php glass

বাংলার মাটিতে বাড়ছে বিদেশি ফলের চাষ

শাওন সোলায়মান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বাংলার মাটিতে বাড়ছে বিদেশি ফলের চাষ। ছবি: ডিএইচ বাদল

walton

ঢাকা: বাংলাদেশের মাটিতে দিন দিন বাড়ছে বিদেশি ফলের চাষ। অনুকূল আবহাওয়া, কৃষি মন্ত্রণালয়ের পর্যাপ্ত সেবা ও স্থানীয় উদ্যোক্তা-চাষিদের উদ্যোগে এগিয়ে যাচ্ছে এই খাত। সব প্রতিবন্ধকতা জয় করে উল্টো বিদেশি ফল বিদেশে রপ্তানির কথা ভাবছে সরকার।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও বেশ কয়েকজন বিদেশি ফলচাষির সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রায় ১০ বছর আগে ড্রাগন ফল চাষের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশে শুরু হয় বিদেশি ফলের চাষ। বর্তমানে ড্রাগন ফলের পাশাপাশি স্ট্রবেরি, রাম্বুটান, অ্যাভোকাডো, পার্সিমন, টক আতা, প্যাসন ফলসহ নাশপাতি, আলু বোখারা ও পিচের মতো বিদেশি ফল চাষ হচ্ছে দেশে।
অ্যাভোকাডো। ছবি: ডিএইচ বাদল
দেশের প্রায় সব অঞ্চলেই চাষ করা যায় এসব ফলের কোনো না কোনোটি। উত্তরবঙ্গ ও ময়মনসিংহের বিভিন্ন এলাকায় চাষ হচ্ছে ড্রাগন ফল। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশে চাষ হচ্ছে রাম্বুটান। রাজশাহী, রংপুর, দিনাজপুর, পাবনা, নাটোরের মতো জেলাগুলোতে ব্যাপক চাষ ও ফলন হচ্ছে স্ট্রবেরির। আর সিলেট, চট্টগ্রাম ও ঢাকার উঁচু এলাকাগুলোতে ভালো ফলন হয় অ্যাভোকাডোর।
 
বিদেশি ফল চাষ করে সফলতাও পাচ্ছেন দেশি চাষি ও উদ্যোক্তারা। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সার্বিক সহযোগিতা ও প্রশিক্ষণ নিয়ে আনুষ্ঠানিক শিক্ষায় শিক্ষিত তরুণরাও আগ্রহী হচ্ছেন এ খাতে ক্যারিয়ার গড়তে। তেমনই দুই উদ্যোক্তা গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার মামা-ভাগ্নে আতাউর রহমান ও আবদুল আজিজ। বিশ্ববিদ্যালয়ের পাট চুকিয়ে চাকরি-বাকরির বদলে দু’জনে মিলে শুরু করেন বিদেশি ফলের চাষ। পরামর্শ নেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক কৃষি বিশেষজ্ঞের। ২০১৩ সালে স্ট্রবেরির চাষ শুরু করে সেবছরই আয় করেন ১১ লাখ টাকা।
ড্রাগন ফল। ছবি: ডিএইচ বাদল নিজেদের উদ্যোগ সম্পর্কে আতাউর রহমান বলেন, বাবা কৃষক ছিলেন্। ছোটবেলায় তার সঙ্গে কাজ করতে করতে কৃষি নিয়ে আগ্রহ জন্মায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের পর ভাগ্নে আজিজকে নিয়ে শুরু করলাম এই বিদেশি ফলের চাষ। প্রথমে কিছুটা সন্দিহান ছিলাম তবে বাজারে যখন এর চাহিদা দেখলাম তখন আত্মবিশ্বাস পেয়েছি। বছর ঘুরতেই যখন ভালো অংকের লাভ আসা শুরু করলো তখন এটা নিয়ে দ্বিতীয়বার আর ভাবিনি। এই খাতেই কাজ চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেই।
 
এদিকে দেশি ফল চাষের পাশাপাশি বিদেশি ফলের চাষ বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ। সৌদি আরব, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের মতো দেশে রপ্তানি হচ্ছে দেশীয় ফলমূল। তারই ধারাবাহিকতায় দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশি ফল বিদেশেই রপ্তানি করার দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা রয়েছে অধিদপ্তরের। আর সেকারণেই চাষিদের প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হচ্ছে বলে জানান কৃষিতথ্য সেবা বিভাগের পরিচালক ও কৃষিবিদ ড. মো. নুরুল ইসলাম।
 রাম্বুটান। ছবি: ডিএইচ বাদল
বাংলানিউজকে নুরুল ইসলাম বলেন, ফলের জন্য প্রথমত দরকার আবহাওয়া। আবহাওয়া যদি ম্যাচ না করে তাহলে হবে না। আমাদের জন্য সৌভাগ্য যে, আমাদের দেশের আবহাওয়া বেশ কয়েকটি সুস্বাদু ও চাহিদাসম্পন্ন বিদেশি ফলের চাষের জন্য সহায়ক।
 
কৃষিতথ্য সেবা দপ্তর বলছে, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে দেশে উৎপাদিত ফলের পরিমাণ ছিল ১২১ দশমিক ১৩ লাখ মেট্রিক টন। সঠিক হিসাব না থাকলেও, এর মধ্যে প্রায় দুই শতাংশ বিদেশি ফল রয়েছে। এই সংখ্যা আরও বাড়াতে ইতোমধ্যে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর থেকে ‘ফল উৎপাদনের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন’ শীর্ষক এক প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। ১৯৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০১৫ সালে শুরু হওয়া এ প্রকল্প শেষ হবে ২০২০ সালে। প্রকল্পের আওতায় এখন পর্যন্ত প্রায় দেড় লাখ কৃষককে বিদেশি ফল চাষে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। কৃষি বিশেষজ্ঞ ও সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন, ২০২০ সালে এসে এই প্রকল্প থেকে দারুণ ইতিবাচক ও সম্ভাবনাময় ফলাফল মিলবে।
চেরি ফল। ছবি: ডিএইচ বাদল
অন্যদিকে ‘সারা বছর ফল উৎপাদন’ শীর্ষক আরেকটি প্রকল্প চালু করার উদ্যোগ নিয়েছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। চালুর পর ২০২৬ সালে গিয়ে শেষ হবে এ প্রকল্প। এ বিষয়ে কৃষিবিদ মো. নুরুল ইসলাম বলেন, বিদেশি ফল চাষের দু’টি বড় উপকারিতা রয়েছে। এক, পুষ্টিগুণসম্পন্ন বিদেশি ফল কম দামেই দেশে উৎপাদন করা যাচ্ছে। ফলে লাভবান হচ্ছে দেশের জনগণ। দুই, বিদেশি ফল চাষে আলাদা গুরুত্ব পাচ্ছে অর্থনৈতিক দিকগুলো। 

‘একদিকে যেমন কর্মসংস্থান বাড়ছে অন্যদিকে পরিকল্পনা করে এগোলে বিদেশেই বিদেশি ফল রপ্তানির আরেকটি বড় সুযোগ তৈরি হতে পারে। আমাদের দেশের মানুষের মধ্যে নতুন কিছু করে দেখানোর আগ্রহ রয়েছে। অনেকেই আছেন যারা তরুণ ও এই খাতে কাজ করছেন বা করতে আগ্রহী। তাদের মধ্যে দারুণ কিছু করে দেখানোর তাগিদ রয়েছে। আমরা সেটিকে যতটা সম্ভব সাহায্য করতে চাই।  
 
বাংলাদেশ সময়: ০৯৫০  ঘণ্টা, আগস্ট ২৯, ২০১৯
এসএইচএস/এএ

চালের গোডাউনে লবণ!
মাগুরায় রাজমিস্ত্রিদের নিয়ে বসুন্ধরা সিমেন্টের কর্মশালা
লবণের গুজবে কান না দেওয়ার আহ্বান মেয়র নাছিরের
টিপু সুলতানের জন্ম-লেভ তলস্তয়ের প্রয়াণ
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ট্রাক মালিকদের ফের বৈঠক বুধবার


দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে কৃত্রিম সংকট তৈরির চেষ্টা!
মাস্টারকার্ডের পেমেন্ট সামিট ও গালা নাইট অনুষ্ঠিত
লন্ডনে বাংলাদেশ বইমেলার কেন্দ্রবিন্দু ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’
প্রাক-প্রাথমিকে পরীক্ষা নিলে ব্যবস্থা