বৈদেশিক ঋণের অর্থ ছাড় নিয়ে সরকারে হতাশা

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

বৈদেশিক ঋণের অর্থ ছাড়ে দীর্ঘসূত্রতায় উদ্বেগ ও হতাশা প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সরকার। পাশাপাশি দাতাগোষ্ঠীর স্থানীয় কার্যালয়ের ক্ষমতা বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা:বৈদেশিক ঋণের অর্থ ছাড়ে দীর্ঘসূত্রতায় উদ্বেগ ও হতাশা প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সরকার। পাশাপাশি দাতাগোষ্ঠীর স্থানীয় কার্যালয়ের ক্ষমতা বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

বুধবার পরিকল্পনা কমিশনের এনইসি সম্মেলনকক্ষে দাতাগোষ্ঠীর প্রতিনিধিদের সঙ্গে সরকারের পরিকল্পনামন্ত্রী ও বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিবদের এক বৈঠকে সরকারের পক্ষ থেকে এ হাতাশা প্রকাশ করা হয়।

বৈঠকের বিষয়বস্তু ছিল ‘বৈদেশিক সহায়তাপুষ্ট প্রকল্প বাস্তবায়নে সমস্যা ও সমাধান’।

বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন পরিকল্পনামন্ত্রী একে খন্দকার।

দাতা গোষ্ঠীর পক্ষে উপস্থিত ছিলেন বিশ্বব্যাংক, এশিয়ান ডেভলপমেন্ট ব্যাংক, জাইকাসহ ঢাকায় অবস্থিত বিভিন্ন দাতা সংস্থার প্রতিনিধিরা।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, সরকারের সচিবরা অর্থ ছাড়ে দীর্ঘসূত্রতার জন্য দাতা গোষ্ঠীর আমলাতন্ত্রকে দায়ী করে বলেন, দাতা সংস্থার স্থানীয় অফিসকে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা দেওয়া উচিত। কারণ প্রত্যেকটি প্রকল্প বা সিদ্ধান্তের জন্য প্রতিটি ডোনার এজেন্সিকে তাদের নিজ নিজ সদরদপ্তরের সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষা করতে হয়। এর ফলে প্রকল্প বাস্তবায়নে বিলম্ব হয়।

পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য ড. শামসুল আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‘বৈদেশিক ঋণ যদি দ্রুত পাওয়া যায়, তাহলে দেশের অর্থনীতির চ্যালেঞ্জগুলো দ্রুত মোকাবেলা করা যাবে। না হলে সমস্যায় পড়তে হবে।’

বৈঠক শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী একে খন্দকারও দাতা গোষ্ঠীর স্থানীয় অফিসের ক্ষমতায়নের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৩২০ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৯, ২০১১

বেনাপোলে প্রায় আড়াই মাস আটকা ১৯ ভারতীয় ট্রাকচালক
মোরা ত্রাণ চাই না, বেড়ি চাই
রবীন্দ্র সরোবর যেন সবুজের গালিচা
ফলন ভালো হলেও বিক্রি নিয়ে দুশ্চিন্তায় পাহাড়ের কৃষক
করোনায় মারা গেলেন প্রথম কোনো ফুটবলার


শ্বাসকষ্ট নিয়ে চবি শিক্ষকের মৃত্যু
প্রথম ইউরোপীয় দেশ হিসেবে ‘করোনামুক্ত’ মন্টেনিগ্রো
উল্লাপাড়ায় ঘুড়ি কেনাবেচা নিয়ে সংঘর্ষে নিহত এক
ইডিইউতে হারমনি অব আর্টস আজ ও কাল
বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস রোববার