আসছে ছবি ‘বেইলী রোড’

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

রাজধানীর তারুণ্যের উচ্ছাসে মুখরিত এলাকা বেইলি রোড। আড্ডা প্রিয় তরুণ-তরুণীদের প্রিয় এই জায়গা ঘিরে গড়ে ওঠা গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে ছবি ‘বেইলী রোড’। ছবির নায়ক-নায়িকা, এমনকি পরিচালকও একদম নতুন। তবু ছবিটি উঠে এসেছে আলোচনায়। আগামী ৭ অক্টোবর ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে।

রাজধানীর তারুণ্যের উচ্ছাসে মুখরিত এলাকা বেইলি রোড। আড্ডা প্রিয় তরুণ-তরুণীদের প্রিয় এই জায়গা ঘিরে গড়ে ওঠা গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে ছবি ‘বেইলী রোড’। ছবির নায়ক-নায়িকা, এমনকি পরিচালকও একদম নতুন। তবু ছবিটি উঠে এসেছে আলোচনায়। আগামী ৭ অক্টোবর ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে।

ঢাকার তরুণপ্রজন্মের কাছে জনপ্রিয় এই এলাকার নাম নিয়ে মাসুদ কায়ানাত নির্মিত ছবি ‘বেইলী রোড’। এরই মধ্যে শুরু হয়েছে ছবিটির প্রমোশনাল প্রচার। ব্যতিক্রমী এই প্রমোশনাল দেখে ছবিটি সম্পর্কে আগ্রহী হয়ে উঠেছে অনেক দর্শক।

র্নিমাতা মাসুদ কায়নাত বড় পর্দায় নতুন হলেও মিডিয়ায় বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মাণের জন্য বেশ সুপরিচিত। এ পর্যন্ত প্রায় দুই শতাধিক বিজ্ঞাপনচিত্র তিনি নির্মাণ করেছেন। এছাড়া নির্মাতা হিসেবে মাসুদ কায়নাত-ই প্রথম বাংলাদেশী যিনি হিন্দি ভাষায় বিদেশী পণ্যের বিজ্ঞাপন দেশের বাইরে নির্মাণ করে আলোচিত হন। ছোট পর্দার একজন উপস্থাপক হিসেবেও তাকে চেনেন অনেকেই। বৈশাখী টেলিভিশনে প্রচারিত আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র বিষয়ক অনুষ্ঠান ‘লুক-থ্রো’ এবং এটিএন বাংলায় প্রচারিত টকশো ‘অন্যচোখে’-এর গ্রন্থণা ও উপস্থাপনায় তাকে দেখা গেছে।

প্রথম চলচ্চিত্র নির্মাণের অনুভূতি সর্ম্পকে নির্মাতা মাসুদ কায়ানাত বাংলানিউজকে বলেন, বিজ্ঞাপন নির্মাণ আর উপস্থাপনা সবকিছুর বাইরে আমার চিন্তা-চেতনা সবই ছিল চলচ্চিত্রকে ঘিরেই। দীর্ঘ দুই দশকের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে পদচারণার অভিজ্ঞতা নিয়ে নির্মাণ করেছি ‘বেইলী রোড’ ছবিটি। আশা করি চলচ্চিত্রটি দেখার পর বদলে যাবে এ দেশের দর্শকের চিন্তা-ভাবনা। তিনি আরো বলেন, যারা বলেন, সিনেমা হলে বসে ছবি দেখা হয় না। তাদের আমি এ ছবিটি দেখার জন্য সিনেমা হলে আমন্ত্রণ জানাচ্ছি। আমার বিশ্বাস ‘বেইলী রোড’ ছবিটি দর্শকদের সিনেমা হলে টেনে আনবে।

ঢাকার একটি বহুল আলোচিত জায়গার নামের সঙ্গে ছবির নামের মিল প্রসঙ্গে মাসুদ কায়নাত জানান, মিডিয়ার কাজ করতে আসা এক যুবক-যুবতীর প্রেম-ভালবাসা নিয়ে গড়ে উঠেছে ছবিটির গল্প। তাদের প্রেম-ভালোবাসা ঝগড়া-কলহ সবই হয় এই  বেইলী রোডেই। তাই ছবিটির নাম সঙ্গত কারণেই ‘বেইলী রোড’ রাখা হয়েছে।

‘বেইলী রোড’ছবির মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হতে যাচ্ছে সুপার হিরো নিলয় আলমগীরের। তার বিপরীতে অভিনয় করেছেন আরেক নতুন সেনসেশনাল মডেল আঁচল। অন্যান্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন  চন্দন চৌধুরী, লুৎফর রহমান জর্জ, কাজী হায়াৎ, কাবিলা, রেবেকা, শামীম, আনোয়ার শাহীসহ অনেকে।

ছবির কাহিনী, চিত্রনাট্য ও সংলাপ রচনা করেছেন নির্মাতা নিজেই। ড্রিম ভিউর ব্যানারে নির্মিত এই ছবির সংগীতায়োজনে রয়েছেন আবিদ রণী এবং গানে কণ্ঠ দিয়েছেন জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী রুনা লায়লা, আসিফ, এস আই টুটুল, ন্যান্সী, বাপ্পা মজুমদার, মিলা, কুমার বিশ্বজিৎ ও বারী সিদ্দিকী।

‘বেইলী রোড’ ছবিতে মিলা-বাপ্পার গাওয়া ‘দেহ গেলে কি যায়’ গানটি এরই মধ্যে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এই ছবির মাধ্যমেই প্রথম চলচ্চিত্রে প্লে-ব্যাক করেন মিলা।

বাংলাদেশ সময় ১৭৪০, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১১

নোয়াখালীতে মৃত যুবকের করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ
মোদীর করোনা তহবিলে ২৫ কোটি রুপি দিচ্ছেন অক্ষয় কুমার
কোভিড-১৯ সনাক্তকরণ কিট উদ্ভাবনে উদ্যোগ ঢাবির
করোনা: অতিরিক্ত সাড়ে ৬ কোটি টাকা, ১৩ হাজার টন চাল বরাদ্দ 
শ্বাসকষ্টে রোগীর মৃত্যু, করোনা আতঙ্কে বাড়ি ছাড়া প্রতিবেশীরা


সাগরপাড়ে রাত কাটানো সেই শিশুটির নতুন ঠিকানা ডিসি বাংলো
মানিকগঞ্জে ছিটানো হচ্ছে জীবাণুনাশক
করোনা: গুজব নিয়ে সতর্ক করেছে সরকার
করোনা: জিডিপির ১০ শতাংশ তহবিল গঠনের তাগিদ টিআইবির
করোনার রোগী বহনে গাড়ি প্রস্তুত ব্যারিস্টার সুমনের