বিদ্যুৎ-গ্যাস সঙ্কটে বিপর্যয়ের মুখে শিল্প-কারখানা

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

বিদ্যুৎ ও গ্যাসের অভাবে দেশের অনেক শিল্পপ্রতিষ্ঠান উৎপাদন-বিপর্যয়ে পড়েছে। রাজধানী ও এর আশেপাশের শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো ছাড়াও একই সঙ্কটে রয়েছে বন্দর নগরী চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন শিল্প এলাকার প্রতিষ্ঠানেগুলো।

ঢাকা: বিদ্যুৎ ও গ্যাসের অভাবে দেশের অনেক শিল্পপ্রতিষ্ঠান উৎপাদন-বিপর্যয়ে পড়েছে। রাজধানী ও এর আশেপাশের শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো ছাড়াও একই সঙ্কটে রয়েছে বন্দর নগরী চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন শিল্প এলাকার প্রতিষ্ঠানেগুলো।

অধিকাংশেরই অভিযোগ চাহিদার তুলনায় বর্তমানে বিদ্যুৎ ও গ্যাস অর্ধেকও পাওয়া যাচ্ছে না। আর এতে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে অনেক ছোট-বড় প্রতিষ্ঠান। অনেকগুলো চলছে ধুকে ধুকে ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ উৎপাদন নিয়ে। এ অবস্থায় নতুন বিনিয়োগ হচ্ছে না বরং বিদ্যমান উৎপাদন বিপর্যয় ঠেকাতেই ব্যস্ত শিল্পপতিরা।

যখন তখন বিদ্যুৎ চলে যাচ্ছে। আবার দিনে ৭/৮ ঘণ্টাই গ্যাসের চাপ কম থাকছে। অন্যদিকে ডিজেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় তা ব্যবহার করে জেনারেটর চালিয়ে উৎপাদন চালিয়ে যাওয়াও হয়ে উঠেছে অসম্ভব। ফলে উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে চরমভাবে।

সাভার, গাজীপুর, টাঙ্গাইল, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ সবগুলো শিল্প এলাকারই চিত্র এক।

তৈরি পোশাক, কম্পোজিট টেক্সটাইল, পাট, স্টিল, রি-রোলিং, সিমেন্টসহ প্রায় সব ধরনের ছোট-বড় শিল্পই এ অবস্থার শিকার।
 
সবচেয়ে বড় বিপর্যয়ে পড়েছে তৈরি পোশাক খাত। রপ্তানি-আয়ের ৭৬ ভাগ আসে পোশাক খাত থেকে। বিশ্ববাজারে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের কদর দিন দিন বাড়লেও  জ্বালানি-সংকটে তা হাতছাড়া হয়ে যেতে বসেছে। মালিকরা প্রায়শই সময়মতো শিপমেন্ট নিশ্চিত করতে পারেছেন না আর সে সুযোগ নিয়ে নিচ্ছে চীন-ভারত-ভিয়েতনামসহ প্রতিযোগী দেশগুলো।

বিজিএমিইএ’র সাবেক সভাপতি সালাম মুর্শেদী বাংলানিউজকে বলেন, বিদ্যুৎ ও গ্যাসের কারনে উৎপাদন চরমভাবে ব্যহত হচ্ছে। তিনি বলেন, বর্তমানে দেশে মোটের উপর উৎপাদন সক্ষমতা কমেছে। যার অনিবার্য ফল হিসেবে বিদেশে মার্কেটেও রেশিও কমছে।
 
সেপ্টেম্বর মাসে দেশের উৎপাদন প্রবৃদ্ধি ২ শতাংশে নেমে আসে জানিয়ে সালাম মুর্শেদী বলেন, চলতি মাসে তা আরো কমে যাওয়ার অাশংকা করছি আমরা।

কোনো কোনো দিন সারা দিনেই বিদ্যুৎ পাওয়া যায় না উল্লেখ করে তিনি বলেন, পিক আওয়ারে দ্বিগুন দাম দিয়ে বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে হয়।  

বিদ্যুই উৎপাদনের মূল চালিকা হিসেবে উল্লেখ করে সালাম মুর্শেদী বলেন, বিদ্যুতে সঙ্কট থাকলে তার প্রভাব উৎপাদনের প্রতিটি ধাপে গিয়েই পড়ে।

