খুলনা গড়ার অঙ্গীকার ৫ মেয়র প্রার্থীর

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

একমঞ্চে ৫ মেয়র প্রার্থী/ছবি: মানজারুল ইসলাম

walton

খুলনা: জলাবদ্ধতা, মাদক, সন্ত্রাস ও যানজটমুক্ত খুলনা গড়ার অঙ্গীকার করলেন আসন্ন খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনে অংশ নিতে যাওয়া পাঁচ মেয়র প্রার্থী।

তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক, বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু, জাতীয় পার্টির প্রার্থী এস এম শফিকুর রহমান, ইসলামী আন্দোলনের মেয়র প্রার্থী মাওলানা মোজাম্মেল হক ও কমিউনিস্ট পার্টির মেয়র প্রার্থী মিজানুর রহমান বাবু।

শনিবার (২৮ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত নগরীর শহীদ হাদিস পার্কে জনগণের মুখোমুখি অনুষ্ঠানে হাত উঁচিয়ে এই অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন তারা।

খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচন-২০১৮ উপলক্ষে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

সুজনের কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠান শুরু হয় জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের বিষয়ে শপথ বাক্য পাঠ করানো হয়। মঞ্চে উপস্থিত পাঁচ মেয়র প্রার্থীদের অঙ্গীকারপত্র পাঠ করানো হয়। এরপর শুরু হয় মেয়র প্রার্থীদের কাছে উপস্থিত জনতার প্রশ্ন।

শুরুতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মেয়র প্রার্থী মাওলানা মোজ্জাম্মেল হক উপস্থিত জনতার ৩টি প্রশ্নের উত্তর দেন। এরপর সিপিবির প্রার্থী মিজানুর রহমান বাবু ৩টি প্রশ্নের উত্তর দেন। তার পরে জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী শফিকুর রহমান ৩টি প্রশ্নের উত্তর দেন।

আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেককে নগরীর যানজট নিরসনে কি উদ্যোগ নেবেন? এক ভোটারের প্রথম প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নগরপিতা (মেয়র) নির্বাচিত হলে সিটি করপোরেশনের মধ্যে ইজিবাইকসহ সব গণপরিবহন নির্দিষ্ট সংখ্যায় আনা হবে। খুলনাবাসীকে সুন্দর, পরিচ্ছন্ন একটি যানজটমুক্তনগরী উপহার দেওয়া প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।

দ্বিতীয় প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি মেয়র নির্বাচিত হলে নগরীতে মাদক বিক্রেতাসহ হোতাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। খুলনাবাসীকে একটি মাদকমুক্তনগরী উপহার দেয়ার অঙ্গীকার করেন তিনি।

তৃতীয় পশ্নের জবাবে সাবেক এ মেয়র বলেন, বিগত দিনে আমি এ সিটি করপোরেশনের মেয়র ছিলাম। আমার কর্মকাণ্ড সম্পর্কে নগরবাসী অবগত আছেন। খুলনাকে একটি আধুনিক নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে তিনি সর্বাত্মক চেষ্টা করবেন বলে উপস্থিত জনতার কাছে প্রতিজ্ঞা করেন।

সর্বশেষে বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জুর প্রশ্নোত্তর পর্বে অনুষ্ঠানস্থলে হট্টগোল শুরু হয়। মঞ্জু দু’টি প্রশ্নের জবাব দেওয়ার পর ৩য় প্রশ্ন করার সময় হট্টগোল শুরু হলে অনুষ্ঠানের সঞ্চালক প্রশ্নকারীকে থামিয়ে দেন। এ প্রশ্নের পরপরই অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ড. বদিউল আলম মজুমদার প্রশ্নটি উদ্দেশ্যমূলক আখ্যা দিয়ে প্রশ্নোত্তর পর্ব সমাপ্তি ঘোষণার চেষ্টা করেন।

তার কাছে ওই ভোটারের প্রশ্ন ছিলো, বিগত দিনে বিএনপি’র মেয়র থাকাকালে নগরীতে তেমন কোনো উন্নয়ন হয়নি, এর কারণ কি? হট্টগোলের কারণে এ প্রশ্নের উত্তর পাননি প্রশ্নকারী।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, সুজন জেলা কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ জাফর ইমাম, জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কুদরত- ই-খুদাসহ সুজনের কেন্দ্রীয়, জেলা ও মহানগর নেতারা।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫৮ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৮, ২০১৮
এমআরএম/জেডএস

শৈলকুপা থানার ওসিকে প্রত্যাহারের দাবিতে সড়ক অবরোধ
আমি হলে দীপিকার মতো জেএনইউ যেতাম না: কঙ্গনা
দুই সিটিতে সুষ্ঠু নির্বাচন চায় জাতীয় পার্টি
সঞ্চয় সপ্তাহ উপলক্ষে বরিশালে র‌্যালি ও আলোচনা সভা
সিটি নির্বাচন: ২৫ জানুয়ারি দেশব্যাপী অবরোধের ডাক 


ঝটপট নাস্তায় ক্রিম পুডিং
বিশ্বকে তাক লাগিয়ে শেখ হাসিনা পদ্মাসেতু নির্মাণ করছেন
ঝিনাইদহে ফোটনের ডিলার উদ্বোধন
‘ফুটবল এক বিশাল পাপেট শো’
বরিশালে সরকারি কর্মকর্তা সন্তানদের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা