ঈদ অডিও বাজারে এগিয়ে সিঙ্গেলস

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

একটা অ্যালবামেই একডজন গান পাওয়া এখন স্বপ্ন! দেশে সিঙ্গেল গান প্রকাশের চল এখন অনেকটাই প্রতিষ্ঠিত। এই ঈদে অডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলোর আয়োজন সেটাই জানান দিচ্ছে। সিঙ্গেল, ইপি (পাঁচটির কম গানের অ্যালবাম) আর হাতেগোনা মিশ্র অ্যালবাম- এই হলো ঈদের অডিও বাজারের চিত্র। 

একটা অ্যালবামেই একডজন গান পাওয়া এখন স্বপ্ন! দেশে সিঙ্গেল গান প্রকাশের চল এখন অনেকটাই প্রতিষ্ঠিত। এই ঈদে অডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলোর আয়োজন সেটাই জানান দিচ্ছে। সিঙ্গেল, ইপি (পাঁচটির কম গানের অ্যালবাম) আর হাতেগোনা মিশ্র অ্যালবাম- এই হলো ঈদের অডিও বাজারের চিত্র। 

এর মধ্যে কিছু গানের ভিডিও প্রকাশ পেতে শুরু করেছে। দেশের অন্যতম দুই ডিজিটাল মিউজিক প্ল্যাটফর্ম জিপি মিউজিক ও রবি ইয়ন্ডার অ্যাপসেও থাকছে এক্সক্লুসিভ সিঙ্গেলস আর ইপি। দেশের অডিও প্রতিষ্ঠানগুলোর কিছু গানও পাওয়া যাবে সেখানে। দেখা যাক সংগীতা, সিএমভি, লেজার ভিশন, জি-সিরিজ, অগ্নিবীণা, গানচিল মিউজিক, সিডি চয়েস, ঈগল মিউজিক, আজব রেকর্ডস, জিসান মাল্টিমিডিয়ার ঈদ আয়োজন। 

সংগীতা
এখান থেকে আসা সিঙ্গেলসগুলো হলো সন্ধি ও পড়শীর ‘ভালোবাসা ও আমি’, কনা ও কিশোরের ‘যদি তোমাকে না পাই’, পার্থ মজুমদারের সংগীতে সজলের ‘মা’ ও মেহরাব-অন্তরার ‘নিঃস্ব’, রেজওয়ান শেখের সংগীতে ‘কাঁচের দেয়াল’। এ ছাড়া আছে শহিদ, কর্নিয়া ও শাওনের ‘প্রাণ জ্বালা’, রয় ফিচারিং তরী (সাজু, সাফায়াত, শাওন, পলাশ), মিশ্র অ্যালবাম ‘সন্ধি বিচ্ছেদ’ (সালমা, আরজে আঁখি, সুমি শবনম, আরিফ রেজা, নীরব, কামরুল প্রমুখ)। 

সিএমভি
ফাহমিদা নবী, সামিনা চৌধুরী ও রমার গান নিয়ে ইপি ‘একই স্বপ্ন’। সুর সংগীত করেছেন বেলাল খান। মিনার, সভ্যতা, তানজীবের ‘শতেক ভুল’ নামের ইপি অ্যালবামের সুরকার ও সংগীত পরিচালক জয় শাহরিয়ার। একই সুরকারের সুরে শিলাজিতের ‘অসহায়’, রুপঙ্কর বাগচীর ‘আঁধারের বৃষ্টিতে’ নামের সিঙ্গেল দুটি থাকছে জিপি মিউজিকে। থাকছে পান্থ কানাইয়ের ইপি ‘দেহখাঁচা’। আসছে ঐশীর তৃতীয় একক ‘হাওয়া’। 

প্রায় আট বছর পর মিজান ফিরছেন ‘অন্য গ্রহের মানুষ’ একক অ্যালবাম নিয়ে। সংগীতায়োজন করেছেন মীর মাসুম ও আমজাদ হোসাইন। ছয় বছর পর আসছে ফজলুর রহমান বাবুর একক অ্যালবাম ‘হীরামন পাখি’। এতে গান থাকছে মোট ৭টি। গানগুলো সুর করেছেন নাজির মাহমুদ, সংগীতায়োজনে মুশফিক লিটু। 

অভি আকাশের সুর ও মুশফিক লিটুর সংগীতায়োজনে এফ এ সুমনের ইপি ‘শূন্য ফলাফল’। বেলাল খানের ইপি ‘প্রেমানুভূতি’তে একটি গানে দ্বৈত কণ্ঠ দিয়েছেন কোনাল। শিল্পী বিশ্বাসের একক অ্যালবাম ‘তালা’র সুর-সংগীতায়োজন করেছেন নাজির মাহমুদ, মুশফিক লিটু, আহমেদ কিসলু ও আব্দুল্লাহ খান।

ঈগল মিউজিক
এ প্রতিষ্ঠানের জন্য ইমরান প্রথমবার ‘প্রিয়া রে’ শিরোনামে সুফি ঘরানার গান করেছেন। সুর-সংগীতায়োজনে মার্সেল ও মাহমুদ। অন্য সিঙ্গেলসগুলো হলো- বিবেকের সংগীতে তানজীবের ‘কসম’, নিজের সুর-সংগীতে এফ এ সুমনের ‘ও পাখি রে’, তাসনুভের ‘বিরহ আমার’,  সমীরনের ‘বিন্দু থেকে আমি’, ইমন চক্রবর্তী ও স্বপ্নীল সজীবের কণ্ঠে ‘তুমি কোন কাননের ফুল’। এ ছাড়া বেরিয়েছে নিলয় বি.এইচ.এন-এর ইপি, নাঈমের অ্যালবাম ‘চাঁদ সুন্দরী’ এবং লেনিন ও মুনের ‘হৃদয় মিনারে’। ফোক ফিউশন অ্যালবাম ‘বাউলামী’তে গেয়েছেন ক্যাপ্টেন ও প্রিন্স মামুন। 

গানচিল মিউজিক
আসিফ ইকবালের নেতৃত্বে এ প্রতিষ্ঠানটি বেশ কয়েকটি সিঙ্গেলস এনেছে। এগুলো হলো মুনের সুরে তাহসানের ‘ভালোবেসে নিরুদ্দেশে’, মুনের গাওয়া ‘জেসমিন’ ও ‘ঝাড়ি’, প্রীতম হাসানের গাওয়া ‘যাদুকর’ ও ‘মুখোশ’, মমতাজের ‘মায়ের কোলে’, মিনার রহমানের ‘সময়’ ও ‘কি করি’, অদিতের সুর সংগীতে জন কবিরের ‘প্রতীক্ষা’, আরফিন রুমির ‘পাখি’, শাহতাজ ও বাম্মীর ‘উড়ে যাই’, মুনের সুর ও শাকের রেজার সংগীতে ‘তুই চলে যাবি’, বেলাল খান ও কনার দ্বৈত ‘কোথা পাবো আলো’, লুৎফর হাসানের ‘যদি কান্না কান্না লাগে’, কর্নিয়ার ‘শহর’, তানভীর তারেকের ‘আমি সাধারণ’, আল মাসুদের ফোক ফিউশন, সায়রা রেজার আরবান ফোকস, পৌলমি গাঙ্গুলীর রবীন্দ্রসংগীত, মুম্বাইয়ের রিংগো বসুর গান। 

এ ছাড়াও তরুণদের গানের মধ্যে উল্লেখযোগ্য শায়ান রাসেলের ‘হাত বাড়িয়ে’, শ্রাবণ খানের ‘কেনো কাটে না সময়’, আকাশ দে’র ‘ক্ষয়’, শাহেদ মাহমুদের ‘স্বপ্নডানা’, ঊর্মি খানের ‘ঊর্মি’, প্রমারর ‘অলস মনে’, তারেকের ‘ছেঁড়া স্বপ্ন’, রাজীবের ‘বন্ধু আমার’, সাইফুরের ‘অদ্ভুত অনুভূতি’, রুবেল খানের ‘জীবনের গল্পে তুমি’, ফিরোজের ‘খেলাঘর’, আলমগীর কবিরের ‘পৌষের মাঠ’, আরিয়ানের ‘মনে পড়ে’। 

জি সিরিজ ও অগ্নিবীণা 
শেখ সাদী খানের সংগীতে সৈয়দ আবদুল হাদী, সুবীর নন্দী, সাবিনা ইয়াসমিন, এন্ড্রু কিশোর ও কলকাতার শুভমিতার গান নিয়ে মিশ্র অ্যালবাম ‘নক্ষত্রের ফুল’, অমিত করের সংগীতে ‘প্রেম মানে না কাঁটাতার’ (কুমার বিশ্বজিৎ, কাজী শুভ, কিশোর, তানভীর তারেক, শান, পুলক, মুহিন প্রমুখ)। 

মিশ্র অ্যালবামের মধ্যে আরও আছে ‘দূর আকাশের তারা’ (সুবীর নন্দী, কনকচাঁপা, হাসান চৌধুরী, বাদশা বুলবুল, মুহিন, ঊমা খান, সুমন রাহাত), নূরুল হকের সুর-সংগীতে ‘পূর্ণিমার চাঁদ’ (রথীন্দ্রনাথ রায়, নাজু, আবু বকর সিদ্দিক, সুজন সাধক প্রমুখ), শানের সুর-সংগীতে ‘মুঠো আকাশ’ (রূপঙ্কর, নন্দিনী, শেখ মহসীন, শান, শায়লা মোস্তফা, লতা, স্বপ্নীল রাজিব, মারিয়া, নিশা)। থাকছে আর্টসেল ও ব্ল্যাকের নতুন অ্যালবাম, স্কয়ারক্রো ব্যান্ডের অ্যালবাম, ব্যান্ড মিশ্র ‘সংশোধন’। 

‘চিটাগাং-এর গান’ অ্যালবামে আছে সন্দীপন, বেলী আফরোজ, নিশিতা বড়ুয়া ও মুন সুরের কণ্ঠ। একক অ্যালবামের তালিকায় আছে ‘ক্লোজআপ ওয়ান’খ্যাত লায়লার প্রথম একক অ্যালবাম ‘আমার কুঞ্জে’, হাসান চৌধুরীর ‘ভালোবাসার গল্প’, এহসান রাহির সেলফ টাইটেল্ড অ্যালবাম, এফএ সুমনের ‘তোর লাগিরে’, মোহাম্মদ খালেদ হোসেনের কণ্ঠে কাজী নজরুল ইসলামের হামদ ও নাত ‘আল্লাহ নামের বীজ বুনেছি’, এমআর হেলালের ‘দূরে গেলে’, মামুন জাহানের ‘ফিরে এসো মধুমিতা’। 

লেজার ভিশন 
এ প্রতিষ্ঠান বাজারে এনেছে দিলরুবা খানের ইপি ‘মনের পাখি বনে’, ফকির লালন শাহর গান নিয়ে অয়ন চাকলাদার ফিচারিং ‘তিন পাগল’ (কাজী শুভ, অয়ন চাকলাদার ও ইভান ইভু)। একক অ্যালবামগুলো হলো খেয়ার ‘খেয়া’, সাজুর একক ‘দমের পাখি’, লাবণীর ‘জানিনা পথ চলতে’, শবনম আবদীনের ‘টিল সেপ্টেম্বর...ইন্তেজার’, সজীব দাসের সুর-সংগীতে শিপুর ‘বৃষ্টি দুপুর’, সজীব দাসের সুর-সংগীতে ওয়ালিদ আহমেদের ‘জিততে চাইনি’, জুবায়ের টিপুর ‘কী বলে হৃদয়’ প্রভৃতি।

