লাক্স-কান কথা

মেয়রের মধ্যাহ্নভোজে দেড় ঘণ্টা

জনি হক, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

নীল আকাশের নিচে একপাশে সাগরের নীল জলরাশি। তীরে শতাধিক নৌযান। একটু দূরে দুই-তিনটি ইয়ট। এগুলোর কাছাকাছি দেখা যাচ্ছে হেলিপ্যাড। একটা হেলিকপ্টার উড়ে এসে নামলো সেখানে। সাগরের অন্যপাশে বিশাল পাহাড়। তার মধ্যেই ঘর-বাড়ি, রিসোর্ট, হোটেল, অফিস-আদালত দৃশ্যমান।

কান (ফ্রান্স) থেকে: নীল আকাশের নিচে একপাশে সাগরের নীল জলরাশি। তীরে শতাধিক নৌযান। একটু দূরে দুই-তিনটি ইয়ট। এগুলোর কাছাকাছি দেখা যাচ্ছে হেলিপ্যাড। একটা হেলিকপ্টার উড়ে এসে নামলো সেখানে।

সাগরের অন্যপাশে বিশাল পাহাড়। তার মধ্যেই ঘর-বাড়ি, রিসোর্ট, হোটেল, অফিস-আদালত দৃশ্যমান। সবুজ গাছ-গাছালি তো আছেই। সব মিলিয়ে নয়নাভিরাম সৌন্দর্য। দেখলেই মন জুড়িয়ে যায়। যে কোনো পর্যটকের জন্যই জায়গাটি কাঙ্ক্ষিত।
 
তবে দক্ষিণ ফ্রান্সের শহর কানের সব স্থান থেকে একসঙ্গে এতোকিছু দেখার সুযোগ নেই। প্যালেস ডি লা ক্যাস্টরে এলেই কেবল এই অভিজ্ঞতা নেওয়া সম্ভব। এখানে দাঁড়িয়ে শহরের প্রায় পুরোটাই দেখে ফেলা যায়!

এটি ঐতিহ্যবাহী লে শুকে নামক জায়গায় অবস্থিত। এখানেই কানের মেয়র ডেভিড লিসনার্ডের কর্মস্থল।
 
উৎসবের মূলকেন্দ্র প্যালে ডি ফেস্টিভ্যাল থেকে মিনিট তিনেক হাঁটলে হোটেল দি ভিলের সামনে দাঁড়িয়েই প্যালেস ডি লা ক্যাস্টরের মনোরম স্থাপনার উপরিভাগ দেখা যায়। আভিজাত্য বুঝি একেই বলে।

মূল সড়ক থেকে পাহাড়ি পথ বেয়ে ওপরে উঠতে হয়। নিচু থেকে উঁচু পথ। হাঁটলে মনে হয় পিছিয়ে যাচ্ছি! সেই পথ শেষ হলে ধাপে ধাপে আছে সিঁড়ি। পাঁচ মিনিট ধরে সিঁড়ি বেয়ে ওঠার পর বাদ্যযন্ত্রের সুর শোনা গেলো।

কানের গত আসরে এখানে আসার অভিজ্ঞতা হয়েছিলো। উৎসবে অংশ নেওয়া বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের সাংবাদিকের সম্মানে মধ্যাহ্নভোজের আয়োজন করে থাকেন মেয়র ডেভিড লিসনার্ড। গতবারের মতো এবারও আমন্ত্রণ পেয়েছিলাম আমি। তবে সবার ভাগ্য এমন সুপ্রসন্ন হয়নি।

কারণ উৎসবে আমন্ত্রিত সংবাদকর্মীর সংখ্যা প্রায় সাড়ে চার হাজার। এতো মানুষকে তো আর জায়গা দেওয়া সম্ভব না। তাই অনেকের প্রেস বক্সেই আসেনি এই নিমন্ত্রণের বার্তা।

শুক্রবার (২০ মে) উৎসবের ৬৯তম আসরের দশম দিনে মেয়র নেমন্তন্নের সময় উল্লেখ করেছিলেন দুপুর সাড়ে ১২টা। নির্ধারিত সময়ের আগেই হাজির হলাম। প্যালেস ডি লা ক্যাস্টেরের ফটকে অতিথিদের হাতে কোমল পানীয়র প্লাস্টিকের গ্লাস দেওয়া হচ্ছে।
 

ঢোকার পথে দু’পাশে বাহারি সাজে দাঁড়িয়ে আছেন বয়স্ক মহিলারা। তারাই মূলত অভ্যর্থনা জানাচ্ছেন। তাদের সবার মাথায় সাদা কাপড়। একজন পরেছেন কালো হ্যাট। ভেতরে ঢুকতেই দেখলাম ডান পাশে একদল বাদ্যযন্ত্র শিল্পী বাজাচ্ছেন। সবাই বুড়ো। তাদের বাজানো সুরই শুনছিলাম বাইরে থেকে।

