যশোর শিক্ষাবোর্ডে পাসের হার ৬৭ দশমিক ৮৭ ভাগ

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

এবার এইচএসসি পরীক্ষায় যশোর শিক্ষাবোর্ডে পাসের হার ৬৭ দশমিক ৮৭ ভাগ। গত বছর পাসের হার ছিল ৬৩ দশমিক ৩৭ ভাগ।

যশোর: এবার এইচএসসি পরীক্ষায় যশোর শিক্ষাবোর্ডে পাসের হার ৬৭ দশমিক ৮৭ ভাগ। গত বছর পাসের হার ছিল ৬৩ দশমিক ৩৭ ভাগ।

অথচ ২০০৯ সালে এ বোর্ড থেকে রেকর্ড সংখ্যক ৭৮ দশমিক ২৩ ভাগ শিক্ষার্থী এইচএসসিতে উত্তীর্ণ হয়েছিলেন।

২০১০ সালে এ হার দাঁড়ায় ৬৭ দশমিক ৭৩।

২০১১ সালে পাসের হার ৬৩ দশমিক ৩৭ ভাগ হলেও এ বছর পাসের হার অনেক ভালো।

পাসের হারের সঙ্গে যশোর বোর্ড থেকে জিপিএ-৫ প্রাপ্তির সংখ্যাও বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে।

গত বছর এ বোর্ড থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছিলেন ৩ হাজার ৩শ ৭০ জন শিক্ষার্থী। এ বছর এ সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ২শ ২৯ জনে। ২০১০ সালে এ বোর্ড থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছিলেন ২ হাজার ২শ ৩৬ জন শিক্ষার্থী। ২০০৯ সালে এ প্রাপ্তির সংখ্যা ছিল ২ হাজার ৯৩ জন। আর ২০০৮ সালে জিপিএ-৫ পেয়েছিলেন ১ হাজার ৭শ ৬৪ জন।

সে হিসেবে ৫ বছরের ব্যবধানে যশোর বোর্ড থেকে এবার এইচএসসিতে জিপিএ-৫ প্রাপ্তি বেড়েছে ৩ গুণেরও বেশি।


প্রকাশিত ফলাফল থেকে জানা যায়, যশোরে বোর্ডে এ বছর এইচএসসি পরীক্ষায় ১ লাখ ৫ হাজার ৯শ ৮৯ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন ৭১ হাজার ৯শ ৩৭ জন।

এর মধ্যে ছাত্র ৩৭ হাজার ৫শ ৭৮ জন ও ছাত্রী ৩৪ হাজার ৩ শ৫৯ জন। পাসের হার ৬৭.৮৭ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৫ হাজার ২শ ২৯ শিক্ষার্থী। পরীক্ষায় বহিষ্কৃত হয়েছিলেন ৭৯ জন।

বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এ বোর্ডে ১১ হাজার ৮শ ৭৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন ৮ হাজার ৯শ ৭৫ জন। পাসের হার ৭৫.৫৮ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ২ হাজার ৪শ ৮২ জন।

মানবিক বিভাগ থেকে অংশ নিয়েছিলেন ৬৭ হাজার ১শ ৪৬ জন। উত্তীর্ণ হয়েছেন ৪১ হাজার ৬শ ৩৮ জন। পাসের হার ৬২.০১ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ১ হাজার ১শ ৯৩ জন।

ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের ২৬ হাজার ৯শ ৬৮ জন ছাত্রছাত্রীর মধ্যে পাস করেছেন ২১ হাজার ৩শ ২৪ জন। পাসের হার ৭৯.০৭ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ১ হাজার ৫শ ৫৪ জন।

এ বিষয়ে যশোর শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ সেলিম বাংলানিউজকে জানান, যশোর বোর্ডের পাসের হার অন্যান্য বোর্ডের তুলনায় কিছুটা কম হলেও ফলাফল গত বছরের তুলনায় ভালো হয়েছে। পাসের হার, জিপিএ-৫ প্রাপ্তি এবং পাসের সংখ্যা সবকিছুই বেড়েছে।  

তিনি উল্লেখ করেন, শিক্ষার্থীদের আন্তরিকতা ও পাঠে মনোযোগী হওয়া, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষকদের পাঠদানের ব্যাপারে আরও দায়িত্ববান হওয়া এবং অভিভাবকরা যদি সচেতন হন, তাহলে এ ফলাফল ভবিষ্যতে আরও ভালো হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫২৯ ঘণ্টা, জুলাই ১৮, ২০১২
সম্পাদনা: প্রভাষ চৌধুরী, নিউজরুম এডিটর

বেনাপোলে প্রায় আড়াই মাস আটকা ১৯ ভারতীয় ট্রাকচালক
মোরা ত্রাণ চাই না, বেড়ি চাই
রবীন্দ্র সরোবর যেন সবুজের গালিচা
ফলন ভালো হলেও বিক্রি নিয়ে দুশ্চিন্তায় পাহাড়ের কৃষক
করোনায় মারা গেলেন প্রথম কোনো ফুটবলার


শ্বাসকষ্ট নিয়ে চবি শিক্ষকের মৃত্যু
প্রথম ইউরোপীয় দেশ হিসেবে ‘করোনামুক্ত’ মন্টেনিগ্রো
উল্লাপাড়ায় ঘুড়ি কেনাবেচা নিয়ে সংঘর্ষে নিহত এক
ইডিইউতে হারমনি অব আর্টস আজ ও কাল
বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস রোববার