লিটনের জন্য ভোটের মাঠে ঘাম ঝরাচ্ছেন খালেক

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

লিটনের জন্য ভোটের মাঠে কাজ করছেন খালেক/ছবি: বাংলানিউজ

walton

রাজশাহী: রাজশাহী সিটি করপোরশন (রাসিক) নির্বাচনের প্রচার প্রচারণা এখন তুঙ্গে। কাক ডাকা সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে প্রচারণা।

সময় যতই ঘনিয়ে আসছে ভোটের প্রচার ততই জমজমাট হয়ে উঠছে। সমর্থিত প্রার্থীদের হয়ে ভোটের মাঠে ছুটে আসছেন কেন্দ্রীয় নেতারাও। রাজধানী ছাড়াও উত্তরের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকেও নিজ দলের প্রার্থীদের জন্য ছুটে আসছেন নেতারা।

রোদ-বৃষ্টি উপেক্ষা করে নিজ দলের প্রার্থীর পক্ষে দিনভর ভোটের মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে নিজ দলের প্রার্থীদের জন্য ভোট চাইছেন। প্রচার মিছিল আর গণসংযোগ ছাড়া নিজ প্রার্থীর হয়ে অংশ নিচ্ছেন ঘরোয়া সভা-সমাবেশেও।

এরই মধ্যে বেশ ক’দিন ধরে রাজশাহীতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের জন্য মহানগরীতে অবস্থান করছেন কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এসএম কামাল হোসেন। ভোটের মাঠে নিরলস কাজ করছেন তিনি। 

সর্বশেষ বুধবার (১৮ জুলাই) এই নির্বাচনী বহরে যুক্ত হয়েছেন খুলনা সিটি করপোরেশনের সদ্য নির্বাচিত মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। নৌকা প্রতীকের জন্য দক্ষিণের রূপশাপাড় থেকে ছুটে এসেছেন উত্তরের পদ্মাপাড়ে। স্থানীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গী করে ভোটের মাঠে ঘাম ঝরাচ্ছেন নৌকার মাঝি হয়ে খুলনায় জয় ছিনিয়ে আনা আব্দুল খালেক।

বুধবার (১৮ জুলাই) রাজশাহী মহানগরীর সাহেব বাজার, জিরোপয়েন্ট, রেলওয়ে স্টেশন ছাড়াও বিভিন্ন দফতরে গণসংযোগ করেন। বৃহস্পতিবার (১৯ জুলাই) রেলভবন ও শিরোইলসহ বিভিন্ন এলাকা ও সরকারি দফতরে গণসংযোগ করেন। 

পরে বিকেলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজের ডা. কায়সার রহমান মিলনায়তনে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। এ সময় রাজশাহীর উন্নয়নে নৌকার পক্ষে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি। 

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক বলেন, কাজ করলে মানুষ পুরস্কৃত হয়। কিন্তু ২০১৩ সালের নির্বাচনে আমরা পরাজিত হয়েছিলাম। এর কারণে দেশ এগিয়ে গেলেও রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট সিটির কোনো উন্নয়ন হয়নি। কারণ বিএনপির মেয়রদের অযোগ্যতার কারণে তারা প্রকল্প এনে উন্নয়ন করতে পারেননি।

মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক আরো বলেন, গত ৫ বছরে রাজশাহীর মানুষদের উপলব্ধি হয়েছে, তারা বুঝে গেছে, কাকে দিয়ে উন্নয়ন সম্ভব। বিগত সময়ে আমরা একসঙ্গে উন্নয়ন কাজ করেছি। তারপরও ২০১৩ সালে একসঙ্গে হেরেছি। 

তবে এবার খুলনা থেকে উন্নয়নের ভোট শুরু হয়েছে। আগামীতে একসঙ্গে কাজ করার সুযোগ এসেছে। খায়রুজ্জামান লিটনকে যদি রাজশাহীবাসী নির্বাচিত করতে পারেন, তবে তিনি যে উন্নয়ন করবেন আর অন্য কাউকে দিয়ে সেই উন্নয়ন সম্ভব নয়। রাজশাহীর উন্নয়নের জন্য এবার নির্বাচনে খায়রুজ্জামান লিটনের বিকল্প নেই।

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ রাজশাহী জেলা সভাপতি অধ্যাপক ডা. চিন্ময় কান্তি দাসের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় প্রধান বক্তা ছিলেন- এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সনাল, সহ-সভাপতি ডা. তবিবুর রহমান শেখ ও পরিষদের মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এমএ আজিজ। এছাড়া স্থানীয় নেতারা বক্তব্য রাখেন।

বাংলাদেশ সময়: ২০৩৫ ঘণ্টা, জুলাই ১৯, ২০১৮
এসএস/এসএইচ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: রাজশাহী রাজশাহী সিটি করপোরেশন
শনির দশা কাটছে না রাজশাহীর আমের
লিবিয়ায় বেঁচে যাওয়া বাংলাদেশি যে লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন
স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা
পত্নীতলায় সড়ক দুর্ঘটনায় ২ ভাইয়ের মৃত্যু
দৌলতদিয়া ঘাটে বাড়ছে যাত্রীদের চাপ


ফতুল্লায় করোনা আক্রান্ত হয়ে আ’লীগ নেতার মৃত্যু
ঠাকুরগাঁওয়ে প্রথম করোনার উপসর্গ নিয়ে এক যুবকের মৃত্যু
চাষিদের স্বপ্ন হাঁড়িভাঙা আমে
নীলফামারীতে অতিবৃষ্টির কারণে ধান নিয়ে বিপাকে কৃষক
কিশোরগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু