ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৭ কার্তিক ১৪২৭, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

অর্থনীতি-ব্যবসা

বোরো মৌসুমে ফেনীতে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১১ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০
বোরো মৌসুমে ফেনীতে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি

ফেনী: চলতি বোরো মৌসুমে ফেনীতে ধান ও চাল সংগ্রহ অভিযানে লক্ষ্যমাত্রায়  পৌঁছাতে পারেনি জেলা খাদ্যবিভাগ। সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ৮ হাজার ৫৫০ মেট্টিক টন নির্ধারণ করা হলেও এর মাত্র ৩০ দশমিক ২৫ শতাংশ অর্জিত হয়েছে।

করোনা পরিস্থিতি ও সরকারিভাবে ঘোষিত ধান এবং চালের মূল্য খোলা বাজারের কাছাকাছি থাকায় সংগ্রহে বড় আকারের ধাক্কা লেগেছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সূত্র জানা যায়, কৃষকের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত ও কৌশলগতভাবে খাদ্য মজুদ শক্তিশালী করতে চলতি বছরের বোরো মৌসুমে ফেনীতে ৩ হাজার ৯৯৭ মেট্টিক টন বোরো ধান ও ৪ হাজার ৫৫৩ মেট্টিক টন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে খাদ্যবিভাগ।

নির্ধারিত ৩১ আগস্ট পর্যন্ত সংগ্রহ অভিযানের অগ্রতি কম থাকায় ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় বাড়ায় সংশ্লিষ্ট দপ্তর। কিন্তু মঙ্গলবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সংগ্রহ অভিযানের দ্বিতীয় দফায় বেধে দেওয়া সময় শেষ হলেও সবমিলিয়ে ফেনীতে সংগ্রহ হয়েছে ২ হাজার ৫৮৭ মেট্টিক টন ধান-চাল। যা লক্ষ্যমাত্রার এক তৃতীয়াংশের কাছাকাছি।

বোরো সংগ্রহ অভিযানে সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ২৬ টাকা দরে ৩ হাজার ৯৯৭ মেট্টিক টন ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু সংগ্রহ হয়েছে মাত্রা ১ হাজার ৩০৭ মেট্টিক টন। যা লক্ষ্যমাত্রার ৩২ দশমিক ৬ শতাংশ মাত্র। অভিযানে মিলারদের কাছ থেকে ৩৬ টাকা কেজি দরে জেলায় ২ হাজার ৭০০ মেট্টিক টন সিদ্ধ চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে সংগ্রহ করা হয়েছে ৮৩০ মেট্টিক টন। যা শতকরা ৩০ শতাংশের কাছাকাছি। একইভাবে ৩৫ টাকা কেজি দরে ১ হাজার ৮৫৩ মেট্টিক টন আতপ চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রার স্থলে সংগ্রহ করা হয়েছে ৪৫০ মেট্টিক টন। যা লক্ষ্যমাত্রার ২৪ দশমিক ২৮ শতাংশ মাত্র। জেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৫ হাজার ৯৬২ মেট্টিক টন ধান ও চাল সংগ্রহ কম হয়েছে।

প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষকরা জানান, সরকারি খাদ্য গুদামে ধান বিক্রয় করতে নানা রকমের বিড়ম্বনা রয়েছে। গুদামে ধান নিয়ে আসার আগেই নমুনা জমা দিতে হয়। তারপর কর্মকর্তারা নমুনা দেখে ধান নেবেন কি নেবেন না সেটি নিশ্চিত করেন। চলতি মৌসুমে করোনা পরিস্থিতির কারণে সড়কে যানবাহনে অতিরিক্ত ভাড়া থাকায় অনেক কৃষক কয়েক দফায় খাদ্যবিভাগে যোগাযোগকে বিরক্তিকর মনে করেছেন। এজন্য তারা গ্রামের ফড়িয়া অথবা মিল মালিকদের কাছে সরকারি মূল্যের কম দামে ধান দিয়েছেন। কৃষকরা জানান, ফড়িয়াদের কাছে ধান বিক্রির ক্ষেত্রে তেমন বিড়ম্বনা হয় না। তারা কৃষকের বাড়ি অথবা কাছাকাছি স্থান থেকেই নগদ টাকায় ধান কিনে নেন।

ক্ষোভপ্রকাশ করে ফেনী সদর উপজেলার কৃষক আবুল হাসেম বাংলানিউজকে জানান, বালিগাঁওয়ের হকদি গ্রাম থেকে ২০০ টাকা ভাড়া দিয়ে ধানের নমুনা নিয়ে আসি। পরের দিন ট্রাক ভরে ধান বিক্রি করি। দু’দিন পর একাউন্টে ধানের মূল্য পরিশোধ করা হয়। ধান বিক্রির ৩ থেকে ৪ দিন পর টাকা পাই। ধানের ট্রাক ভাড়া থেকে শুরু করে সব খরচই প্রথমে কৃষক তার পকেট থেকে করতে হয়। যা অনেক কৃষকের পক্ষে সম্ভব হয় না। এসব কারণে কৃষকরা সরকারি গুদামে ধান দিতে চান না।

এক মিল মালিক জানান, তারা জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ধান কিনে তা প্রক্রিয়াজাত করি কিছু লাভের আশায়। বাজারে যখন ৪০ টাকায় সিদ্ধচাল বিক্রি হয়, তখন মিল মালিকরা সরকারকে ৩৬ টাকায় চাল দিতে বাধ্য হচ্ছে। এতে করে তারা লাভের পরিবর্তে লোকসানের শঙ্কায় থাকেন। তাই মিল মালিকরা নানা অযুহাত তুলে বরাদ্দ অনুযায়ী সরকারকে চাল না দিয়ে খোলা বাজারে বিক্রি করতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। আবার অনেক মিলার চালের দাম বাড়ার আশায় মজুদ করেন।

ফেনী খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শাহিন মিয়া জানান, সংগ্রহ অভিযানের সময় করোনা পরিস্থিতির কারণে প্রান্তিক কৃষক ঘরে থেকেই ফড়িয়া ও মিলারদের কাছে ধান বিক্রি করে দিয়েছেন। এদিকে সরকারি মূল্য থেকে ধান ও চালের বাজার মূল্য বেশি থাকায় কৃষক ও মিলাররা গুদামে ধান ও চাল দিতে কিছুটা অনীহা প্রকাশ করেন।

বাংলাদেশ সময়: ২০০০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০
এসএইচডি/ওএইচ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa