আবার আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেল ‘আমরা করবো জয়’

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

শিশু-কিশোরদের নিয়ে এটিএন বাংলা’র ‘আমরা করবো জয়’ অনুষ্ঠানটি আবারও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পুরস্কৃত হয়েছে।ইউনিসেফ ঘোষিত ২০১১ সালের আইসিডিবি’র (ইন্টারন্যাশনাল চিলড্রেনস ডে অব ব্রডকাস্টিং) রিজিওনাল অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে এটিএন বাংলার ‘আমরা করবো জয়’-এর শিশু-কিশোরদের ডকুড্রামা ‘বৈষম্য পেরিয়ে’।

শিশু-কিশোরদের নিয়ে এটিএন বাংলা’র ‘আমরা করবো জয়’ অনুষ্ঠানটি আবারও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পুরস্কৃত হয়েছে। ইউনিসেফ ঘোষিত ২০১১ সালের আইসিডিবি’র (ইন্টারন্যাশনাল চিলড্রেনস ডে অব ব্রডকাস্টিং) রিজিওনাল অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে এটিএন বাংলার ‘আমরা করবো জয়’-এর শিশু-কিশোরদের ডকুড্রামা ‘বৈষম্য পেরিয়ে’। বিশ্বের আরো ৩টি টেলিভিশন ও ৪টি রেডিও তাদের রিজিওনে এই সম্মান অর্জন করে। এই নিয়ে অনুষ্ঠানটি আন্তাজার্তিক অঙ্গনে সপ্তমবারের মতো পুরস্কৃত হলো।

ইন্টারন্যাশনাল চিলড্রেন্স ডে অব ব্রডকাস্টিংয়ের এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিলো “গার্লস আর বয়েজ আর”। শিশু-কিশোরদের নিয়ে এটিএন বাংলা’র নিয়মিত অনুষ্ঠান ‘আমরা করবো জয়’ এর সদস্যদের নির্মিত ‘বৈষম্য পেরিয়ে’ ডকুড্রামায় একটি মেয়ে ও ছেলের বেড়ে ওঠা এবং  বৈষম্যের মাঝে থেকেও সাফল্যের গল্প তুলে ধরা হয়। একটি দরিদ্র পরিবারের দুইটি সন্তান, একটি মেয়ে এবং একটি ছেলে। ছোটবেলা থেকেই মেয়ে সন্তানটির উপর পরিবারের আচরন অন্যরকম থাকে। ছেলেটিকে স্কুলে ঠিকমত পাঠানো হতো, তার প্রতি বেশি যতœ নেওয়া হতো আর মেয়েটির প্রতি তেমন যতœ নেওয়া হতোনা। এরকমভাবে দুটি সন্তানই পঞ্চম শ্রেনীতে যখন পড়ে তখন পরিবার মেয়েটিকে আর পড়াতে চায় না। এক পর্যায়ে মেয়েটির স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু সে থেমে থাকেনি বাড়িতে বসে গোপনে সে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে থাকে এবং অবশেষে সকলকে রাজি করিয়ে পরীক্ষায় অংশ নেয়। রেজাল্টে  দেখা যায়, মেয়েটি ভাল করেছে। কিন্তু ছেলেটি পাশ করতে পারে না। সব বাঁধা পেরিয়ে মেয়েটির এই সাফল্যে তখন পরিবারের সবাই আনন্দে ভরে ওঠে।

ইউনিসেফ প্রতিবছর ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে কর্মরত শিশু-কিশোরদের এ স্বীকৃতি প্রদান করে আসছে। শিশুদের সমস্যা সম্পর্কে সম্প্রচার প্রতিষ্ঠানগুলোকে আরো সচেতন হতে উৎসাহ প্রদানের লক্ষ্যে ১৯৯৪ সাল থেকে এই পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে।

আমরা করবো জয় অনুষ্ঠানের ক্ষুদে সদস্যরা নিজেরাই অনুষ্ঠান পরিকল্পনা, ধারা বর্ণনা, পরিচালনার কাজ করে থাকে। এ পর্যন্ত ‘আমরা করবো জয়’ ৪০০ পর্ব পেরিয়েছে। এখানে সুবিধাভোগী ও সুবিধা বঞ্চিত ছেলে-মেয়েরা সমান সুযোগ পেয়ে থাকে।

এটিএন বাংলার একটি বহুল প্রশংসিত অনুষ্ঠান ‘আমরা করবো জয়’। এই অনুষ্ঠানের আওতায় নির্মিত বিভিন্ন পর্ব দেশের টিভি মিডিয়ায় যোগ করেছে সাতটি আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি। ‘আমরা করবো জয়’ অনুষ্ঠানে প্রচারিত প্রামাণ্যচিত্র ‘আমরাও পারি’ প্রথমবারের মতো ৩২তম ইন্টারন্যাশনাল এমি অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে ২০০৪ সালে। ২০০৫ সালে প্রামাণ্যচিত্র ‘আমরাও বাঁচতে চাই’, ২০০৬ সালে প্রামাণ্যচিত্র ‘দীপুর জন্য এলিজি’ এবং ২০০৭ সালে ডকুড্রামা ‘বাঁচার আশা’ যথাক্রমে ৩৩, ৩৪ ও ৩৫তম এমি  অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনয়ন পায়। ২০০৬ সালে ‘দীপুর জন্য এলিজি’, ২০০৭ সালে ডকুড্রামা ‘বাঁচার আশা’ ২০০৯ সালে ‘ভয়েস অব চিল্ড্রেন’ ২০১০ সালে “সব বাধা পেরিয়ে”   এবং এবছর (২০১১ সালে) ‘বৈষম্য পেরিয়ে’  ইন্টারন্যাশনাল চিলড্রেনস ডে অব ব্রডকাস্টিং আঞ্চলিক পুরস্কার অর্জন করে। এই নিয়ে সপ্তম বারের মত সম্মানজনক আন্তর্জাতিক পুরস্কার বয়ে এনেছে এটিএন বাংলার ‘আমরা করবো জয়’-এর শিশু-কিশোররা।

বাংলাদেশ সময় ১৮৪০, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১১

করোনা প্রতিরোধে বাংলাদেশকে সহায়তা দেবে যুক্তরাজ্য
বরিশালে দুই ফটো সাংবাদিককে পিটিয়ে আহত করলো পুলিশ
করোনা: হবিগঞ্জের সড়কে সড়কে র‍্যাবের টহল ও মাইকিং
বীরবিক্রম শাফী ইমাম রুমীর জন্ম
সেই প্রবীণদের বাড়িতে ইউএনও, ফোনে কথা বললেন প্রতিমন্ত্রী


ইতালিতে করোনায় মৃত্যু ১০ হাজার ছাড়ালো
করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু: পুলিশি পাহারায় দাফন
যুক্তরাষ্ট্রে স্ত্রীসহ করোনায় আক্রান্ত কাজী মারুফ
করোনায় নাকাল দুস্থদের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ ইশরাকের
করোনা সন্দেহে মাদারীপুরে কলেজছাত্র আইসলেশনে