পুঁজিবাজারে বিদেশি বিনিয়োগে ধস

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ

walton

ঢাকা: চলতি বছরের এপ্রিল মাস থেকেই প্রবাসী ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের শেয়ার বিক্রির ‘হিড়িক’ পড়ে। কমতে থাকে শেয়ার কেনার প্রবণতা। এ কারণে পাল্লা দিয়ে কমে লেনদেন ও প্রকৃত বিনিয়োগের পরিমাণও। ঠিক এ অবস্থায় জুলাই মাসেও আরেক দফা কমে বিদেশি ও প্রবাসী বিনিয়োগ। যা ‘ধসে’ রূপান্তরিত হয়েছে বলে মনে করেন বাজার সংশ্লিষ্টরা।

তারা বলছেন, দরপতনে পুঁজি হারানোর ভয়, দেশের সার্বিক অবস্থার পাশাপাশি পুঁজিবাজার নিয়ে আস্থার সংকট আরো প্রকট হয়েছে। তাতে বাজার ছাড়ছেন বিদেশিরা। ফলে গত বছরের জুলাই মাসের তুলনায় বিনিয়োগকারীদের লেনদেন কমেছে প্রায় আড়াই’শ কোটি টাকা। প্রকৃত বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ কমেছে কয়েকগুণ। অন্যদিকে বিদেশিদের দেখা-দেখি দেশীয় প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরাও বাজার পর্যবেক্ষণ করছেন।
 
দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) তথ্য মতে, জুলাইয়ে প্রবাসী ও বিদেশিদের মোট লেনদেন হয়েছে ৮৫৬ কোটি ৭৯ লাখ ২ হাজার ২৬৪ টাকা। এর আগের মাস জুনে লেনদেন হয়েছিলো ১ হাজার ৯৯ কোটি ৮৬ লাখ ৭৩ হাজার ৫৫১ টাকা। সে হিসেবে জুন মাসের তুলনায় জুলাইয়ে লেনদেন কমেছে ২৪৩ কোটি ৭ লাখ ৭১ হাজার ২৮৭ টাকা।
 
শুধু জুন মাস নয়, এর আগের মাস মে ও এপ্রিল, এমনকি ২০১৭ সালের জুলাই মাসের চেয়ে লেনদেন কমেছে চলতি বছরের জুলাই মাসে। ডিএসইর তথ্য মতে, ২০১৭ সালের জুলাই মাসে লেনদেন হয়েছিলো ১ হাজার ৪৯ কোটি ৭৮ লাখ ৯৫ হাজার ১৩৩ টাকা। সেই হিসেবে গত জুলাই মাসের চেয়ে চলতি বছরের জুলাই মাসে লেনদেন কমেছে ১৯২ কোটি ৯৯ লাখ ৯৩ হাজার ৪৯ টাকা। লেনদেন কম হওয়ায় মুনাফাবঞ্চিত হয়েছে ব্রোকারেজ হাউজ। পাশাপাশি বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আয় বঞ্চিত হয়েছে সরকার।

বিদায়ী মাসে বিদেশিরা শেয়ার কিনেছেন ৪১২ কোটি ৪ লাখ ১৯ হাজার ৪৫১ টাকার। তার বিপরীতে বিক্রি করেছেন ৪৪৪ কোটি ৭৪ লাখ ৮২ হাজার ৮১৩ টাকার। এর আগের মাস জুনে ৪৪৬ কোটি ৫৭ লাখ ৬৯ হাজার ৫৮৮ টাকার শেয়ারি বিক্রির বিপরীতে ৬৫৩ কোটি ২৯ লাখ ৩ হাজার ৯৬০ টাকার শেয়ার কিনেছিলেন তারা।
 
শেয়ার কেনার চেয়ে বিক্রি বেড়ে ‍যাওয়ায় চলতি বছরের জুনের চেয়ে জুলাই মাসে বিনিয়োগকারীদের নিট বিনিয়োগ ১৭৪ কোটি ৭১ হাজার ১৩ টাকা থেকে কমে দাঁড়িয়েছে ৩২ কোটি ৭ লাখ ৬৩ হাজার ৩৬২ টাকা। এর আগের মাস জুনে নিট বিনিয়োগ হয়েছিলো ২০৬ কোটি ৭১ লাখ ৩৪ হাজার ৩৭৫ টাকা।
 
এ বিষয়ে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সাবেক চেয়ারম্যান ড. এবি মির্জা আজিজুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, পুঁজিবাজারের প্রতি বিদেশিদের আস্থা কমেছে। পাশাপাশি আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশের রাজনৈতিক অবস্থা বিবেচনা করে বিনিয়োগ করছেন। কেউ কেউ বাজার থেকে চলে যাচ্ছেন। আশা করছি, নতুন সরকার গঠনের পর বিনিয়োগ বাড়বে।
 
এ বিষয়ে ডিএসই’র পরিচালক মিনহাজ মান্নান ইমন বাংলানিউজকে বলেন,  ‘বাজারের অস্থিরতার কারণে বিদেশিরা শেয়ার বিক্রি করে দিচ্ছেন। শেয়ার বিক্রির চাপে বাজারে দরপতনও হচ্ছে। কারণ বাজারটা এখন দুর্বল। এই দুর্বল অবস্থায় বাজার চাপ সামলাতে পারছে না’।
 
তিনি বলেন, ‘দেশের বর্তমান অবস্থা ও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিদেশিদের মধ্যে নতুন করে শঙ্কা তৈরি হয়েছে। আর এ কারণেই বিদেশিরা শেয়ার বিক্রি করে নগদ টাকা রেখে দিচ্ছেন’।
 
বাংলাদেশ সময়: ২১২০ ঘণ্টা, আগস্ট ০৬, ২০১৮
এমএফআই/জেডএস

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: শেয়ার বাজার
ফ্রান্সে ১ দিনেই করোনায় মৃত্যু ১১২০
পণ্য পৌঁছে দিয়ে ১০ দিনে রেলওয়ের আয় ৪ কোটি টাকা
৩ হাজার কর্মহীন মানুষের মধ্যে এমপি কমলের ত্রাণ বিতরণ 
ঝুঁকিপূর্ণ সাঁকোই ভরসা দুই উপজেলার ২০ হাজার মানুষের 
অসহায় মানুষের পাশে স্মারক সংগ্রাহক জসিম


মাগুরায় যুবকের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার
কক্সবাজার সৈকতের বালিয়াড়ি তৈরিতে হচ্ছে সাগরলতা বনায়ন 
ঠাকুরগাঁওয়ে করোনা সন্দেহে ১৪ জনের নমুনা সংগ্রহ 
নদী তীরের মাটি কাটায় সোয়া লাখ টাকা জরিমানা
ব্যক্তি উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ করলো ‘সহযোগী’