পুণ্যভূমিতে শান্তির ভোট প্রত্যাশা প্রার্থী-ভোটারদের

মফিজুল সাদিক, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বাংলানিউজ কথা বলে সিলেট নগরীর ভোটারদের সঙ্গে। ছবি: বাংলানিউজ

walton

সিলেট থেকে: সিলেট, ৩৬০ আউলিয়ার এ পুণ্যভূমিকে বাংলাদেশের আধ্যাত্মিক রাজধানীও বলা হয়। দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের অফুরন্ত সবুজের ‘চায়ের দেশে’ ৩০ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে ভোট উৎসব, সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) নির্বাচন। দেশের অন্য অঞ্চলের চেয়ে এখানকার রাজনীতি ভিন্ন। হযরত শাহজালাল ও শাহপরান (র.) এর সম্প্রীতির শহরে রাজনৈতিক কলহ নেই বললেই চলে। সেজন্য বরাবরের মতো এবার সিসিক নির্বাচনেও শান্তির ভোট প্রত্যাশা করছেন ভোটার, এমনকি প্রার্থীরাও।
 
 

বুধবার (২৫ জুলাই) সকালে সিসিকের কয়েকটি এলাকা ঘুরে ভোটার-প্রার্থীদের সঙ্গে কথা বলে এই আশাবাদের কথা জানা যায়। ভোটারদের আশা, ফলাফল যা-ই হোক, প্রার্থীরা তা মেনে নেবেন।

করপোরেশনের ১৬ নং ওয়ার্ডের (সারা দীঘির পাড়) বাসিন্দা আবির হোসেন হাওলাদার। তিনি পেশায় শিক্ষক। আসন্ন ভোটের পরিবেশ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সিলেট শহরকে অন্য শহরের সঙ্গে তুলনা করলে হবে না। এটা ৩৬০ আউলিয়ার পুণ্যভূমি। এখানে ভোটের মাঠে কোনো দিন বিশৃঙ্খলা হয় না। আশা করি এবারও সেই পরিবেশ বজায় থাকবে। আমাদের ছোট শহরে সবাই মিলেমিশে বসবাস করি। সকালে উঠেই আমরা একে অপরের খোঁজ-খবর রাখি। এখানে আওয়ামী লীগ-বিএনপির চেয়ের আত্মিক বন্ধন বেশি শক্ত।’

বর্তমানে সিলেটজুড়েই মোটামুটি শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় আছে। দু’একজন প্রার্থী মারামারির অভিযোগ করলেও বাস্তবে তেমন ঘটেনি। আওয়ামী লীগ-বিএনপির কর্মীদের মধ্যেও সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশ বজায় রয়েছে।
 
১৯ নং ওয়ার্ড রায়নগরে চলছে শান্তিপূর্ণ প্রচার-প্রচারণা। এই ওয়ার্ডের ভোটার সুমন মাতবর বলেন, ‘সিলেটে ভুটে বিশৃঙ্খলা হইছে না। এবার ভুটের পরিবেশ ভালো। এর আগেও সুষ্ঠ নির্বাচন হইছে। আমরার এখানে কোনো গ্যানজাম গুনজাম (বিবাদ) হইছে না। আশা করি ইবারও কোনো গ্যানজাম হইতো না। আমরা সকালে উঠে একজনের মুখ আরেকজন দেখি, বিএনপি-আওয়ামী লীগ সবার ভাই ভাই।’
 
আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান বাংলানিউজকে বলেন, আমরা বলতে পারি সম্প্রীতির শহর সিলেট। এখানে রাজনীতিতেও সম্প্রীতি বিদ্যমান। এখন পর্যন্ত নগরীতে নির্বাচনের ভালো পরিবেশ রয়েছে। আশা করছি শান্তিপূর্ণভাবে অবাধ ও নিরপেক্ষ এবং সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। 

বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের সুরে সুর মিলিয়ে ২০ দলীয় জোট সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, আমরা ঐক্যবদ্ধ। ভোটারদের মাইন্ড সেট আছে। আমি আগেও বলেছি এই মাটি পবিত্র। এখানে কারও ভোটের অধিকার হরণ করা যাবে না, করলেও তার ফল ভালো হবে না।
 
সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে ছয় জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১২৭ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৬২ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ সিটিতে মেয়র পদে চূড়ান্ত প্রার্থীরা হলেন- বদর উদ্দিন আহমদ কামরান (আওয়ামী লীগ), আরিফুল হক চৌধুরী (বিএনপি), অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের (জামায়াত, ২০ দলীয় জোটের বিদ্রোহী), প্রফেসর ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন (ইসলামী আন্দোলন), এহসানুল হক তাহের (স্বতন্ত্র), আবু জাফর (সিপিবি-বাসদ)।

এ নগরে বর্তমানে মোট ভোটার ৩ লাখ ২১ হাজার ৭৩২ জন।  নির্বাচন কমিশনের দেওয়া তথ্য মতে, বর্তমানে নগরীতে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৭১ হাজার ৪৪৪ জন, নারী ভোটার ১ লাখ ৫০ হাজার ২৮৮ জন।

সিসিকে মোট ভোটকেন্দ্র ১৩৪টি। এর মধ্যে পুরুষ ভোটকেন্দ্র ৪৯টি, নারী ভোটকেন্দ্র ৪৮টি এবং যৌথ ভোট কেন্দ্র ৩৭টি।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৩ ঘণ্টা, জুলাই ২৫, ২০১৮
এমআইএস/এইচএ/

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: সিলেট সিটি করপোরেশন নিরাপত্তা
করোনায় দিশেহারা বোয়িং, ১২ হাজার কর্মী ছাঁটাই
কাঁঠালবাড়ী ঘাটে যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় 
কমেছে মাছ-মুরগি-সবজির দাম
সোশ্যাল মিডিয়ার বিরুদ্ধে নির্বাহী আদেশে ট্রাম্পের স্বাক্ষর
চিকিৎসাধীন চট্টগ্রামের শীর্ষ তিন করোনাযোদ্ধা


শনির দশা কাটছে না রাজশাহীর আমের
লিবিয়ায় বেঁচে যাওয়া বাংলাদেশি যে লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন
স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা
পত্নীতলায় সড়ক দুর্ঘটনায় ২ ভাইয়ের মৃত্যু
দৌলতদিয়া ঘাটে বাড়ছে যাত্রীদের চাপ