মিশ্র অ্যালবামের তালিকায় আছে ‘উড়ু উড়ু মন’ (শেখ শায়লা, এলিন আরা মিতু, এফ এইচ সুজন, রাদিব ও ওবায়দুর রহমান), সজীব শাহরিয়ারের কথায় ‘প্রাণ বন্ধুয়া’ (কাজী শুভ, শিমুল খান, পুলক, বেলী আফরোজ, গামছা পলাশ, চম্পা বনিক), ওবায়দুর রহমান ফিচারিং ‘পিরিতি শিখাইলো মোরে’ (সাজু, লায়লা, টুটুল খান, খোকা খান)।

হারানো দিনের গান নিয়ে এসেছে তিনটি অ্যালবাম। এগুলো হলো ‘ওলো সুন্দরী তুই ঘরে আয়’ ও ‘বিয়ার সাজনী সাজো’ (ফেরদৌসী রহমান, আব্দুল আলীম, আব্দুল লতিফ, বেলা খান, ইসমত আরা, নীনা হামিদ, মাহবুবা রহমান, মোমতাজ আলী খান) এবং সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়, প্রতিমা বন্দোপাধ্যায় ও গীতা দত্তের হারানো দিনের গান নিয়ে মুনতারীন মহলের ‘চুপি চুপি বাঁশি বাজে’। 

সিডি চয়েস
এ প্রতিষ্ঠানের অন্যতম আকর্ষণ কুমার বিশ্বজিৎ, বাপ্পা মজুমদার ও ইমরান ও মিনারের সঙ্গে ন্যানসির অ্যালবাম ‘ন্যানসি উইথ স্টারস’। ‘সুলতানা বিবিয়ানা’ ছবির গানের অ্যালবামে আছে মমতাজ, হাবিব, ন্যানসি, পারভেজ, ইমরান, পড়শী ও কলকাতার আকাশ সেনের গান। 

‘সেই মেয়েটা’ অ্যালবামে গেয়েছেন তাহসান, মিথিলা, তাহসিন আহমেদ, কুহু মান্নান, লোপা হোসেন, নির্জ হাবিব। মিশ্র অ্যালবামের তালিকায় আরও আছে ‘মিলনের গল্প’, রেজোয়ান শেখের সুর-সংগীতে ‘ছুঁয়ে ছুঁয়ে’ (কাজী শুভ, খেয়া, শফিক তুহিন, ঝিলিক, জুয়েল মোর্শেদ, স্বরলিপি, ইলিয়াস, মোহনা, মিলন, আশফা, লুৎফর হাসান ও লাবণ্য), ‘বুকের ভিতর’ (রকস্টার শুভ, আরফিন রুমি, কাজী শুভ, পড়শী, মিলন, স্বরলিপি, সাফায়েত প্রমুখ), ‘দুঃখ বলি’ (কনা, ইমরান, কাজী শুভ, মিলন, আশফা, সাফায়েত, সাগর, লাবণ্য, ইভান ইভু, আবিদ শীতল), ‘সমীর মিক্সড ২০১৬’ (বেলাল খান, ঝিলিক, শান, কোনাল, কর্নিয়া, ফিরোজ কবির ডলার, শামস্, লিসপা লায়লা, শ্রাবণ, সুমিত, সমীর ও মারিয়া), অয়ন ফিচারিং ‘অন্য মানুষ’ (কাজী শুভ, আশফা, সাফায়েত, সাগর, ইতি, অয়ন চাকলাদার প্রমুখ)।

