অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের মৃত্যুতে খুবি উপাচার্যের শোক

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি প্রতীকী

walton

খুলনা: জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামানের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান।

বৃহস্পতিবার (১৪ মে) এক শোকবার্তায় তিনি বলেন, জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান ছিলেন জাতির অতন্দ্র বাতিঘর। দেশের যেকোনো সংকটে তিনি যুক্তি-পরামর্শ দিয়ে গণতন্ত্র ও অসম্প্রদায়িক চেতনা প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করেছেন। ষাটের দশকে তৎকালীন পাকিস্তানে রবীন্দ্র সঙ্গীত নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হলে তিনি এর বিরুদ্ধে সোচ্চার প্রতিবাদ করেন।

শোক বিবৃতিতে উপাচার্য আরও বলেন, বাঙালির বুদ্ধিবৃত্তিক ও সাংস্কৃতিক বিকাশের আন্দলোনে তার অবদান চিরঅম্লান হয়ে থাকবে। জাতির এ ক্রান্তিকালে তাকে হারানো এক অপূরণীয় ক্ষতির।

ড. আনিসুজ্জামান খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শুভাকাঙক্ষী ছিলেন এবং তিনি ২০১৫ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫ম সমাবর্তনে সমাবর্তন বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

উপাচার্য মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করে শোক-সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টা ৫৫মিনিটে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। তার বয়স হয়েছিলো ৮৪ বছর। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুসে সংক্রমণসহ বিভিন্ন জটিল রোগে ভুগছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ০০৪৩ ঘণ্টা, মে ১৫, ২০২০
এমআরএম/ এএটি

ধর্মপাশায় বজ্রপাতে জেলের মৃত্যু
কানাডায় বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনে ট্রুডো
যুগ্মসচিব পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের যোগদান অনলাইনে
‘করোনা রোধে নারায়ণগঞ্জের সিস্টেমটা সারাদেশে প্রয়োগ হবে’
বর্ণ-বৈষম্য দূরীকরণে ১০০ মিলিয়ন ডলার অনুদান দেবেন জর্ডান


ফেনীতে করোনা আক্রান্ত বাড়লেও তোয়াক্কা নেই স্বাস্থ্যবিধির
করোনা উপসর্গে মৃত্যু: পরিবার পিছুহটায় দাফন করলো প্রশাসন
বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল বিশ্ব
ভার্চ্যুয়াল আদালতে সারাদেশে সাড়ে ২৭ হাজার আসামির জামিন
ভোলার মেঘনায় মিলছে না ইলিশ, কষ্টে দিন কাটছে জেলেদের