এদিকে বিদ্যুৎ ও গ্যাস সঙ্কটের কারণে বিদেশি বিনিয়োগও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য সরকার সব ধরনের সুযোগ সুবিধা দিলেও তারা অনিয়মিত গ্যাস সরবরাহ ও বিদ্যুৎসঙ্কটের কারণে বিনিয়োগ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন।

নাজমুল হোসেন নামে এক গার্মেন্ট ব্যবসায়ী বাংলানিউজকে বলেন, আগে সঙ্কটটি ছিলো কেবল বিদ্যুতের। সেকারণে দ্রুত তারা নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় বিদ্যুৎ উৎপাদনে ক্যাপটিভ বা স্ট্যান্ডবাই জেনারেটর ব্যবহার শুরু করেন। যা চলে গ্যাসে। কিন্তু এখন অনেক এলাকায় গ্যাসেরও চাপ কম থাকায় ওইসব জেনারেটর চালানো যাচ্ছে না। জেনারেটরগুলো ডিজেল দিয়ে চালানো যেতো কিন্তু সম্প্রতি ডিজেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় তাও হয়ে উঠেছে ব্যয়বহুল।

তিনি বলেন, এ অবস্থায় দীর্ঘ সময় উৎপাদন বন্ধ করে বসে থাকতে হচ্ছে। ফলে সময়মতো শিপমেন্ট ছাড়া অসম্ভব হয়ে পড়েছে।

নাজমুল বলেন, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা হিসেবে বলতে পারি বিদ্যুৎ ও গ্যাসের এই সঙ্কট আমাদের ব্যবসা থেকে সরে যেতে বাধ্য করছে।

এ অবস্থা চলতে থাকলে শিল্পে বড় বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন অনেকেই। তার বলছেন  এক পর্যায়ে হাজার হাজার প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিতে হবে। যাতে কাজ হারাবে লাখো মানুষ।

গ্যাসের চাপ কম থাকা এখন একটি নৈমিত্যিক চিত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে। গাজীপুরের একজন টেক্সটাইল ব্যবসায়ী জানান, সরকার থেকে ২০ পিএসআই (পাউন্ড পার স্কয়ার ইঞ্চি) চাপের গ্যাসের জন্য অনুমোদন নিলেও কোনোদিনই তা পাননি তারা।

পিক আওয়ারে তিন পিএসআইয়েরও কমে নেমে আসে গ্যাসের চাপ। লাখ লাখ টাকা খরচ করে গ্যাস পাইপের সঙ্গে সরাসরি সংযোগ নিয়েও কোনো লাভ হয়নি বলেন এই শিল্পদ্যোক্তা।

গাজীপুরে গ্যাসের চাপ মাত্র এক পিএসআইয়ের নিচেও নামে বলে জানালেন কয়েকজন।

সার্বিকভাবে গ্যাস ও বিদ্যুতের সঙ্কট দূর না হলে দেশের অধিকাংশ শিল্পই বন্ধ হয়ে যাবে তেমন আশঙ্কাই বার বার জানালেন উদ্যোক্তারা।

বাংলাদেশ সময় ১৮১১, অক্টোবর ১৯, ২০১১

মা হারালেন হাবিবুল বাশার সুমন
কোয়ারেন্টিন শেষে বরিশালে ১২০৪ জনকে ছাড়পত্র
জেলা প্রশাসনের খাবার গেল দিনমজুরদের বাড়ি
চলে গেলেন ফ্রান্সের ৮৪’র ইউরো জেতানো কোচ হিদালগো
ফেনীতে ৯৬১ বিদেশফেরত হোম কোয়ারেন্টিনে


১০ কেজি করে চাল-নগদ টাকা পাবে নিম্ন আয়ের মানুষ
বিনামূল্যে পিপিই সরবরাহ করার ঘোষণা ফর্টিস গ্রুপের
কোভিড-১৯ ঠেকাতে কমলনগরের হাট-বাজারে ‘সামাজিক দূরত্ব চিহ্ন’
বই-টেলিভিশন আর পরিবার নিয়ে কাটছে সময়
বন্ধ কারখানা শ্রমিকদের বাসায় থাকতে হবে, পাবেন বেতন