গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি ঠেলে রাজশাহীতে বাড়ছে ভোটারের লাইন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

চলছে রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ

walton

রাজশাহী: গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি উপক্ষো করেই রাজশাহীতে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। সোমবার (৩০ জুলাই) সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। তবে এর আগেই লম্বা লাইনে দাঁড়ান ভোটাররা। ভোটগ্রহণের শুরুতেই নগরীর বিভিন্ন কেন্দ্রে নারী ভোটার ভিড় চোখে পড়ার মত। বেলা যত বাড়াছে ভিড় ততই বাড়ছে। 

রাজশাহী সিটি করপোরেশনে এবার প্রথমবারের মতো মেয়র পদে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মেয়র পদে পাঁচ প্রার্থী হলেন- আওয়ামী লীগের এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন (নৌকা), বিএনপির মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল (ধানের শীষ), বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী হাবিবুর রহমান (কাঁঠাল), গণমঞ্চ ও গণসংহতি আন্দোলনের মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট মুরাদ মোর্শেদ (হাতি) ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মেয়র প্রার্থী শফিকুল ইসলাম (হাত পাখা)। তবে নির্বাচন পর্যবেক্ষকদের মতে মূলত নৌকা ও ধানের শীষের প্রার্থীর মধ্যেই হবে আসল লড়াই।

সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া ভোটগ্রহণ বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলবে। 

রাসিক নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা শেষ হয় শনিবার (২৮ জুলাই) দিনগত রাত ১২টায়। 

নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার আতিয়ার রহমান বাংলানিউজকে জানান, নির্বাচনে মোট প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর সংখ্যা ২১৭ জন। এর মধ্যে মেয়র পদে প্রার্থী রয়েছেন পাঁচজন। আর ৩০টি সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে আছেন ১৬০ জন প্রার্থী। এছাড়া ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের নারী কাউন্সিলর পদের প্রার্থী ৫২ জন।

এবার সিটি করপোরেশনের ভোটার সংখ্যা তিন লাখ ১৮ হাজার ১৩৮ জন। মোট ভোটারের মধ্যে এক লাখ ৬২ হাজার ৫৩ জন নারী ভোটার এবং পুরুষ ভোটার এক লাখ ৫৬ হাজার ৮৫ জন। 

রাজশাহীতে এবার মোট ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১৩৮টি এবং বুথের সংখ্যা রয়েছে ১ হাজার ২০টি। প্রতিটি কেন্দ্রে একজন করে প্রিজাইডিং অফিসার দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া প্রতিটি বুথে একজন করে সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার এবং দুইজন করে পোলিং অফিসার দায়িত্ব পালন করছেন। এবার নগরীর দুইটি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ হচ্ছে। কেন্দ্র দুইটি রাজশাহীর বিবি হিন্দু একাডেমিতে। সেখানে আলাদাভাবে নারী ও পুরুষ ভোট কেন্দ্র রয়েছে।

এখানকার ইভিএমে পুরুষ ভোট কেন্দ্রে ভোটার রয়েছেন এক হাজার ৬৩৭ জন। আর নারী ভোট কেন্দ্রে ভোটার এক হাজার ৭৪৬ জন। পুরুষ কেন্দ্রে ৫টি এবং নারী কেন্দ্রে বুথ রয়েছে ৬টি। 

এছাড়া ১৩৮টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে এবার ১১৪টি কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ। তবে এই কেন্দ্রগুলো বাড়তি সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে ১৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

আতিয়ার রহমান বলেন, সিটি করপোরেশনের ৩০টি ওয়ার্ডে ৩০ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন। আর সংরক্ষিত ১০টি ওয়ার্ডের জন্য ১০ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রয়েছেন। প্রয়োজনে তারা মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করবেন।
 
এছাড়া সিটি করপোরেশনের প্রতিটি ওয়ার্ডের জন্য পুলিশের একটি করে মোবাইল টিম কাজ করছে। আর পুলিশ, র‍্যাব ও বিজিবির সমন্বয়ে গঠিত দুইটি করে ওয়ার্ডের জন্য একটি করে স্ট্রাইকিং ফোর্স রয়েছে। অর্থাৎ ১৫টি স্ট্রাইকিং ফোর্স ৩০টি ওয়ার্ডের নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছে। সার্বিক নিরাপত্তার দায়িত্বে ১ হাজার ৯০০ জন আনসার, ৩ হাজার পুলিশ ও ৪০০ র‌্যাব সদস্য কাজ করছেন। আনসার, পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি সদস্যরা নির্বাচনের সময় যৌথভাবে আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণের কাজ কাজ করছেন।

রাসিক নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার সৈয়দ আমিরুল ইসলাম জানান, সকাল থেকে সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলছে। এখন পর্যন্ত কোথাও থেকে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। পেলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ সময়: ০৮৫৩ ঘণ্টা, জুলাই ৩০, ২০১৮
এসএস/এইচএ/

ময়মনসিংহে কর্মহীনদের পাশে মহানগর যুবলীগ
করোনো: সাতক্ষীরায় মানুষকে ঘরে ফেরাতে কঠোর হচ্ছে পুলিশ
কোয়ারেন্টিন না মানায় সিলেটে প্রবাসীকে জরিমানা
শিগগিরই প্রস্তুত হচ্ছে বসুন্ধরার হাসপাতাল 
করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের পাশে থাকবে চীন


করপোরেট কর হার ১০ শতাংশ চায় বিসিআই 
গজারিয়ায় শিশুর মৃত্যুতে করোনা আতঙ্ক
অজ্ঞাত রোগে দীঘিনালা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি আরো ৮ শিশু
করোনা: টোকিও অলিম্পিকের নতুন সূচি ঘোষণা
অসহায়-দিনমজুর ২০০ পরিবারে ডবলমুরিং থানার সহায়তা