অন্যপাশে মেয়রের দেওয়া নিমন্ত্রণপত্র জমা নিয়ে দেওয়া হচ্ছে অলিভ অয়েল। সঙ্গে শহরের সৌন্দর্য রক্ষায় সচেতনতামূলক লিফলেট। এতে বলা হয়েছে খোলা জায়গায় পানি বা যত্রতত্র ক্যান ফেললে ১৮০ ইউরো জরিমানা হবে।

 নিচে লেখা- ‘অসামাজিক ব্যবহার পরিহার করুন। এই শহর আমাদের ঘর। এর দেখভাল করুন।’ অলিভ অয়েল নিয়ে ফাঁকা আসনের একটিতে বসলাম। এই তেল দিয়ে বানানো একটি রেসিপি টেবিলে আগে থেকেই পরিবেশন করা আছে। সঙ্গে রেড ওয়াইন ও হোয়াইট ওয়ানের বোতল। পানিও আছে।

প্যালেস ডি লা ক্যাস্টেরের ওপরের অংশে রাখা বিশাল একটি ঘড়ি বেজে উঠলো। সাড়ে ১২টা বাজতেই বুফেতে খাবার পরিবেশন করা শুরু হলো। তখন লোকে গিজগিজ করছে জায়গাটা। মুখ ঘোরাতেই চোখে পড়লো দৃষ্টিনন্দন একটি ভাস্কর্য। এর ওপর একটি বালিহাঁস বসেছে।

ছবি তুলছি বুঝতে পেরেই কি-না হঠাৎ সেটা উড়তে লাগলো। নিমন্ত্রণপত্রে মেয়র উল্লেখ করেছেন, ‘ফরাসি রেসিপির মধ্যাহ্নভোজের মাধ্যমে কানের আরেকটি দিক সম্পর্কে জানার সুযোগ হবে আপনাদের। উৎসবে অংশগ্রহণকারীদের অনেকেই এই স্বাদ পান না।’ মেন্যুতে পেলাম সামুদ্রিক মাছ, সবজি, ডিম, মিষ্টান্ন খাবার।

খাওয়া শেষে একেবারে সামনে জটলা বেঁধে দাঁড়িয়ে থাকা উৎসুক সাংবাদিকদের সঙ্গে শামিল হলাম। সেখানে একটি টেবিলের সামনে ব্যারিকেড দেওয়া। পায়চারি করছেন নারী ও পুরুষ পুলিশ।

এখানে বসে খাবেন ৬৯তম কান চলচ্চিত্র উৎসবের মূল প্রতিযোগিতা বিভাগের বিচারকরা। সাংবাদিকদের বাইরে একমাত্র তাদেরকেই মধ্যাহ্নভোজের নেমন্তন্ন পাঠিয়েছেন মেয়র। তারা আসবেন আসবেন করে অপেক্ষা করছি। অবশেষে দুপুর পৌনে দুইটায় এলেন তারা।

অস্ট্রেলীয় পরিচালক, চিত্রনাট্যকার ও প্রযোজক জর্জ মিলারের নেতৃত্বে এলেন ফরাসি পরিচালক ও লেখক আহনু ডিপলিশা, মার্কিন অভিনেত্রী ক্রির্সটেন ডান্সট, ইতালিয়ান অভিনেত্রী, পরিচালক, লেখক ও প্রযোজক ভ্যালেরিয়া গোলিনো, ডেনমার্কের অভিনেতা ম্যাডস মিকেলসেন, হাঙ্গেরির পরিচালক ও লেখক লাজলো নেমেস, ফরাসি অভিনেত্রী ও গায়িকা ভ্যানেসা প্যারাডিস, ইরানি নারী প্রযোজক কাতাইয়ু শাহাবি এবং কানাডিয়ান অভিনেতা ডোনাল্ড সাদারল্যান্ড।

তাদের বিচারেই চূড়ান্ত হবে উৎসবের সর্বোচ্চ পুরস্কার স্বর্ণপাম জয়ী ছবি। তাদেরকে এখানে পৌঁছে দিয়ে চলে গেলেন উৎসব পরিচালক থিয়েরি ফ্রেমো।

বিচারকরা আসতেই যার যার ক্যামেরা চালু হলো। ‘স্পাইডার ম্যান’খ্যাত অভিনেত্রী ক্রিস্টেন স্টুয়ার্ট ও জেমস বন্ড সিরিজের ‘ক্যাসিনো রয়েল’ ছবির অভিনেতা ম্যাডস মিকেলসেনের সঙ্গে সুযোগ পেয়ে সেলফি তুললাম। ক্রিস্টেন তো নাচের ভঙ্গিতে আমার সেলফিতে অংশ নিলেন, এরপর হাসিতে গড়াগড়ি খেলেন বলা যায়।
 
