তিন উপকূলীয় জেলায় মৎস্য অবতরণকেন্দ্র নির্মাণ হবে: লতিফ

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

walton

পিরোজপুরসহ উপকূলের তিনটি জেলায় সরকার আধুনিক মৎস্য অবতরণকেন্দ্র নির্মাণ করবে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাস।

সংসদ ভবন থেকে: পিরোজপুরসহ উপকূলের তিনটি জেলায় সরকার আধুনিক মৎস্য অবতরণকেন্দ্র নির্মাণ করবে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাস।

বুধবার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে জাফরুল ইসলাম চৌধুরীর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘উপকূলীয় অঞ্চলে তিনটি আধুনিক মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র নির্মাণে সরকারের পরিকল্পনা রয়েছে। এগুলো হবে পিরোজপুরের পাড়েরহাট, লক্ষ্মীপুরের রামগতি এবং পটুয়াখালীর আলীপুর-মহিপুর।’

ডিপিপি অনুমোদিত হলে ২০১৪ সালের মধ্যে এ প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হবে বলে জানান তিনি।

একই বিষয়ে সাধনা হালদারের প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, বিএফডিসি কর্তৃক উপকূলীয় জেলা পিরোজপুরের পাড়েরহাটে আধুনিক সুবিধা সম্বলিত সামুদ্রিক মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র স্থাপন বিষয়ক ডিপিপি’র উপর পরিকল্পনা  কমিশনে গত ২২ মে আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটির সভা হয়েছে।

সভায় ডিপিপি পুনর্গঠনের সিদ্ধান্ত হয়। আর সে সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে ডিপিপি পুনর্গঠনের জন্য পরিকল্পনা কমিশন থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছে।

ডিপিপি পুনর্গঠন করে অনুমোদনের জন্য মৎস্য ও প্রণিসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে পরিকল্পনা কমিশনে সহসাই প্রেরণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

অপু উকিলের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, গত বছর দেশের সাতটি বিভাগের ৫০টি জেলায় ৫ হাজার ৯৫টি গবাদিপশুর মধ্যে অ্যানথ্র্যাক্স রোগ চিহ্নিত করা হয়। এর মধ্যে সিরাজগঞ্জ জেলায় ১১১টি গরু এই রোগে আক্রান্ত হয়।

তিনি আরও জানান, অ্যানথ্র্যাক্স শুধু সিরাজগঞ্জ জেলাতেই দেখা দেয়নি, যেসব এলাকায় গবাদি পশু উৎপাদন ও প্রতিপালন বেশি হয়ে থাকে, সাধারণত সেসব এলাকাতেই এ রোগের প্রাদুর্ভাবের আশঙ্কা দেখা দেয়।

সিরাজগঞ্জ জেলায় গবাদিপশুর ঘনত্ব বেশি বলে জানান লতিফ বিশ্বাস।
 
রেহানা আক্তার রানুর প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, গত অর্থ বছরে মৎস্য রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। অর্জিত হয়েছে ৬৩৯ দশমিক ৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং অর্জিত সাফল্য শতকরা ১৪২ ভাগ। মৎস্য ও মৎস্য পণ্য রপ্তানির মাধ্যমে ৪ হাজার ৬০৩ কোটি ৭৬ লাখ টাকার বৈদেশিক মুদ্রা অর্জিত হয়েছে।

বেগম নূর-ই-হাসনা লিলি চৌধুরীর প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, মহাজোট সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর এ পর্যন্ত মন্ত্রণালয় থেকে বিনামূল্যে খামারীদের ৮৪৪টি গাভী দেওয়া হয়েছে।

বজলুল হক হারুনের প্রশ্নের জবাবে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী জানান, ঢাকা চিড়িয়াখানাকে আরও বেশি আকর্ষণীয় ও দর্শনীয় করার লক্ষ্যে একটি উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। প্রকল্প প্রস্তাবে বিরল প্রজাতির প্রাণি সংগ্রহের ব্যবস্থাসহ জীবজন্তুর আধুনিক চিকিৎসা সুবিধা এবং দর্শনার্থীদের বিনোদনের নতুন নতুন আকর্ষণীয় ইভেন্ট/উপকরণ দিয়ে সমৃদ্ধ করার ব্যবস্থাও রয়েছে।

একই প্রশ্নকর্তার আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, সরকার চিংড়ি খাতে আয় বাড়াতে এবং আধুনিক উপায়ে মানসম্মতভাবে চিংড়ি উৎপাদনের জন্য চিংড়ি নীতিমালা প্রণয়ন করেছে। বর্তমানে এটি চূড়ান্ত অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৫০ ঘণ্টা, আগস্ট ২৪, ২০১১

বিনামূল্যে পিপিই সরবরাহ করার ঘোষণা ফর্টিস গ্রুপের
কোভিড-১৯ ঠেকাতে কমলনগরের হাট-বাজারে ‘সামাজিক দূরত্ব চিহ্ন’
বই-টেলিভিশন আর পরিবার নিয়ে কাটছে সময়
বন্ধ কারখানা শ্রমিকদের বাসায় থাকতে হবে, পাবেন বেতন
করোনা: বরিশালের সব চায়ের দোকান বন্ধ


করোনা: ৫০ লাখ ইউরো দান করলেন ডর্টমুন্ড অধিনায়ক রয়েস
করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয় 
মিরপুর স্টেডিয়াম চিকিৎসার জন্য দিতে প্রস্তুত বিসিবি
বগুড়ায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু, ১৫ বাড়ি লকডাউন
ভারতীয় নাগরিকদের আতঙ্কিত না হওয়ার অনুরোধ রীভা গাঙ্গুলির