মা দিবস

মা আমার সব সিক্রেট জানেন: টয়া

মো. জহিরুল ইসলাম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মা ফারহানা সানজিদা আলীর সঙ্গে টয়া

walton

ফারহানা সানজিদা আলী পেশায় স্কুল শিক্ষিকা। কর্মজীবী নারী হয়েও সন্তানদের সঙ্গে তার বিন্দুমাত্র দূরত্ব নেই। সবসময় মমতাময়ী হাত দিয়ে তিনি সন্তানদের আগলে রেখেছেন। তার দুই মেয়ের কাছে তিনিই সবচেয়ে ভালো বন্ধু।

php glass

মা দিবসে বাংলানিউজের সঙ্গে আলাপকালে ফারহানা সানজিদা আলীর ছোট মেয়ে অভিনেত্রী মুমতাহিনা চৌধুরী টয়া এমনটিই জানান। তিনি বলেন, ‘মা আমার বেস্ট ফ্রেন্ড। আমার এমন কিছু নেই, যেটা মা জানেন না। সব বিষয় আমি ও আমার বোন মা সঙ্গে শেয়ার করি। তিনি আমার সব সিক্রেট জানেন।’

মা দিবস উপলক্ষে প্রতিবছরই কেক কেটে ও মাকে গিফট দেন টয়া। এবারও বিশেষ পরিকল্পনা করেছেন তিনি। তার ভাষ্যে, ‘ছোটবেলায় মা দিবস এলে নিজের হাতে কার্ড তৈরি করে গিফট আকারে মাকে দিতাম। তিনি বেশ খুশি হতেন। এবার ঈদের নাটকের শুটিং নিয়ে ব্যস্ত আছি। তাই সকালে বের হয়ে রাতে বাসায় ঢুকতে হচ্ছে। মাকে সে ভাবে সময় দিতে পারছি না। তবে মায়ের জন্য গিফট ঠিকই রেডি করেছি। শুটিংয়ের শত ব্যস্ততার মধ্যেও মায়ের উপহার তার হাতে পৌঁছে দিয়েছি।’পরিবারের সঙ্গে টয়াউপার্জনক্ষম হওয়ার পর থেকে মা’র স্বপ্ন পূরণ করার স্বপ্ন দেখেন টয়া। তার ভাষ্যে, মা’র সবগুলো স্বপ্ন আমি পূরণ করতে চাই। এরমধ্যে তার ছোট একটি স্বপ্ন পূরণ করেছি। একটি গাড়ি গিফট করেছি। আশা করছি ভবিষ্যতে কঠোর পরিশ্রম করে নিজের অর্জিত অর্থ দিয়ে মায়ের বড় বড় স্বপ্নগুলোও পূরণ করতে পারবো।’

টয়ার শৈশব কেটেছে রাঙ্গামাটিতে। তিনি যে স্কুলে পড়তেন সে স্কুলের শিক্ষিকা ছিলেন তার মা। তখনকার মজার একটি স্মৃতি স্মরণ করে টয়া বলেন, ‘রাঙ্গামাটিতে আমি যে স্কুলের ছাত্রী ছিলাম, মা সে স্কুলে ইতিহাস পড়াতেন। মা শিক্ষিকা হওয়াতে আমার মধ্যে সবসময় সাহস কাজ করতো। পড়াশোনা না করলেও কেউ কিছু বলবে না, এমনটা চিন্তা করতাম! তবে একদিন ক্লাসে মা আমাকে পড়া ধরলেন, কিন্তু আমি পারিনি। তাই মায়ের হাতে আমাকে মার খেতে হলো। এরপর থেকে নিয়মিত পড়া শিখতাম। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো আর কখনই মা ক্লাসের আমাকে মধ্যে পড়া ধরেননি। কারণ আমি যে বাসায় পড়া শিখতাম সেটা তিনি দেখতেন।’

মা-বাবার প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করে টয়া বলেন, ‘আসলে কখনো সেভাবে করে বলা হয় না, তাদের কত ভালোবাসি। নিঃস্বার্থভাবে পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি ভালোবাসা আমার মা ও বাবার জন্য। তাদের জন্য আমি কিছু করতে পারছি ও করার চেষ্টা করছি। আল্লাহর কাছে তাদের দীর্ঘায়ু কামনা করছি।’

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৯ ঘণ্টা, মে ১২, ২০১৯
জেআইএম

পঞ্চম ধাপের উপজেলা ভোটে মনোনয়ন দাখিলের শেষ সময় মঙ্গলবার
চা পাতা ভর্তি কাভার্ডভ্যান ছিনতাই, বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২
হুয়াওয়ে’কে আর এন্ড্রয়েড সেবা দেবে না গুগল
আন্দোলন থেকে সরে দাঁড়ালো ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা
চুয়াডাঙ্গায় নির্মাণাধীন ভবন থেকে গ্রেফতার ১৩


লক্ষ্মীপুরে ১ হাজার ৪০ টাকায় ধান ক্রয়
ইয়াবা পাচার: এসএ পরিবহনের তিনজন র‍্যাব হেফাজতে
এখন চলছে সুপার স্ট্রাকচার নির্মাণের কাজ 
মাদক মামলায় পুলিশ কনস্টেবলসহ দু’জনের কারাদণ্ড
লামায় পাহাড় থেকে পড়ে কাঠুরিয়ার মৃত্যু