গতবারের মতোই শূণ্য পাস প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৪টি

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

সারা দেশে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় শূণ্যভাগ পাস করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যার হেরফের হয়নি। গত বছরের মতোই ১০টি শিক্ষাবোর্ডে মোট ২৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের কেউই পাস করতে পারেনি।

ঢাকা: সারা দেশে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় শূণ্যভাগ পাস করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যার হেরফের হয়নি। গত বছরের মতোই ১০টি শিক্ষাবোর্ডে মোট ২৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের কেউই পাস করতে পারেনি।

বুধবার প্রকাশিত ফলাফলে দেখা গেছে, ৭ হাজার ৪৬৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২৪টি প্রতিষ্ঠানের কেউই পাস করেনি। গত বছর অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কম থাকলেও ফেলের সংখ্যা একই ছিল।

গতবার ৭ হাজার ১৭৯টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২৪টির সব শিক্ষার্থী ফেল করেছিল।

২০১১ সালে শতভাগ শিক্ষার্থী ফেল করেছে এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দিনাজপুর, রাজশাহী ও যশোর বোর্ডে বেশি থাকলেও এ বছর ঢাকা বোর্ডে এ সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

৮টি সাধারণ শিক্ষাবোর্ডে মোট ৩ হাজার ৪১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৯টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যেগুলোতে পাসের হার শূণ্য।

এইচএসসিতে ৮টি শিক্ষাবোর্ডের মধ্যে ঢাকা বোর্ডে ৮৬৭টি কলেজের মধ্যে শূণ্য ভাগ পাস করা প্রতিষ্ঠান ৬টি। গত বছর এ বোর্ডে ৮২৭টি কলেজের মধ্যে ২টি প্রতিষ্ঠানের কোনো শিক্ষার্থী পাস করতে পারেনি।

রাজশাহীতে ৬৪০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শূণ্য পাস প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কমে হয়েছে ৪টি। গত বছর ৬৩৪টির মধ্যে ৬টি প্রতিষ্ঠান শতভাগ ফেল করেছিল এ বোর্ড থেকে।

চট্টগ্রামের ১৯১টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে কোনো প্রতিষ্ঠানেরই শতভাগ শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়নি।

কুমিল্লা বোর্ডেও ২৯৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে কোনো শূণ্য পাস প্রতিষ্ঠান নেই।

দিনাজপুর বোর্ডে ৪৯৮টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৫টি শূণ্য পাস প্রতিষ্ঠান রয়েছে। গত বছর এ সংখ্যা ছিল ৪৮৪টির মধ্যে ৭টি প্রতিষ্ঠান।

সিলেট শিক্ষা বোর্ডে ১৫৯টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে কোনো প্রতিষ্ঠানেরই শতভাগ শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়নি।

বরিশালে ২৫৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৩টি প্রতিষ্ঠানের শূণ্য পাস হয়েছে।

যশোর শিক্ষাবোর্ডে ৫০৬টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শূণ্য পাস প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ১টি। গত বছর যশোরে ৪৯৫টির মধ্যে ৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সব শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়েছিল।

অন্যদিকে, মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ডে ২ হাজার ৬৫১টি প্রতিষ্ঠানের ২টি প্রতিষ্ঠানের সবাই অকৃতকার্য হয়েছে। গত বছর মাদ্রাসা বোর্ডে দুই হাজার ৬৩৪টি মাদ্রাসার মধ্যে শূণ্য পাস প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ছিল ৩টি।

এছাড়া কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের এক হাজার ৩৮৪টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শূণ্য পাস প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৩টি। গত বছর এ বোর্ড থেকে এক হাজার ২৩২টি কলেজের মধ্যে শূণ্য পাস প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ছিল ২টি।

বাংলাদেশ সময়: ১৯১৮ ঘণ্টা, জুলাই ১৮, ২০১২
এমএন/ সম্পাদনা: কাজল কেয়া, নিউজরুম এডিটর ও অশোকেশ রায়, অ্যাসিসট্যান্ট আউটপুট এডিটর

সিরাজগঞ্জে কর্মহীন-দুস্থদের মধ্যে খাদ্য সহায়তা
‘করোনা ভয়ে ‌দায়িত্ব থেকে এক ইঞ্চিও পিছু হটবো না’
করোনায় মারা গেলেন হলিউড অভিনেতা অ্যালেন গারফিল্ড
করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হতে পারে বিড়ালও
এনআইডি না থাকলে জন্মনিবন্ধন সনদে শ্রমিকদের বেতন


করোনা উপসর্গ নিয়ে আখাউড়ায় নারীর মৃত্যু 
বাসা থেকে বের না হতে পরামর্শ সিভিল সার্জনের
বরিশালে ২৫ মণ জাটকা জব্দ
চিকিৎসকদের জন্যে বিলাসবহুল তাজ হোটেল খুলে দিল টাটা গোষ্ঠী
করোনার কারণে প্রায় ৫০ কোটি মানুষ দরিদ্র হওয়ার আশঙ্কা