ঢাকা, শনিবার, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২

অর্থনীতি-ব্যবসা

ডাচ ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান

বিজনেস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২১ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৯, ২০২০
ডাচ ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান

ঢাকা: দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলে বিনিয়োগ সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন ডাচ বিনিয়োগকারীরা। তাই ডাচ ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে আরও বিনিয়োগ বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন নেদারল্যান্ডসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রিয়াজ হামিদুল্লাহ।

বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) আন্তর্জজাতিক ব্যবসা উন্নয়নমূলক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান লারিভ ও বাংলাদেশের বিজনেস কনসালট্যান্ট প্রতিষ্ঠান লাইট ক্যাসল পার্টনার্সের (এলসিপি) মধ্যকার কৌশলগত অংশীদারিত্বমূলক চুক্তির আনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্যে ডাচ ব্যবসায়ীদের তিনি এ আহ্বান জানান। দেশের বিজনেস কনসালট্যান্ট প্রতিষ্ঠান লাইট ক্যাসল পার্টনার্স (এলসিপি) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

রিয়াজ হামিদুল্লাহ বলেন, ডাচদের বাংলাদেশে বিনিয়োগে অসাধারণ রেকর্ড আছে। বর্তমানে ব্যবসা বিনিয়োগের ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট কোনো সীমানা নেই। সে প্রেক্ষাপটে লারিভ ও লাইট ক্যাসল পার্টনার্সের (এলসিপি) মধ্যে এ কৌশলগত অংশীদারিত্ব শুধু আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে ভাবমূর্তি বাড়বে না, বরং বাংলাদেশে আগত বিনিয়োগকারীদের বাজার প্রবেশে উৎসাহ যোগাবে। বর্তমানে বাংলাদেশের বাজারে প্রবেশাধিকার আরও সহজ হওয়ায় ডাচরা ইচ্ছা করলে এখানে কৃষি ও ভোগ্য পণ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, বিপণন ও সংরক্ষণে আরও বিনিয়োগ বাড়াতে পারেন।

ডাচ-বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সহযোগিতামূলক সম্পকর্কে ‘পারস্পরিক পুরস্কৃত করার দারুণ সম্ভাবনা’ হিসেবে উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত বলেন, দক্ষিণ এশিয়ায় ডাচ উদ্যোক্তা, উদ্ভাবক ও বিনিয়োগকারীদের সম্পৃক্ততা বাড়ছে। তারা বাংলাদেশের বিকাশমান অর্থনীতি ও এখানকার বেসরকারিখাতের বিনিয়োগের প্রশংসা করছে। ডাচ ব্যবসায়ীরা মনে করে, বাংলাদেশে এ ধরণের অংশীদারিত্ব উভয় দেশের ব্যবসা সম্প্রসারণে দারুণ সুযোগ তৈরি করবে।

অনুষ্ঠানে মূল উপস্থাপনা তুলে ধরেন এলসিপির পরিচালক জাহিদুল আমিন। এসময় এলসিপির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইভদাদ আহমেদ খান মজলিসের সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য দেন- লারিভ ইন্টান্যাশনালের পরিচালক ম্যাথিয়াস ব্রেনিন, এলসিপির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিজন ইসলাম, লারিভ ইন্টারন্যাশনালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডেভিনিয়া লাম্মি প্রমুখ।

ম্যাথিয়াস ব্রেনিন বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলে সবচেয়ে দ্রুত বিকাশমান অর্থনীতির দেশ বাংলাদেশ। ১৬৭ মিলিয়ন জনসংখ্যা অধ্যুষিত এ দেশে প্রচুর অভ্যন্তরীণ চাহিদা আছে। এছাড়া দেশটিতে অবকাঠামোগত খাতে বিনিয়োগ হচ্ছে। প্রচলিতভাবে টেক্সটাইল ও সামুদ্রিক সম্পর্কিত শিল্পের বৈচিত্র্যময় অর্থনীতি কর্মকাণ্ডের সঙ্গে দেশটি বেশি যুক্ত। তবে বর্তমানে বাংলাদেশ চাইলে কৃষিজাত পণ্য, প্যাকেটজাত ভোগ্য পণ্য ও লাইট উৎপাদন খাতে বিদেশিদের বিনিয়োগে সুযোগ দিতে পারে।

বিজন ইসলাম বলেন, এ অংশীদারিত্বে আমরা দারুণ আনন্দিত। আশা করছি, এ ধরণের সহযোগিতার মাধ্যমে ভবিষ্যতে বাংলাদেশে বিনিয়োগকারীদের সংখ্যা বাড়বে।

লারিভ প্রতিষ্ঠানটি এশিয়া, পূর্ব ইউরোপ, তুর্কি ও সাব-সাহারা আফ্রিকা অঞ্চলসহ ২৪ টি দেশে বিনিয়োগ সম্প্রসারণে কাজ করে থাকে।

বাংলাদেশ সময়: ২০১৪ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৯, ২০২০
ওএইচ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa