বিজয় একাত্তর হলের নতুন প্রাধ্যক্ষ প্রফেসর আবদুল বাছির

ইউনিভার্সিটি করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

নিজ কার্যালয়ে বিজয় একাত্তর হলের প্রাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. আবদুল বাছির। ছবি: বাংলানিউজ

walton

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাকা): ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) বিজয় একাত্তর হলের দ্বিতীয় প্রাধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের প্রফেসর ড. আবদুল বাছির। একইসঙ্গে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চতর মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালকের দায়িত্ব পালন করছেন।



বৃহস্পতিবার (০২ জানুয়ারি) সকালে হল অফিসে বিদায়ী প্রাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. এজেএম শফিউল আলম ভূইয়ার কাছ থেকে তিনি দায়িত্ব গ্রহণ করেন। 

বুধবার (১ ডিসেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার এনামউজ্জামান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অর্ডার, ১৯৭৩-এর অন্তর্ভূক্ত ১ম স্ট্যাটিউটস এর ১৮(১) ধারা অনুযায়ী উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান তিন বছরের জন্য প্রফেসর ড. আবদুল বাছিরকে বিজয় একাত্তর হলের প্রাধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ করেন।

নতুন দায়িত্ব গ্রহণ ও হলের পরিকল্পনা নিয়ে প্রফেসর ড. আবদুল বাছির সাংবাদিকদের বলেন, শিক্ষার্থীদের জীবনমান, পড়ালেখা এবং তাদের আবাসনের উন্নয়ন ও যথাযথভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করাই আমাদের মূল দায়িত্ব। শিক্ষার্থীদের চাহিদাগুলো যখন আমাদের কাছে আসবে সেগুলো আমরা অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে সমাধান করার চেষ্টা করব। কোনো সমস্যা যেন না থাকে সেটাই কাম্য থাকবে। তারপরেও সমস্যা তৈরি হবে। এ সমস্যার মধ্যে যেগুলো আমরা পারব সেগুলো আমরা নিজেরাই সমাধান করব।  আর না পারলে তা যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সমাধান করার চেষ্টা করবো।

প্রফেসর আবদুল বাছির ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার চান্দুরা ইউনিয়নের  আনন্দ গ্রামে ১৯৬৫ সালে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৮২ সালে দাউদপুর হাই স্কুল থেকে এসএসসি এবং ১৯৮৪ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বাস্তবায়ন কমিটির আন্দোলন-সংগ্রামে তিনি সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন। ১৯৮৪-৮৫ শিক্ষাবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৮৮ সালে কৃতিত্বের সাথে বিএ (অনার্স) ডিগ্রি ও ১৯৮৯ সালে এমএ ডিগ্রী লাভ করেন। ১৯৯৩-৯৪ সনে ঢাকা আইডিয়াল কলেজে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৯৪-৯৭ সালে কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে লেকাচারার ও অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর পদে কর্মরত ছিলেন। ১৯৯৮ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর পদে যোগদান করেন। ২০০৯ সালে ‘বাংলার কৃষক বিদ্রোহ ও মধ্যবিত্ত শ্রেণি (১৭৫৭-১৮৫৭) শীর্ষক অভিসন্দর্ভ রচনা করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।

প্রফেসর আবদুল বাছির বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি, বাংলা একাডেমি, বাংলাদেশ ইতিহাস পরিষদ, ইতিহাস সমিতি এবং পশ্চিমবঙ্গ ইতিহাস সংসদের আজীবন সদস্য। তিনি ইতিহাস, ইসলামের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও বিশ্বায়ন বিষয়ক দেশি-বিদেশি বিভিন্ন সম্মেলনে যোগদান করেছেন। তার প্রথম গ্রন্থ ‘বাংলার কৃষক বিদ্রোহ ও মধ্যবিত্ত শ্রেণি’ বাংলা একাডেমি থেকে ২০১২ সালে প্রকাশিত হয়। ‘মুসলিম রাষ্ট্রচিন্তার রুপরেখা’ নামে নিউ এজ পাবলিকেশন্স থেকে অপর একটি গ্রন্থ ২০১৮ সালে প্রকাশিত হয়। এছাড়া ইতিহাস, সমাজ, অর্থনীতি, রাজনীতি, ধর্ম, দর্শন ও চিত্রকলা সম্পর্কে বহু প্রবন্ধ দেশ-বিদেশের বিভিন্ন গবেষণা জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। এবারের অমর একুশে গ্রন্থমেলায় তার আরেকটি গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশ হওয়ার কথা আছে।

বাংলাদেশ সময়: ১২৪৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০২, ২০১৯
এসকেবি/এবি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
শরীয়তপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেলো ২ কলেজছাত্রের
আড়াইহাজারে যুবলীগ নেতাসহ ৫ জনের জেল
ভাষাশহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে জ্বলে উঠলো ৫২শ' মোমবাতি
সারাদেশে একুশের প্রথম প্রহরে ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা
গর্বের সঙ্গে বাংলার ব্যবহার চায় ভারতের নদীয়ার প্রতিনিধিদল


ভেঙে পড়লো রাসিক মেয়র লিটনের সংবর্ধনা মঞ্চ
রামুতে বর্ণমালা হাতে হাজারো শিক্ষার্থীর কন্ঠে একুশের গান
ভাষাশহীদদের প্রতি বিরোধী দলীয়নেতা রওশনের শ্রদ্ধা
মাতৃভাষার জন্য ভালোবাসা
একুশে ফেব্রুয়ারি: বাঙালির আত্মপরিচয়ের দিন