পেতো। এসব প্রবন্ধ তিনি পরে বই হিসেবে বের করতেন।

•    ২০০১- ডাচ বংশোদ্ভূত অস্ট্রেলিয়ান সামরিক অফিসার এবং বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে বীরপ্রতীক খেতাবপ্রাপ্ত একমাত্র বিদেশি মুক্তিযোদ্ধা উইলিয়াম আব্রাহাম সাইমন ওডারল্যান্ড (ডব্লিউ এ এস ওডারল্যান্ড)।

বাংলাদেশ সময়: ০১৩১ ঘণ্টা, মে ১৮, ২০১৯
টিএ/এএ

গাংনীতে মাদক ব্যবসা নিয়ে দুই পক্ষের গুলি, নিহত ১ 
রামুতে বিনামূল্যে পাওয়ার টিলার পেলেন ৩শ’ কৃষক
ট্রেনের টয়লেটে কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টা!
বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডে অজিদের সঙ্গী বাংলাদেশ
ধামরাইয়ে অটোরিকশার ধাক্কায় শিশু নিহত


মাদারীপুরে বিদ্যুৎপৃষ্টে যুবকের মৃত্যু
কাশিয়ানীতে ইউপি সদস্যসহ ৫ জুয়াড়ি আটক
কক্সবাজারে বাংলাদেশ-নেপালের যৌথ কমিটির সভা
রোদ-বৃষ্টির লড়াই ছাড়িয়ে হাসবে ইংল্যান্ড-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ
৪০-৫০ রান বেশি দিয়েছি: মাশরাফি