বিচারকদেরকে খেতে দিয়ে ছুটলাম প্যালে ডি ফেস্টিভ্যাল ভবনের দিকে। ওখানে দুপুর আড়াইটায় ছিলো ‘দ্য লাস্ট ফেস’ তারকা শন পেন, শার্লিজ থেরন ও হাভিয়ার বারদেমের সংবাদ সম্মেলন।

প্যালেস ডি লা ক্যাস্টর থেকে নিচে নামতে গিয়ে দেখলাম ফটোসেশন হচ্ছে। ছোটবড় বিভিন্ন বয়সী কয়েকজন সাধারণ মানুষ সেজেগুজে ছবির জন্য আলোকচিত্রীর সামনে দাঁড়িয়েছেন।
 
সড়কে বেরিয়ে পামবাস স্টেশনের ওপর চোখ রাখলাম ইচ্ছে করে। গত বছর এখানে কোয়েন্টিন টারান্টিনোর নাচের ছবি দেখেছি। এখন দেখছি সিলভেস্টার স্ট্যালোন ও মেল গিবসনের যুগলবন্দি। ঠিক বিপরীত দিকে একটি ভবনে লেখা কান সিনেমা।

কান শহরটা আসলে সিনেমারই! সিনেমা বাদ দিলে শহরটা হয়ে যাবে ম্রিয়মাণ। উৎসব যতোদিন ততোদিনই জমজমাট থাকে কানসৈকত। তাই ১২ দিনের এই আয়োজনে ঘটে মিলনমেলা।

** ছক্কা হাঁকানোর দিনে!
***কান হয়ে উঠলো বাংলাদেশময়
** মল্লিকার উড়ন্ত চুম্বন
**
সোনমের পোশাক নিয়ে হাসাহাসি
** রাসেল ক্রো ও রায়ান গসলিংয়ের সঙ্গে সেলফি

** চলচ্চিত্রের মহাযজ্ঞে তুমুল ব্যস্ত দিন
** মারিয়ন ছড়ালেন ফরাসি সৌরভ

** কান ক্ল্যাসিকসে খান আতার ছবি
**
নতুন নতুন ও ধ্রুপদী ছবির মিলনমেলা
**বৃষ্টিভেজা কান...
**ঐশ্বরিয়া পেলেন লাল গোলাপের তোড়া

**স্টিভেন স্পিলবার্গের খুব সামনে
** লালগালিচায় তৌকীর-বিপাশা
**প্রস্তুতি ছাড়াই কান মাতালেন ঐশ্বরিয়া
** পাগলা হাওয়ার তোড়ে...
** এই রাত ক্লুনি-আমালের!
***আরাধ্যকে নিয়ে কানে ঐশ্বরিয়া

***জুলিয়া রবার্টসের পায়ে জুতা নেই!
***তোমরা ভুলে গেছো মল্লিকার নাম!
***জুলিয়েট বিনোশকে দেখে চোখ ফেরানো দায়!
***এক প্যাকেট বাদাম দুই ইউরো
**মন কেড়ে নেওয়া গল্পগুলো
**কান উৎসবের বাজেট ২ কোটি ইউরো!
**বাংলানিউজের ক্যামেরাবন্দি জুলিয়া রবার্টস ও জর্জ ক্লুনি
**দেখুন কানে কি না হয়!

** পর্দা উঠলো কান উৎসবের
** হেঁটেছি স্বপ্নের লাল গালিচায়
** শুরুর আগেই জমে উঠেছে লড়াই!
** বিচারকদের সামনে বাংলানিউজ
** সারারাত বৃষ্টির পর ‘ক্যাফে সোসাইটি’
** ইস্তাম্বুলে আইসক্রিম কিনলে ওয়াইফাই ফ্রি!
** ব্যাজের সঙ্গে ব্যাগভর্তি কাগজপত্র দিলেন আয়োজকরা
** কান উৎসবের পর্দা ওঠার অপেক্ষা
বাংলাদেশ সময়: ১৪১২ ঘণ্টা, মে ২১, ২০১৬
জেএইচ/

লাম্পি স্কিন রোগে ২০ গরুর মৃত্যু, দিশেহারা খামারিরা
আগরতলায় ঘূর্ণিঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি
আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ দ্রুত মেরামত করা হবে
অপ্রয়োজনে ঘোরাঘুরি না করতে তথ্যমন্ত্রীর অনুরোধ
নিয়ম মেনে সীমিত অফিস ১৫ জুন পর্যন্ত, অন্য নিষেধাজ্ঞা বহাল


দুর্যোগে নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান করা বিএনপির রাজনীতি
ঢাকা ছাড়লেন ১৭০ ভারতীয় নাগরিক
কুষ্টিয়ায় ৭২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত, ফসলের ক্ষতি
১২টি করোনা টেস্টিং বুথ বসানোর উদ্যোগ মেয়র নাছিরের
আড়াইহাজারে দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ একজন নিহত