ঢাকা, মঙ্গলবার, ৫ কার্তিক ১৪২৭, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

শিক্ষা

নিয়োগের নামে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হলেও জানা নেই কর্তৃপক্ষের

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯১৫ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০
নিয়োগের নামে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হলেও জানা নেই কর্তৃপক্ষের ঝালকাঠি

ঝালকাঠি: নিয়ম-নীতির উপেক্ষা করে ঝালকাঠি সদরের বেশাইনখান শহীদ স্মৃতি মাধ্যমিক বিদ্যানিকেতনে প্রধানশিক্ষক নিয়োগের নামে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করার অভিযোগ উঠেছে এডহক কমিটিসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে।  একইসঙ্গে কমিটি প্রধানের বিরুদ্ধে রয়েছে বিশেষ সুপারিশের মাধ্যমে নিজের ওই এডহক কমিটিই গঠনের অভিযোগও।

এদিকে গোটা বিষয় নিয়ে অভিভাবক ও এলাকাবাসীর মধ্যে রয়েছে মিশ্র-প্রতিক্রিয়া।

তবে কমিটির প্রধান ও বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধানশিক্ষকের দাবি বিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার লক্ষ্যেই একটি চক্র কাউকে না জানিয়ে এই বিজ্ঞাপন প্রকাশ করেছে, যা সম্পর্কে তারা কেউ অবগত নন। পাশাপাশি এডহক কমিটি বিশেষ সুপারিশে হলেও সেখানে কোনো নিয়মের ব্যপ্তয় ঘটেনি বলে দাবিও তাদের।

সূত্রে জানা গেছে, বেশাইনখান শহীদ স্মৃতি মাধ্যমিক বিদ্যানিকেতের ম্যানেজিং কমিটি গঠনের জন্য ২২ জুলাই বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে সর্বসম্মতিক্রমে মো. রাশিদুল ইসলাম, আনছার উদ্দিন হাওলাদার ও আফজাল হোসেন এই তিনটি নাম বোর্ডে পাঠানো হয়। কিন্তু বোর্ড কর্তৃপক্ষ ২৫ আগস্ট বিদ্যালয় থেকে পাঠানো নাম বাদ দিয়ে ফজলুল করিম নামে এক অবসরপ্রাপ্ত থানা আনসার এডজুডেন্টকে সভাপতি করে এডহক কমিটি গঠন করে চিঠি দেয়।  

স্থানীয়দের অভিযোগ, ম্যানেজিং কমিটি গঠনের ৮/৩ উপ-ধারায় বলা আছে কোনো অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তাকে সভাপতি করতে হলে তাকে প্রথম শ্রেণির হতে হবে। কিন্তু ফজলুল করিম প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তা ছিলেন না।  

এর সত্যতা মোবাইলফোনে নিশ্চিত করে ফজলুল করিম বাংলানিউজকে বলেন, ম্যানেজিং কমিটির জন্য এ নিয়ম থাকলেও এডহক কমিটির জন্য এ ধরনের নিয়ম রয়েছে কিনা তা, জানা নেই। আর এডহক কমিটির কাজ পূর্ণাঙ্গ ম্যানেজিং কমিটি গঠন করা, আমরা সেই কাজই করছি।

তিনি বলেন, এডহক কমিটিতে সরকারি চাকরিজীবীর কোনো রেফারেন্স ব্যবহার করেননি তিনি। স্থানীয় একজন নাগরিক ও শিক্ষানুরাগী হিসেবে এই কমিটিতে তিনি এসেছেন। যেখানে স্থানীয় জনপ্রতিনিধির সুপারিশও (ডিও লেটার) রয়েছে।  

আর বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধানশিক্ষক পরিতোষ কুমার সুতার বলেন, বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ম্যানেজিং কমিটির জন্য তিনজনের নাম বোর্ডে পাঠানো হলেও, বোর্ড চাইলে যে কাউকে দিয়ে কমিটি গঠন করতে পারে। বোর্ডই ক্ষমতা রাখে ম্যানেজিং ও এডহক কমিটি দেওয়ার। সেক্ষেত্রে আমাদের কিছু করার নেই।

এদিকে ১১ সেপ্টেম্বর একটি সাপ্তাহিক চাকরি বিজ্ঞপ্তির পত্রিকায় প্রকাশিত বেশাইনখান শহীদ স্মৃতি মাধ্যমিক বিদ্যানিকেতনে প্রধানশিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি নিয়ে স্থানীয়ভাবে তোলপাড় শুরু হয়েছে। যে বিজ্ঞাপনে ৯ আগস্ট অন্য একটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকার সূত্র টানা হয়েছে।

তবে, এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধানশিক্ষক পরিতোষ কুমার সুতার ও এডহক কমিটির সভাপতি ফজলুল করিম। তাদের উভয়ের দাবি কোনো একটি পক্ষ বিদ্যালয়সহ সংশ্লিষ্ট সবার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে।  কারণ চাকরির খবর পত্রের যে বিজ্ঞাপনে জাতীয় অন্য একটি দৈনিকের সূত্র ব্যবহার করা হয়েছে। সেখানে ওই জাতীয় দৈনিকের সংশ্লিষ্ট তারিখের প্রকাশিত সংখ্যায় সে ধরনের কোনো বিজ্ঞাপন দেখা যায়নি।  

এডহক কমিটির সভাপতি ফজলুল করিম বলেন, বিষয়টি তাৎক্ষণিক স্থানীয় সাংবাদিক ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়।  

তিনি বলেন, যেখানে এডহক কমিটি পূর্ণাঙ্গ ম্যানেজিং কমিটি গঠনের বাইরে কোনো কাজ করার সুযোগ নেই। সেখানে নিয়োগের বিষয় নিয়ে আমাদের কোনো মাথা ব্যথা নেই। বরং ভুয়া বিজ্ঞাপন দিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে বরিশাল শিক্ষাবোর্ড চেয়ারম্যান প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনুস সাংবাদিকদের বলেন, এডহক কমিটির চারজন সদস্য ছয়মাসের জন্য গঠন করা হয়ে থাকে। ৩৯ ধারা অনুযায়ী বোর্ড চেয়ারম্যান সভাপতি নিয়োগ দিতে পারে। এডহক কমিটি রুটিন মাফিক কাজ করবে। তারা কোনো নিয়োগ প্রক্রিয়ায় জড়ালে তা সম্পূর্ণ অবৈধ।

বাংলাদেশ সময়: ১৯১৫ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০
এমএস/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa