php glass

মোবাইল ব্যাংকিংয়ে মানি লন্ডারিংয়ের ঝুঁকি!

শাহেদ ইরশাদ, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

প্রতীকী

walton

ঢাকা: ন্যাশনাল পেমেন্ট সুইচ বাংলাদেশ (এনপিএসবি) সুবিধা চালু হওয়ার পর রিয়েল টাইম গ্রস সেটেলমেন্ট (আরটিজিএস) ব্যবস্থা প্রবর্তনের মাধ্যমে বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাতে তথ্য ও প্রযুক্তির মাধ্যমে সেবাদানে বিপ্লব ঘটেছে। নতুন সেবা মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) আলাদা একটি ব্যাংকিং প্ল্যাটফর্ম।

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে দেশের লেনদেন ব্যবস্থার বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটলেও মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদানের প্রযুক্তিতে মানি লন্ডারিংয়ের ঝুঁকি রয়েছে। তবে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধে সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ও ব্যবহারকারী উভয়কেই সচেতন হওয়ার পাশাপাশি সেবার মান আরও বৃদ্ধি করতে হবে।

বুধবার (৭ নভেম্বর) বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টে (বিআইবিএম) আয়োজিত দুই দিনব্যাপী সপ্তম বার্ষিক ব্যাংকিং সম্মেলনে-২০১৮ (এবিসি-২০১৮) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্যে এসব কথা বলেন বিআইবিএম মহাপরিচালক ড. তৌফিক আহমেদ চৌধুরী।

বিআইবিএম মহাপরিচালক ২০১৭ সালে ব্যাংকিং কার্যক্রমের ওপর একটি সামগ্রিক বক্তব্য দেন। তিনি বলেন, ক্যাশ এবং পেপারমুক্ত লেনদেনের জন্য ২০১০ সালে বাংলাদেশ ব্যাংক দুটি কোম্পানির মাধ্যমে ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফার (ইএফটি) ব্যবস্থা চালু করে।  ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে বর্তমানে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত স্থানান্তর করা যাচ্ছে। ব্যাংকিং সেবায় নতুন করে যুক্ত হয়েছে  ইলেকট্রনিক প্ল্যাটফর্ম মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস)। এজেন্ট ব্যাংকিংও শুরু হয়েছে।

বর্তমানে ১৬ ব্যাংক ও একটি সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দিচ্ছে। এসব প্রতিষ্ঠান ৭ লাখ এজেন্ট নিয়োগ করেছে। ১৬টি ব্যাংক ও একটি সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান সেবা দিলেও পুরো বাজার দখল করে রেখেছে মাত্র দুটি প্রতিষ্ঠান।

ড. তৌফিক আহমেদ চৌধুরী বলেন, এসব প্রতিষ্ঠানের মোট মোবাইল ব্যাংক অ্যাকাউন্ট রয়েছে ৫ কোটি ৬০ লাখ। এরমধ্যে নিয়মিত লেনদেন করা হয়ে থাকে ৩ কোটি অ্যাকাউন্টে। নতুন পেমেন্ট সিস্টেমটি মানি লন্ডারিং প্রতিরোধে অত্যন্ত দুর্বল। মানি লন্ডারিং প্রতিরোধে ব্যাংকগুলোর ঝুঁকি ভিত্তিক পদ্ধতি গ্রহণ করা উচিত। যা ব্যাংকগুলোর ঝুঁকি শনাক্ত করে এবং ন্যাশনাল পেমেন্ট সুইচ সম্পর্কিত মানি লন্ডারিং ঝুঁকি বুঝতে পারে।

বিআইবিএম মহাপরিচালক বলেন, একই সঙ্গে ঝুঁকির স্তর অনুসারে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধে পদক্ষেপ নিতে পারে। এজন্য ব্যবহারকারী এবং সেবা প্রদানকারী উভয়ের আরও সচেনতা হওয়া আবশ্যক। আরও উন্নয়ন করা প্রয়োজন পরিশোধ সেবা ব্যবস্থা।

এ সময় তিনি বলেন, বর্তমানে দেশের ৫১টি ব্যাংক ৯ হাজার ৩৫১টি অটোমেটেড টেলার মেশিন (এটিএম) দিয়ে সেবা দিচ্ছে। ৩৫ হাজার ৫০১টি পয়েন্ট অব সেল (পিওএস) মেশিন দিয়ে সেবা প্রদান করছে ৪৮টি ব্যাংক। ন্যাশনাল পেমেন্ট সুইচের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে ৬টি ব্যাংক ইন্টারন্টে ব্যাংকিং সেবা দিচ্ছে। এসব সেবা নিচ্ছে ১১ মিলিয়ন ডেবিট কার্ড ও ১ মিলিয়ন ক্রেডিট কার্ড গ্রাহক।

বাংলাদেশ সময়: ১৬০৬ ঘণ্টা, নভেম্বর ০৮, ২০১৮
এসই/এমজেএফ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: তথ্যপ্রযুক্তি
সু চির অস্বীকার: রোহিঙ্গারা বললেন ‘মিথ্যুক’
সোলায়মানের পদত্যাগ নিয়ে জামায়াতে তোলপাড়
রাজশাহীর মধ্য শহর থেকে বাস টার্মিনাল সরবে আগামী বছর
স্মার্ট রেফ্রিজারেটরের বিজ্ঞাপনে মাশরাফি
নেপিদোতে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সেনাপ্রধানদের বৈঠক


এবার রাজ্যসভায়ও পাস হলো ‘বিতর্কিত’ নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল
আগুনের সূত্রপাত ‘গ্যাস রুমে’, নেভাতে গিয়েই দগ্ধ শ্রমিকরা
বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম উদ্বোধন করলেন মেয়র আতিকুল
মেডিক্যাল বোর্ডের রিপোর্ট কোর্টে, শুনানি বৃহস্পতিবার
চট্টগ্রামে বিজয় স্তম্ভ ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর হবে