php glass

‘ডুয়িং বিজনেস’ সূচকে কমাতে কাজ চলছে

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড বাংলাদেশ ট্রেড অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠান | ছবি: বাংলানিউজ

walton

ঢাকা: ‘ইজ অব ডুয়িং বিজনেস’ অর্থাৎ সহজে ব্যবসা করার সূচক ১শ’র নিচে নিয়ে আসার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

শনিবার (৩০ মার্চ) রাজধানীর একটি হোটেলে ‘পার্টনার্স ইন প্রোগ্রেস: স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড বাংলাদেশ ট্রেড অ্যাওয়ার্ড ২০১৮’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিনি।

বিশ্বব্যাংকের ২০১৯ সালের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ১৯০টি দেশের মধ্যে সহজে ব্যবসা করার সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১৭৬তম। ১০০ নম্বরকে সর্বোত্তম ধরে এবার বাংলাদেশের নম্বর দাঁড়িয়েছে ৪১ দশমিক ৯৭।

অনুষ্ঠানে টিপু মুনশি বলেন, ইজ অব ডুয়িং বিজনেস সূচকে আমাদের নম্বর খুব ভালো না। আমরা সিরিয়াসলি চেষ্টা করছি এটাকে (সূচক) ১০০’র নিচে নামিয়ে আনার। এর জন্য যা যা করার দরকার আমরা সবকিছুই করবো।

যেসব শর্ত আমাদের নম্বরটি বেশি করে রেখেছে, আমরা ওই দিকে লক্ষ্য রেখেই কাজ করা শুরু করেছি। ইজ অব ডুয়িং বিজনেস সূচক নম্বরে খুব শিগগিরই আপনারা বড় ধরনের একটি পরিবর্তন দেখতে পারবেন, যোগ করেন বাণিজ্যমন্ত্রী। 

অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত ব্যবসায়ীদের প্রসঙ্গে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আজ যেসব সফল ব্যবসায়ীকে পুরস্ক‍ৃত করা হচ্ছে তাদের কাজ এই দেশের উন্নয়নের জন্য সহায়তা করেছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নপূরণে এসব ব্যবসায়ীদেরও অবদান রয়েছে।

অনুষ্ঠানে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড বাংলাদেশ’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নাসের এজাজ বিজয় বলেন, গত বছর আমাদের ব্যাংকের মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ বাংলাদেশে এসেছে। ‘গ্রাহক আমাদের নায়ক’ স্লোগানে আমরা গ্রাহককে সর্বোচ্চ সেবা দেওয়ার চেষ্টা করছি। মানুষের জীবনে ব্যাংকিং সুবিধা আরও সহজ করতে স্ট্যান্ডার্ড চার্টাড ব্যাংকের সহস্রাধিক কর্মকর্তা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আমরা দেশের উন্নয়নসহ নানা রকম সামাজিক কাজে অংশ নিচ্ছি।

তিনি বলেন, ‘পার্টনারস ইন প্রোগ্রেস: স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড বাংলাদেশ ট্রেড অ্যাওয়ার্ড’-এর মাধ্যমে আমরা আমাদের দেশের সমৃদ্ধির যাত্রায় আমাদের ক্লায়েন্টদের সাফল্য উদযাপন করি। এটি বাংলাদেশের উদ্যোক্তাদের সাফল্যের স্বীকৃতি দেয়, যারা তাদের কঠোর পরিশ্রম ও দক্ষতার মাধ্যমে বাংলাদেশকে বিশ্বব্যাপী ভ্যালু চেইন’র গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে পরিণত করেছেন।

স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের ট্রানজেকশন ব্যাংকিংয়ের গ্লোবাল হেড লিসা রবিনস বলেন, আজকের বাংলাদেশে আমি অনেক পরিবর্তন দেখতে পাচ্ছি। দেশের অর্থনীতি সামগ্রিকভাবে পরিবর্তন হয়েছে। জিডিপির আকার বড় হয়েছে। প্রযুক্তি আমাদের জীবনধারাকে বদলে দিয়েছে।

বাংলাদেশ ট্রেড অ্যাওয়ার্ডস স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের একটি বার্ষিক উদ্যোগ। যার মাধ্যমে ব্যাংকের মূল্যবান ক্লায়েন্টদের আন্তর্জাতিক  বাণিজ্যে বিশেষ অর্জনের জন্য স্বীকৃতি দেওয়া হয়।

এ বছর ১২টি প্রতিষ্ঠান ব্যাংকের ট্রেড ভলিউমে সর্বোচ্চ অবদান রাখার জন্য পুরস্কার পেয়েছে। এরা হলো— টেক্সটাইল অ্যান্ড গার্মেন্টস খাতে হা-মীম গ্রুপ, ইয়াংওয়ান কর্পোরেশন, এপিক গ্রুপ, স্কয়ার গ্রুপ এবং প্যাসিফিক জিন্স লিমিটেড।

অন্যান্য ইন্ডস্ট্রিতে, যেমন কমোডিটিস, পাওয়ার, এফএমসিজি এবং  অটোমোবাইলসে বিজয়ীরা হলেন— সিটি গ্রুপ, মেঘনা গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ, টি. কে. গ্রুপ; পিএইচপি ফ্যামিলি, ইউনাইটেড গ্রুপ, ইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেড এবং উত্তরা গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনটি জাতীয় রপ্তানি ট্রফি স্বর্ণ বিজয়ীকে সম্মাননা দেয় স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক। জাবের ও জুবায়ের ফেব্রিক্স লিমিটেড-এর জন্য নোমান গ্রুপ, আকিজ জুট মিলস লিমিটেড-এর আকিজ গ্রুপ এবং বঙ্গ প্লাস্টিক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড-এর জন্য প্রাণ গ্রুপ কে এই সম্মাননা দেওয়া হয়। 

বাংলাদেশ সময়: ২২৫২ ঘণ্টা, মার্চ ৩০, ২০১৯
এসই/এমজেএফ

সড়ক অপসারণ ইউএনওর নেতৃত্বে
গাজীপুরে ডায়রিয়ার প্রকোপ, একজনের মৃত্যু 
এআরএফের সভাপতি আশরাফ আলী, সাধারণ সম্পাদক মাকসুদুল হাসান
বড় জয়ে মুশফিকদের শুভ সূচনা 
আত্মহত্যা করতে চেয়েছিলেন নেহা কাক্কর


দেশের অষ্টম শক্তিশালী ব্র্যান্ড স্বপ্ন
এবার শুরু হবে এক দফার আন্দোলন: মিনু
পরীক্ষামূলক চালু হলো ঢাকা-সিকিম বাস সার্ভিস
টেকনাফে পাল্টাপাল্টি ছুরিকাঘাতে জামাই-শাশুড়ি খুন
ময়মনসিংহে ককটেল বিস্ফোরণে আহত ১০