মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ভাস্কর্য ‘জয় বাংলা’

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক ভবনের সামনে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ভাস্কর্য ‌‌জয় বাংলার শুভ উদ্বোধন করা হলো। ৩০ র্মাচ বুধবার সকালে বিশ্ববিদ্যলয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর নজরুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে ফলক উন্মোচন করে এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক ভবনের সামনে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ভাস্কর্য ‌‌জয় বাংলার শুভ উদ্বোধন করা হলো। ৩০ র্মাচ বুধবার সকালে বিশ্ববিদ্যলয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর নজরুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে ফলক উন্মোচন করে এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। এ উপলক্ষে অডিটরিয়ামে এক আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেন। বিশেষ অতিথি ছলিনে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সদস্য প্রফেসর ড. আতফুল হাই শিবলী, জয় বাংলা ভাস্কর্যের নির্মাতা বরণ্যে ভাস্কর প্রফেসর হামিদুজ্জামান খান, জনতা ব্যাংক লিমিটেডের পরিচালক এডভোকেট বলরাম পোদ্দার, রেজিস্ট্রার মোঃ নওয়াব আলী। সভা পরিচালনা করেন প্রফেসর আ.ক.ম মোস্তফা জামান।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বলেন, পটুয়াখালী বিশ্ববিদ্যালয়ে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ভাস্কর্য জয় বাংলা নির্মাণের ফলে ইতিহাসে এটি এক দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। তিনি এ ভাস্কর্যটির সঠিক সংরক্ষণে ছাত্র, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও এলাকার জনগরে প্রতি আহ্বান জানান।  মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ভাস্কর্য নির্মাণের উদ্যোগ সম্পর্কে ভাইস-চ্যান্সেলর মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর ড. সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধারা দেশ ও জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। তাদের ঋণ কখনোই শোধ করা সম্ভব নয়। মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা আমাদের জাতির জন্য সবচেয়ে গৌরব ও ঐতিহ্যময় অধ্যায়। মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের অবদানের স্মরণেই বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আমরা এই ভাস্কর্য নির্মাণ করেছি’। তিনি আরও বলেন, জীবনের মায়া ত্যাগ করে আমরা দেশের মুক্তির জন্য ঝাঁপিয়ে পড়েছিলাম। কিন্তু সেই মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস অনেক সময়ই বিকৃত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। স্বাধীনতা যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের ত্যাগ থেকে শিক্ষা নিয়ে দেশ ও দেশের মানুষের জন্য কাজ করতে উদ্যমী তরুণ প্রজন প্রজন্মকে আহ্বান জানান তিনি।

ইউজিসি ও জনতা ব্যাংকের অর্থায়নে ভাস্কর্যটি নির্মাণে প্রায় আট লাখ টাকা ব্যয় হয়। এর মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন ৬ লাখ টাকা ও জনতা ব্যাংক ২ লাখ টাকা প্রদান করে।

বাংলাদেশ সময় ২০১০, মার্চ ৩১, ২০১১

জলঢাকায় উপজেলা নির্বাচনে বৈধতা ফিরে পেলেন বাহাদুর 
‘বিকশিত হোক শত ভাবনা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন
গাপটিলকে থামালেন সাইফ 
খুলনায় পচা মিষ্টি বিক্রির দায়ে বনফুলকে জরিমানা 
ঘরের মাঠে লিভারপুলের হোঁচট


কানাডায় আগুনে পুড়ে ৭ সিরিয়ান শরণার্থী শিশুর মৃত্যু
বার্সাকে জিততে দিল না লিঁও
শেষ ম্যাচে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ
রাবিতে ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলন শুরু ২৮ ফেব্রুয়ারি  
মান হারিয়ে আবেদন হারাচ্ছে লিটল ম্যাগ