ইপির মধ্যে আছে মিনারের ‘দেয়ালে দেয়ালে’, সাফায়েত, ন্যানসি ও আশফার ‘ভালো রাখার উপায়’। সিঙ্গেলসগুলো হলো হাবিব ওয়াহিদ ও নির্ঝরের গাওয়া নাটকের গান ‘মেঘে ঢাকা শহর’, বনি আহমেদ সুর-সংগীতে তাহসানের ‘ভালোবাসার পংক্তিমালা’, সাজিদ সরকারের সুর-সংগীতে তাহসান ও মিথিলার ‘তোমার আমার’, পড়শী ও জুয়েল মোর্শেদের ‘মন ভুইলা’, মিলনের ‘আকাশ বদলে’, সমীরের ‘যারে পাখি’ প্রভৃতি। 

আজব রেকর্ডস
এ প্রতিষ্ঠান থেকে আসা সিঙ্গেলসের মধ্যে রয়েছে মমতাজের ‘চালক’, জয় শাহরিয়ারের ‘স্বপ্ন পাখির ডানা’, পারভেজের ‘আলো আঁধারি’, পুজার ‘তোমাকে ভালবাসি’, রাদিতের ‘আমার আপনার চেয়ে আপন যে জন’। ইপির মধ্যে আছে নাবিদ সালেহিনের সুরে ‘যা ইচ্ছে তোমার’ (সন্ধি, জয় শাহরিয়ার, নাওমী), নাসিফ অনির সুরে ‘কতোটা ভালোবাসি’ (পারভেজ, রন্টি, নদী, তৌসিফ, কাজী শুভ, ইলিয়াস হোসেন)। একক অ্যালবামের মধ্যে আছে অভ্রর ‘বৃষ্টিদিন’ ও আসিফ শুভর ‘মৃত শহর’।

অ্যাডবক্স
এখান থেকে বের হচ্ছে চারটি অ্যালবাম ও একটি সিঙ্গেল। এসআই টুটুলের ‘স্বপ্ন দেবো’ গানটির সুর-সংগীত করেছেন আহমেদ হুমায়ূন। অ্যালবামগুলো হলো ফেরদৌস ওয়াহিদ, ফাহমিদা নবী ও আগুনের ‘তিন তারা’ (শাহরিয়ার বেলালের কথা-সুরে সংগীতায়োজন করেছেন রেজওয়ান শেখ), কণ্ঠশিল্পী তৌসিফ ও রেজওয়ানের সুরে সালমার  ‘দরদ’, তৌসিফ ও নদীর ‘মন যদি চায়’, ‘ডিজে রাহাত উইথ স্টারস’ (ন্যানসি, কনা, জুলি, কোনাল ও ঐশী)। 

জিসান মাল্টিমিডিয়া
এখান থেকে বেরিয়েছে লিজা ও নদীর দ্বৈত অ্যালবাম ‘চাঁদমুখ’, জেনস সুমন ও কাজী শুভর দ্বৈত অ্যালবাম ‘ফিরে আসা’, মিশ্র অ্যালবাম ‘দেখো না’ (ন্যানসি, প্রতীক হাসান, নদী, শাহরিয়ার বাঁধন, এসডি সাগর, ইয়াসমিন লাবণ্য, মিজান, শুভ রহমান, এফ এ প্রীতম ও রুবেল ওয়াহিদ)। 

বাংলাদেশ সময়: ১৯০৫ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৬
এসও/জেএইচ

তিন সপ্তাহের জন্য ছিটকে গেলেন মেসি
আড়াইহাজারে গুলিবিদ্ধ ৪ মরদেহ উদ্ধার
দ্বিতীয় গণভোটের দাবিতে লন্ডনের রাজপথে লাখো মানুষ
ভালুকায় অসাবধানতায় প্রাণ গেলো শ্রমিকের 
মধুপুরে ইয়াবাসহ পৌর কাউন্সিলর ও ২ সহোদর আটক
সালাহ’র নৈপুণ্যে লিভারপুলের জয় 
অদ্ভুত ইন্টারনেট চ্যালেঞ্জ!
নেইমার ছাড়া দাপুটে জয় পিএসজি’র
বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টের চমক সুলতান মনসুর!
সিলেট চেম্বারের চ্যাম্পিয়নশিপ অ্যাওয়ার্ড লাভ